জলবায়ু পরিবর্তন: সন্তান নিতে অনাগ্রহী ১০ জনে চারজন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৫৩ | প্রকাশিত : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৪৬
ছবি: সংগৃহীত

জলবায়ু পরিবর্তন বর্তমান বিশ্বে একটি বহুল আলোচিত বিষয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব ইতোমধ্যে বিশ্বে পড়েতে শুরু করেছে। ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাস, দাবানল, খরা, বন্যাসহ অনেক প্রাকৃতিক দুযোগ পূর্বের তুলনায় ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। বিশ্বনেতারা জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় এখনো কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারেননি। যার কারণে তরুণদের মধ্যে হতাশা বাড়ছে। একটি জরিপে দেখা গেছে, পৃথিবীর ভবিষ্যৎ অবস্থা খারাপ হতে পারে ভেবে তরুণ-তরুণীদের প্রতি ১০ জনে চারজন সন্তান নেয়ার ব্যাপারে দ্বিধাগ্রস্ত অবস্থার মধ্যে রয়েছে।

জরিপে অংশ নেয়া ৬০ শতাংশ তরুণ-তরুণী জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে চরমভাবে উদ্বিগ্ন। ৪৫ শতাংশ বলেছেন, জলবায়ু পরিবর্তন তাদের দৈনন্দিন জীবনে প্রভাব ফেলছে। তিন-চতুর্থাংশ মনে করছেন, পৃথিবীর ভবিষ্যৎ ভয়াবহ। ৫৬ শতাংশ মনে করছেন, মানবতা ধ্বংস হতে চলেছে।

দুই-তৃতীয়াংশ বলছে, জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে তারা দুঃখিত, ভীত ও উদ্বিগ্ন। বহু মানুষ জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে ভয়, রাগ, হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

১৬ বছর বয়সী একজন বলেছেন, ‘তরুণদের জন্য বিষয়টি (জলবায়ু পরিবর্তন) ভিন্ন। গ্রহের ধ্বংস হচ্ছে ব্যক্তিগত।’

যুক্তরাজ্যের বাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতৃত্বে পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগিতায় ১০টি দেশে এই জরিপ চালানো হয়েছে। এই জরিপে তহবিল সরবরাহ করে প্রচার ও গবেষণা সংগঠন অ্যাভাজ। এই জরিপে ১৬-২৫ বছর বয়সী মোট ১০ হাজার তরুণ-তরুণী অংশ নেন।

জরিপ পরিচালনা দলের প্রধান ক্যারোলিন হিকম্যান বিবিসিকে বলেছেন, ‘এই জরিপের মাধ্যমে উঠে এসেছে যে, পরিবেশ-উদ্বেগের পেছনে শুধু পরিবেশগত ধ্বংস এককভাবে দায়ী নয়। জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় সরকারি পদক্ষেপের অভাবের কারণেও তাদের মধ্যে উদ্বেগ, হতাশা দেখা দিচ্ছে। তরুণ-তরুণীরা সরকারের দ্বারা পরিত্যক্ত ও বিশ্বাসঘাতকতার শিকার হচ্ছে বলে মনে করেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘তারা কেমন অনুভব করে আমরা শুধু সেটিই দেখিনি। তারা কী চিন্তা করে আমরা সেটিও জানার চেষ্টা করেছি। আমরা দেখতে পেয়েছি তাদের মধ্যে প্রতি ১০ জনে চারজন সন্তান নেবে কি নেবে না সে ব্যাপারে দ্বিধাগ্রস্ত।’

সূত্র: বিবিসি

(ঢাকাটাইমস/১৫ সেপ্টেম্বর/এসইউএল)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :