বিশ্বে সোনার চেয়েও দামি যেসব চা

প্রকাশ | ২৬ মে ২০২২, ১২:৫২ | আপডেট: ২৬ মে ২০২২, ১৪:৩৪

ফিচার ডেস্ক, ঢাকাটাইমস

সুস্বাদু এক কাপ চা সারাদিনের কর্মব্যস্ততার মাঝে শরীর চাঙ্গা করে তুলতে পারে। বিশেষজ্ঞদের মতে, মনে উৎফুল্লতা আনতে এক কাপ চায়ের কোনো জুড়ি হয় না।

গবেষণায় দেখা গেছে, চা আমাদের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটায়। চা পান করলে আমাদের দাঁত ও হৃদপিণ্ড সুস্থ থাকে, এমনকি এটি ক্যানসারের বিরুদ্ধেও বেশ কার্যকরী। চা ত্বকের ঔজ্জ্বল্য বাড়ানোর পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং হৃদ্‌যন্ত্র ভালো রাখে।

তবে চায়ের আদি জন্মভূমি চীন দেশে। ১৬৫০ সালে চীনে চায়ের আবিষ্কারের পর ১৮০০ সালে বৃটিশদের হাত ধরে যে চা এই উপমহাদেশে এসেছিল, সেখানেই এখন চায়ের বিশাল একটি অংশ চাষ হয়। বাংলাদেশের সিলেটে মালনীছড়া চা বাগান হলো উপমহাদেশের প্রথম প্রতিষ্ঠিত চা বাগান।

বিজ্ঞানীরা চা উদ্ভিদের নাম দিয়েছেন ক্যামেলিয়া সিনেনসিস। যত ধরনের চা আছে সবই তৈরি হয় ক্যামেলিয়া সিনেনসিস থেকে। চা মৌসুমী অঞ্চলের পার্বত্য ও উচ্চভূমির ফসল। এই চির-হরিৎ গুল্ম বা ছোট গাছ থেকে পাতা এবং পাতার কুঁড়ি সংগ্রহ করে তা চা উৎপাদনে ব্যবহার করা হয়।

বিভিন্ন ধরনের চায়ের মধ্যকার পার্থক্যগুলো উদ্ভিদের চাষের ধরন, পরিস্থিতি এবং উৎপাদন প্রক্রিয়াতে ভিন্নতা রয়েছে। সর্ববৃহৎ চা উৎপাদনকারী দেশ হিসেবে চীন, ভারত, কেনিয়া, শ্রীলঙ্কা, তুরস্ক, ভিয়েতনাম, ইন্দোনেশিয়া, আর্জেন্টিনা, বাংলাদেশ, জাপান, উগান্ডা, নেপাল, ইরান, মিয়ানমার অন্যতম। চায়ের নানা রকমফের। গুণে মানে দামেও বিস্তর তারতম্য। এই পানীয় সুলভ হলেও এমন অনেক চা আছে যার দাম সাধারণের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে। চায়ের দাম অনেক বেশি হলেও বিশ্বজুড়ে এসব দামি চায়ের চাহিদাও অনেক। জেনে নিন সোনার চেয়েও দামি যেসব চা-

দ্য গোল্ডেন বেঙ্গল

বিশ্বের সবচেয়ে দামি চায়ের নাম ‘দ্য গোল্ডেন বেঙ্গল’। যার প্রতি পাতায় ২৪ ক্যারেট সোনার প্রলেপ যার দাম প্রতি কেজিতে ১৪ লাখ পাউন্ড। বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৬ কোটি টাকা। লন্ডনের ১০৩ ব্রিক লেনে অবস্থিত লন্ডন টি এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে এই চায়ের আত্মপ্রকাশ ঘটে। ‘দ্য গোল্ডেন বেঙ্গল’ বা সোনার বাংলা চা এসেছে বাংলাদেশের সিলেট জেলা থেকে। প্রকারে ব্ল্যাক টি, কিন্তু স্বচ্ছ পেয়ালায় তার সোনালি উপস্থিতি। ‘দ্য গোল্ডেন বেঙ্গল’ চা প্রস্তুতের প্রক্রিয়াটিও বেশ সময়সাপেক্ষ। এর জন্য সময় লেগেছে প্রায় সাড়ে চার বছর। ৯০০ কেজি উৎপাদিত চা থেকে মাত্র এক কেজি চা পাতা বাছাই করা হয়। বিশ্বের ৭৮টি রাজপরিবারকে চা পাতা সরবরাহ করে লন্ডন টি এক্সচেঞ্জ। এমনকি, ইংল্যান্ডের রানির পছন্দের চা-ও এখান থেকেই পৌঁছে যায় বার্কিমহাম প্যালেসে।

দা হং পাও

বিশ্বের অন্যতম দামি চা ‘দা হোং পাও’ চা। যার এক কাপ চায়ের দাম সাড়ে আট লাখ টাকা! একে বলা হয় সোনার চেয়েও দামি চা। কারণ এর এক গ্রামের দাম সোনার এক গ্রামের দামের থেকে ৩০ গুণ বেশি! চীনের ফুজিয়ান প্রদেশের উয়ি পর্বতে খুব বিরল জাতের এই চা উৎপন্ন হয়। তবে এই চায়ের এতো দামের পেছনে অন্যতম কারণ হলো সারা বিশ্বের মধ্যে একমাত্র চীনেই এই চায়ের ছয়টি গাছ রয়েছে। বিরল ও উৎকৃষ্ট মানের জন্য দা হোং পাও’কে চায়ের রাজা বলা হয়।  ২০০৬ সালে এই ছয়টি চা গাছের প্রায় ১১৭ কোটি টাকার বিমা করিয়েছে চীন সরকার। এক কেজি এই চায়ের দাম প্রায় ৯ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। তিনশো বছর ধরে চীনে এই চায়ের চাষ হচ্ছে। এই চায়ে রয়েছে স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী ক্যাফেইন, থিওফিলিন, পলিফেনলস এবং ফ্ল্যাবোনয়েড। প্রতিদিন এই চা খেলে ত্বক ভাল থাকে। মাটির পাত্রে বিশুদ্ধ পানিতে এই চা বানাতে হয়। সুগন্ধের জন্যও এই চায়ের রয়েছে আলাদা কদর। 

'স্বর্ণ পানাম' বা 'গ্লোডেন টি'

গোল্ডেন ড্রিংকস ‘স্বর্ণ পানাম’  একটি সম্পূর্ণ বিশুদ্ধ চা। ২৪ ক্যারেট ভোজ্য সোনার সূক্ষ্ম পাপড়ি দিয়ে এই বিশেষ চা-টি তৈরি করা হয়েছে। মধু চা ক্লোনের সঙ্গে অসমান কালো চায়ের সেরা কোমল পাতা থেকে তৈরি করা হয়েছে। এই বিশেষ চা তৈরি করেছেন অসমের মাস্টার চা নির্মাতা রঞ্জিত বড়ুয়া। অসমে চা ব্যবসায়ীদের মধ্যে অন্যতম ও জনপ্রিয়ও বটে। ইউরোপে চা বিক্রি করে যিনি লাইমলাইটে চলে আসেন। অসমের বিখ্যাত ও বিরল কালো চায়ে মধু, গুড় ও কোকো মিশিয়ে যিনি চা জগতে বেশ শোরগোল ফেলে দিয়েছিলেন। অসাধারণ স্বাদের এই চা সাধারণত চায়ের কোমল পাতা থেকে প্রস্তুত করা হয়েছে। মাত্র ১০০ গ্রাম স্বর্ণ পানাম চা একটি সাদা সোনার সিরামিক বোয়ামে পাওয়া যায়। তাতে কালো বাক্সে প্যাকেট করা, তাতে থাকে একটি ব্রোঞ্চের চামচ ও ডবল ওয়াল গ্লাস কাপ। বাক্সটির দাম প্রায় ২৫ হাজার টাকা। প্রতি কেজি এর দাম প্রায় আড়াই লাখ টাকা।

পিজি টিপস ডায়মন্ড-টি ব্যাগ

পিজি টিপস নামে ব্রিটিশ কোম্পানিটির নাম অনেকেই জানেন তাদের চায়ের স্বাদের ভিন্নতার জন্য। ২০০৫ সালে পিজি টিপসের দার্জিলিং চায়ের ডায়মন্ড-টি ব্যাগটি বাজারে আনা হয়। এই চায়ের প্যাকেট পেতে হলে আপনাকে খরচ করতে হবে ১৫ হাজার মার্কিন ডলার। বাংলাদেশি টাকায় যার মূল্য প্রায় ১২ লাখ টাকা। দুটো কারণে এই চায়ের এত বেশি দাম। প্রথমত, এটি এক ধরনের বিরল প্রজাতির সিলভার টিপস ইম্পেরিয়াল চা। দ্বিতীয়ত, প্রতিটি টি ব্যাগে রয়েছে ২৮০ টুকরো ২.৫৬ ক্যারেটের হীরে। যার পুরো কারুকার্য করেছে বিখ্যাত বুডলেস জুয়েলার্স।