ইটিএফ নিয়ে ডিএসই-ডন গ্লোবাল বৈঠক

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৮ জুন ২০২২, ২১:৩৬

দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে ইটিএফ চালুর বিষয়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেড এবং যুক্তরাজ্য ভিত্তিক ডন গ্লোবাল ম্যানেজমেন্টের মধ্যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার অনুষ্ঠিত বৈঠকে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ থেকে প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা- এম. সাইফুর রহমান মজুমদার, এফসিএ, এফসিএমএ, প্রধান নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা- খায়রুল বাশার আবু তাহের মোহাম্মদ, প্রোডাক্ট অ্যান্ড মার্কেট ডেভেলপমেন্ট ডিপার্টমেন্টের প্রধান এবং ডিজিএম- সাইয়িদ মাহমুদ জুবায়ের, সিনিয়র ম্যানেজার- সৈয়দ ফয়সাল আবদুল্লাহ এবং এক্সিকিউটিভ মুহাম্মদ সুহাইলুর রহমান এবং ডন গ্লোবাল ম্যানেজমেন্টের প্রতিষ্ঠাতা ও সিআইও জনাব মরিটস পট এবং রিভার স্টোন ক্যাপিটালের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব আশরাফ আহমেদ, ব্র্যাক-ইপিএল স্টক ব্রোকারেজ লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আহসানুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে ডিএসই’র কর্মকর্তাবৃন্দ ইটিএফ-এর বিষয়ে বিএসইসির দৃষ্টিভঙ্গি, বাংলাদেশে ইটিএফ চালু করার প্রক্রিয়া, তালিকাভুক্তির নিয়ম-কানুন এবং অন্যান্য প্রযুক্তিগত দিকগুলি সম্পর্কে আলোচনা করেন।

ডন গ্লোবাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড, ফন্টিয়ার মার্কেটে ইটিএফ প্রোডাক্ট লঞ্চিং এবং ম্যানেজমেন্টের ক্ষেত্রে একটি নেতৃস্থানীয় ফার্ম। কোম্পানিটি ডিএসইতে এক্সচেঞ্জ-ট্রেডেড ফান্ড (ইটিএফ) চালু করার জন্য প্রয়োজনীয় প্রযুক্তিগত রক্ষণাবেক্ষণ এবং জ্ঞান স্থানান্তরের প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

প্রোডাক্ট অ্যান্ড মার্কেট ডেভেলপমেন্ট হেড এবং ডিজিএম – সাইয়িদ মাহমুদ জুবায়ের বলেন, কিছু বাংলাদেশী সুপরিচিত সংস্থা ডিএস-৩০ সূচক ট্র্যাকিং করে ইটিএফ চালু করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। ডিএসই তার কাউন্টার পার্টকে সূচক গুণনা করার জন্য রিয়েল টাইম ডাটা এবং ইটিএফ চালু করার জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ করবো। পাশাপাশি তিনি ডন গ্লোবালকে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের স্বার্থে কম ব্যয়ের অনুপাতের ইটিএফ চালু করার জন্য অনুরোধ করেন।

ডিএসই’র প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা এম. সাইফুর রহমান মজুমদার বলেন, যে সকল প্রতিষ্ঠান ডিএসইতে ইটিএফ চালু করতে আগ্রহী সে সকল প্রতিষ্ঠানকে ডিএসই দ্রুত সেবা প্রদান করবে। যাতে তারা দ্রুত এক্সচেঞ্জে ইটিএফ চালু করতে পারে।

ইটিএফ হল এক ধরনের পুল করা বিনিয়োগ নিরাপত্তা যা অনেকটা মিউচুয়াল ফান্ডের মতো কাজ করে। সাধারণত, ইটিএফগুলি একটি নির্দিষ্ট সূচক, সেক্টর, কমোডিটি বা অন্যান্য সম্পদকে ট্র্যাক করবে কিন্তু মিউচুয়াল ফান্ডের বিপরীতে, একটি নিয়মিত স্টকের মতো ইটিএফগুলি একটি স্টক এক্সচেঞ্জে কেনা বা বিক্রি করা যেতে পারে।

(ঢাকাটাইমস/২৮জুন/এসকেএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

পুঁজিবাজার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

পুঁজিবাজার এর সর্বশেষ

এবি ব্যাংক মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৭ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা

এক্সিম ব্যাংক মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৭ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা

ট্রাস্ট ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৭ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা

রিলায়েন্স ওয়ান মিউচুয়াল ফান্ডের ১০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ইতিবাচক সিদ্ধান্তে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ বাড়ল

গ্রামীণ ওয়ান: স্কিম টু মিউচুয়াল ফান্ডের ১৫ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা

ফার্স্ট জনতা ব্যাংক মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৭ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা

ডিবিএইচ ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৭ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা

সিএপিএম আইবিবিএল মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৮ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা

সিএপিএম বিডিবিএল ফান্ডের ৮ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :