বিএসএমএমইউয়ে ‘আপডেট অফ ভাসকুলার সার্জারি বিষয়ক সেমিনার

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৮ আগস্ট ২০২২, ২২:২৭

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) রক্তনালী রোগের যুগান্তকারী চিকিৎসা বিষয়ক সর্বশেষ তথ্য নিয়ে ‘আপডেট অফ ভাসকুলার সার্জারি’ বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার দুপুর ১২টার দিকে বিএসএমএমইউর এ ব্লক অডিটোরিয়ামে ভাসকুলার বিভাগ এ সেমিনারের আয়োজন করে।

সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএসএমএমইউর উপাচার্য মো. শারফুদ্দিন আহমেদ।

সভাপতিত্ব করেন বিএসএমএমইউর ভাসকুলার সার্জারি বিভাগের চেয়ারম্যান মো. সাইফ উল্লাহ খান। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ভাসকুলার সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. রাকিবুল হাসান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ভাসকুলার সার্জারি বিভাগের রেসিডেন্ট শিক্ষার্থী ডা. সমরেশ চন্দ্র সাহা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন বিএসএমএমইউকে এমন ভাবে গড়ে তুলছে যাতে সব ধরণের আধুনিক চিকিৎসা এখানেই দেয়া সম্ভব হয় এবং রোগীদের চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যেতে না হয়। যেসকল বিষয়ে এর আগে খুব একটা উন্নতি হয়নি সেসকল বিষয়ের উন্নয়নে অধিক গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে প্ল্যাস্টিক সার্জারি, ভাসকুলার সার্জারি, থোরাসিক সার্জারি, ইনফার্টিলিটি ইত্যাদি। তিনি তাঁর বক্তব্যে ভাসকুলার সার্জারি বিভাগের সার্বিক উন্নয়নে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতিসহ সকল বিষয়ে সহায়তার আশ্বাস দেন।

বিএসএমএমইউর উপাচার্য বলেন, ভাসকুলার সার্জারি বিশেষজ্ঞ সংখ্যা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কার্যকরী উদ্যোগ নেওয়া হবে। তিনি আরো বলেন, চিকিৎসাসেবার সম্প্রসারণে স্থান বৃদ্ধির ক্ষেত্রেও কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। বর্তমান প্রশাসনের আমলে গবেষণাকে বিশেষভাবে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। গবেষণার জন্য সরকারের যে একশত কোটি টাকা বরাদ্দ রয়েছে সেখান থেকে চার ভাগের এক ভাগ অর্থা পঁচিশ শতাংশ তার মানে পচিশ কোটি টাকা বিএসএমএমইউর গবেষকরা পাবেন। এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য একটা বিরাট অর্জন।

সেমিনারে জানানো হয়, রক্তনালীর ব্লকের কারণে আর কেটে ফেলতে হবে না হাত, পা এবং আঙ্গুল। অপারেশন ছাড়াই চিকিৎসার মাধ্যমে রোগীদেরকে অঙ্গহানি থেকে রক্ষা করা সম্ভব হচ্ছে।

সেমিনারে জানানো হয়, রক্তনালীসমূহের রোগের কারণে মানুষের অঙ্গহানি এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। যে রোগীদের অপারেশন সম্ভব নয় বর্তমানে চিকিৎসার মাধ্যমে অপারেশন ছাড়াই তাদের অঙ্গ রক্ষা করা সম্ভব। রক্তনালীর ব্লকের কারণে পায়ের গ্যাংরিন হয়। স্টেমসেল থেরাপি ও প্রোস্টাগ্লান্ডিন থেরাপির মাধ্যমে নতুন রক্তনালী তৈরি করে বিনা অপারেশনে চিকিৎসা করে রোগীদের পঙ্গুত্ব বরণ করা থেকে মুক্ত রাখা সম্ভব হচ্ছে। ভ্যারিকোস ভেইন বা আঁকাবাঁকা শিরার চিকিৎসায় লেজার থেকে শুরু করে সব ধরণের আধুনিক চিকিৎসার সুযোগ রয়েছে এই বিভাগে। তাছাড়া আঁকাবাঁকা শিরা না কেটে আরএফএ এর মাধ্যমে চিকিৎসাসেবা প্রদান শীঘ্রই চালু হবে। এছাড়া রক্তনালী ব্লক, এনিউরিজম, ডিভিটি, টিউমার, ম্যালফরমেশন ইত্যাদি চিকিৎসাসেবা চালু আছে। কিডনী রোগীদের ডায়ালাইসিসের জন্য ফিস্টুলা নিয়মিতভাবে করা হচ্ছে। ভেনাসজনিত পায়ের আলসার ফোর লেয়ার ব্যান্ডেজ মাধ্যমে এই ক্ষত দূর করা সম্ভব হচ্ছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাসকুলার সার্জারি বিভাগের আধুনিক ডুপ্লেক্স স্ক্যান ল্যাবে প্রতিদিন গড়ে অন্তত ১০ জন রোগীর পরীক্ষা করা হচ্ছে। এছাড়াও বহির্বিভাগে ৫০-৬০ জন রোগী নিয়মিত চিকিৎসা সেবা নিচ্ছেন। ছাত্রদের নিয়মিত শিক্ষাদান ছাড়াও গত ২ বছরে ৬ জন পোস্ট গ্র্যাজুয়েট ভাসকুলার সার্জন তৈরি এই বিভাগটির সাফল্যের মধ্যে অন্যতম। দেশে একমাত্র বিএসএমএমইউতে চালু আছে ভাসকুলার সার্জারিতে বিশেষায়িত এম এস কোর্স। ভাসকুলার সার্জারি রোগীদের অপারেশন করার জন্য বিভাগটিতে আছে সুসজ্জিত ওটি। নানা সময়ে গাইনী ও সার্জারি বিভাগের বিভিন্ন অপারেশনেও ভাসকুলার সার্জনদের অংশগ্রহণ করতে হয়।

বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএসএমএমইউর উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) মো. জাহিদ হোসেন, উপ-উপাচার্য (একাডেমিক) একেএম মোশাররফ হোসেন, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) ছয়েফ উদ্দিন আহমদ, কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ আতিকুর রহমান।

ঢাকাটাইমস/০৮ আগস্ট/এএ

সংবাদটি শেয়ার করুন

স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :