বাংলাদেশে বিক্ষোভ নিয়ে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওটি ২০১৩ সালের: রয়টার্স

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৩ আগস্ট ২০২২, ১৬:৫৬ | প্রকাশিত : ১২ আগস্ট ২০২২, ১৭:৩২

সম্প্রতি টুইটারে ‘বাংলাদেশ...সরকার মধ্যরাত থেকে পেট্রোলের দাম ৫১ শতাংশ এবং ডিজেলের দাম ৪২ শতাংশ বৃদ্ধি করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরে বেশ কয়েকটি শহরে বিক্ষোভ এবং কঠোর সংঘর্ষ শুরু হয়েছে। সারা বাংলাদেশে পেট্রোল স্টেশনে বিশাল লাইনের খবর পাওয়া গেছে...’ বর্ণনা করে একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স ভিডিওটির সত্যতা যাচাই করে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ভিডিওটি ২০১৩ সালের, ২০২২ সালের নয়।

রয়টার্সের ফ্যাক্ট চেক প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশে আগস্টের জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদ নিয়ে আলোচনা করা সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীরা ভুলবশত ২০১৩ সালের অসংলগ্ন ফুটেজ শেয়ার করেছেন, আসলে এটি ২০২২ সালের।

সাত ৭ আগস্ট ওয়ালস্ট্রিট সিলভার নামের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে পোস্ট করা ভিডিওটিতে দেখানো হয়েছে, লোকজন রাস্তায় বিভিন্ন জিনিস পোড়াচ্ছে, বিস্ফোরক ছোড়া হচ্ছে এবং পুলিশরা তাদের দমন করতে কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করছে।

ভিডিওটিতে হাজার হাজার লাইক পড়েছে এবং শেয়ার হয়েছে।

ফেসবুকেও জয়দ্বীপ দত্ত নামের এক আইডি থেকে একই ক্যাপশন ব্যবহার করে ভিডিওটি শেয়ার করা হয়।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, বাংলাদেশ সরকার ৬ আগস্ট জ্বালানি তেলের দাম প্রায় ৫০ শতাংশ বাড়িয়েছে। এই পদক্ষেপটি দেশের ভর্তুকির বোঝা কমিয়ে দেবে কিন্তু মূল্যস্ফীতির ওপর আরও চাপ সৃষ্টি করবে। যেখানে দেশটির মূল্যস্ফীতি ইতিমধ্যেই ৭শতাংশের ওপরে চলে গেছে।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশটির ৪১৬ বিলিয়ন ডলারের অর্থনীতি বছরের পর বছর ধরে বিশ্বের অন্যতম দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতি। কিন্তু রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে ক্রমবর্ধমান জ্বালানি এবং খাদ্যের দাম দেশটির আমদানি ব্যয় স্ফীত করেছে, সরকারকে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলসহ বিশ্বব্যাপী সংস্থাগুলির কাছ থেকে ঋণ চাইতে বাধ্য করেছে। সম্প্রতি লিটার প্রতি পেট্রোলের দাম ৫১.২ শতাংশ বেড়ে ১৩০ টাকা, ৯৫-অকটেনের দাম ৫১.৭ শতাংশ বাড়িয়ে ১৩৫ টাকা এবং ডিজেল ও কেরোসিনের দাম ৪২.৫ শতাংশ বাড়িয়ে ১১৪ টাকা করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, তবে অনুসন্ধান করে দেখা গেছে ভিডিওটি ২০২২ সালের বিক্ষোভের সঙ্গে সম্পর্কিত নয়। ভিডিওটি মূলত ২০১৩ সালের ৬ মে হেফাজতে ইসলামের আন্দোলনের একটি চিত্র। সে সময় ধর্মীয় সংস্কারের দাবিতে পুলিশ এবং কট্টরপন্থী ইসলামপন্থীদের মধ্যে সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০ বাংলাদেশি নিহত হয়।

এই প্রতিবেদনটি রয়টার্সের ফ্যাক্ট চেক টিম অনুসন্ধান করে তৈরি করেছে।

(ঢাকাটাইমস/১২আগস্ট/এসএটি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :