পতাকা প্রস্তুত, অপেক্ষা শুধুই গেজেটের

জাফর আহমেদ, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৬ আগস্ট ২০২২, ১৮:১২ | প্রকাশিত : ১৬ আগস্ট ২০২২, ১০:২৬

গাড়িতে প্রস্তুত ফ্লাগ স্ট্যান্ড। কিনে রাখা আছে জাতীয় পতাকাও। কখন গাড়ির ফ্লাগ স্ট্যান্ডে লাগবে সেই পতাকা? ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটির দুই মেয়রও তাঁর শুভাকাঙ্ক্ষীরা এই অপক্ষায় যেমন আছেন। একইভাবে অপেক্ষার প্রহর গুণছেন চট্টগ্রাম ও নারায়ণগঞ্জের মেয়ররাও।

কখন প্রকাশিত হবে গেজেট? ঢাকার দুই মেয়র এবং চট্টগ্রাম ও নারায়ণগঞ্জের মেয়রের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী পদমর্যাদা দেওয়ার সরকারি সিদ্ধান্ত কোথায় আটকে আছে? প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত ব্যস্তবায়নে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ কেন ধীরগতি নিচ্ছে?

সময় যত গড়াচ্ছে এসব প্রশ্ন ততই সামনে চলে আসছে। সরকারের একাধিক সূত্র ঢাকা টাইমসকে জানাছে, মন্ত্রিপরিষদ পদ্ধতিগত ত্রুটির জন্যই ধীরে চলো নীতিতে এগোচ্ছে! কী হবে শেষমেষ?

ঢাকার দুই সিটি মেয়র আর চট্টগ্রাম ও নারায়ণগঞ্জের মেয়রকে মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদা দিতে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে প্রজ্ঞাপন জারির জন্য চিঠিও গেছে। তবে এক সপ্তাহ পার হলেও এখনো সেই প্রজ্ঞাপন জারি হয়নি।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রজ্ঞাপন জারি হলে এতদিনে ঢাকার দুই মেয়রের গাড়িতে মন্ত্রীর পদমর্যাদা অনুযায়ী পতাকা বহন করে চলার কথা। কিন্তু গেজেট প্রকাশ না হওয়ায় আটকে আছে সেই সুবিধা। পতাকা প্রস্তুত থাকলেও এখন অপেক্ষা শুধু গেজেটের।

গত ৭ আগস্ট ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপসকে মন্ত্রীর পদমর্যাদা দেয়ার কথা জানানো হয়।

পাশাপাশি চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াত আইভি পাচ্ছেন প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদা।

সেদিনই চার মেয়রের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে চিঠি পাঠানো হয় বলে জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক (নির্বাহী সেল) আল মামুন মুর্শেদ।

ওই চিঠিতে বলা হয়, চার মেয়রকে পদমর্যাদা দেওয়ার বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন করেছেন। বাকি আনুষ্ঠানিকতা সেরে গেজেট প্রকাশের জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে অনুরোধ করা হয়।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নির্দেশনা দেওয়ার পরও কেন এতদিন প্রজ্ঞাপন না হওয়ায় সচেতন মহলে নানা আলোচনা হচ্ছে। চার মেয়রের এ পদমর্যাদার বিষয়টি কোন জটিলতায় বিলম্ব হচ্ছে সেই প্রশ্ন আসছে।

সংবিধানের ৫৬(২) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী ও অন্যান্য মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীকে রাষ্ট্রপতি নিয়োগ দান করবেন।

মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী বা তাঁদের মর্যাদার কাকে নিয়োগ দেওয়া হবে, তা সম্পূর্ণ প্রধানমন্ত্রীর অভিপ্রায়ের বিষয়। প্রধানমন্ত্রীর অভিপ্রায় অনুযায়ীই রাষ্ট্রপতি অনুমোদন দেন। এটাই সাংবিধানিক রীতি। অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রীর অভিপ্রায়কে ব্যতিক্রম করার ক্ষমতা রাষ্ট্রপতিকে সংবিধান দেয়নি।

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপে জানা গেছে, এ সংক্রান্ত কাগজ রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে পৌঁছেছে এবং যেকোনো সময় গেজেট হতে পারে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা মকবুল হোসাইন ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন হয়ে গেছে। এখন মহামান্য রাষ্ট্রপতির অনুমোদন হলেই গেজেট প্রকাশিত হবে। আমরা আশা করছি দ্রুতই প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হবে।’

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন জনসংযোগ কর্মকর্তা আবু নাছের ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘এখনো পর্যন্ত প্রজ্ঞাপন জারি হয়নি। মহামান্য রাষ্ট্রপতি অনুমোদন দিলেই প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে। খুব তাড়াতাড়ি হয়ে যাবে।’

গাড়িতে কোন সাইজের পতাকা ব্যবহার ও কারা ব্যবহার করতে পারবেন:

বাংলাদেশে ১০টি মর্যাদাসম্পন্ন পদে অধিষ্ঠিত ব্যক্তিরা গাড়ি বা জলযানে জাতীয় পতাকা ব্যবহার করতে পারেন। মর্যাদাসম্পন্ন পদগুলো হচ্ছে—রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, প্রধান বিচারপতি, মন্ত্রী, বিরোধীদলীয় নেতা, চিফ হুইপ, ডেপুটি স্পিকার, মন্ত্রীর মর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তি, এবং বিদেশে বাংলাদেশের কূটনীতিক। মোটরগাড়িতে ব্যবহারের জন্য সেই পতাকার মাপ হলো—টেবিল: ১৫ ইঞ্চি*৯ ইঞ্চি।

(ঢাকাটাইমস/১৬আগস্ট/ডিএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :