‘ট্রাফিক পুলিশের স্যাররা আম খাবি, তাই কয়ডা চাইল’

সিরাজুম সালেকীন, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ০৭ জুন ২০২৩, ১৪:৫৩ | প্রকাশিত : ০৭ জুন ২০২৩, ১৪:০৭

সকাল ১০টা ৩৬ মিনিট। রাজধানীর খামারবাড়ি গোল চত্বরের ট্রাফিক সিগন্যালে এসে দাঁড়াল বেশকিছু যানবাহন। এক মিনিট পরেই ট্রাফিক পুলিশ সদস্যের ইশারায় গাড়ি চলা শুরু হলো। কিন্তু নীল রঙের একটি মিনি ট্রাক রাস্তার মাঝখানে দাঁড়িয়ে থাকল। মাল ত্রিপল দিয়ে ঢাকা। এর আগে কেউ একজন চালকের কাছে এসে ফিসফিস করে কী যেন বললেন। কয়েক সেকেন্ড থেমে থাকার পর চালকের আসন থেকে অ্যাশ কালারের শার্ট ও লুঙ্গিপরা একজন নিচে নেমে পড়লেন। এরপর ট্রাকের ওপর (ছাদে) ওঠার চেষ্টা করলেন। কিন্তু দূর থেকে কারও ইশারায় তিনি চালকের আসনে এসে বসলেন। কয়েক গজ এগিয়ে এসে ট্রাকটি খামারবাড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মূল ফটকের আগে থামল।

এরপর সাদা স্যান্ডো গেঞ্জি ও লুঙ্গিপরা একজন চালকের দরজার পাশ দিয়ে ট্রাকের ওপরে উঠলেন। এরপর ট্রাকের ডান পাশের ত্রিপল সরিয়ে প্লাস্টিকের ঝুড়ি থেকে আম বের করতে থাকলেন। তখন বোঝা গেল এটি আম বহনকারী ট্রাক। ট্রাকের ওপরে থাকা ব্যক্তিটি আমগুলো চালকের আসনে বসে থাকা ব্যক্তিকে দিতে থাকলেন। তিনি সেগুলো তার আসনে রাখতে থাকলেন। এরপর পুরাতন একটি কাপড়ে মুড়িয়ে হাঁটা শুরু করলেন। ততক্ষণে ট্রাকের ওপরে থাকা সাদা স্যান্ডো গেঞ্জি ও লুঙ্গিপরা ব্যক্তি ট্রাকের ত্রিপল ঠিকঠাক করে নিচে নেমে এলেন।

এদিকে আম হাতে থাকা ব্যক্তি কিছুদূর এগিয়ে যাওয়ার পর একটি ট্রাফিক পুলিশের বক্সে প্রবেশ করলেন। বক্সটি লাল সাদা রঙের। দূর থেকে বোঝা গেল একজন পুলিশ সদস্য চেয়ারে বসে আমগুলো বুঝে নিচ্ছেন। তবে আমগুলো তার পছন্দ হচ্ছে না। তার চেহারায় একটু বিরক্তির ছাপ।

প্রায় ৩০ সেকেন্ড পর আম হাতে বক্সের ভিতরে যাওয়া ব্যক্তি কিছু একটা বলতে বলতে সেখান থেকে খালি হাতে বেরিয়ে এলেন। বোঝা গেল আমগুলো বক্সে দিয়ে এসেছেন, তবে পরিমাণে কম হওয়ায় ভিতরে থাকা ব্যক্তিদের পছন্দ হয়নি। এরপরই তিনজন পুলিশ সদস্য (দুইজন কনস্টেবল, একজন সার্জেন্ট) বক্সের সামনে দাঁড়িয়ে থাকলেন। দূর থেকে কৌশলে তাদের নেমপ্লেট দেখার চেষ্টা করেও পারা যায়নি। তাদের দুইজন নেমপ্লেট খুলে রেখেছেন। কেবল দেখা যাচ্ছিল একজনের নাম। তবে সেটা অস্পষ্ট। এতটুকুই। আর কোনো পরিচয় জানার সুযোগ ছিল না।

এদিকে যিনি আমগুলো দিয়ে পুলিশ বক্সের বাইরে এলেন তিনি পুনরায় তার সঙ্গে থাকা ব্যক্তিকে (স্যান্ডো গেঞ্জি ও লুঙ্গিপরা ব্যক্তি) বললেন, ‘আবার ওপরে ওঠো। আরও দেও।’

আরও পড়ুন>>খাদ্যে পুষ্টি ও নিরাপত্তার জ্ঞান অর্জনে বছরে বাঁচবে ৩৫ হাজার কোটি, সমস্যা শনাক্তের তাগিদ খাদ্য সচিবের

ঠিক আগের মতোই ট্রাকের ওপরে উঠে ত্রিপল সরিয়ে আম চালকের হাতে দিতে থাকলেন। এসময় ঢাকা টাইমসের প্রতিবেদক ট্রাকের (ঢাকা মেট্রো-ন ১৩-২৪৪৯) কাছে যান। পরিচয় গোপনে রেখে কথা হয় চালকের সঙ্গে। তার নাম ওয়াহিদুজ্জামান। জানান, গতকাল ট্রাকে আম বোঝাই করে রংপুর থেকে রওনা হয়েছেন। গন্তব্য কারওয়ান বাজার।

পথে সাত ঘণ্টার জ্যামে পড়েছিলেন জানিয়ে ওয়াহিদ বলেন, ‘পথে এক্সিডেন্ট হইছিল। এজন্যি ঢাকায় ঢুকতি দেরি হইছে। নাই আরও সকালে ঢুকতাম।’ হঠাৎ ট্রাক থামিয়ে আম বের করার কারণ জানতে চাওয়া হলে বলেন, ‘স্যাররা সিগন্যাল দিল। আম খাবি। তাই কয়ডা চাইল। দিলাম আটটা। কিন্তু কইলো এতো কম ক্যাঁ? গাড়ির কাগজপত্র নিয়াই, দেখবো। আবার কয়ডা আম পাড়তিছি দিবার জন্যি।’

রাস্তায় কোথাও এমন হয়েছে কি না জানতে চাইলে বলেন, ‘না। এখানে স্যার সিগন্যাল দিল। তাই থামিছি।’

‘স্যার খাড়ান, আম দিয়ে আসতিছি’- এই বলে ওয়াহিদুজ্জামান পুলিশ বক্সের পথে রওনা হলেন। কিছু সময় পর ফিরে এসে তিনি আবার কারওয়ান বাজারের পথে রওনা হলেন।

(ঢাকাটাইমস/০৭জুন/এসএস/এফএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজধানী বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :