গাইবান্ধায় নাতিন জামাইয়ের ছুরিকাঘাতে নানা শ্বশুরের মৃত্যু

প্রকাশ | ২৯ ডিসেম্বর ২০২৩, ১০:০০

গাইবান্ধা প্রতিনিধি, ঢাকা টাইমস

গাইবান্ধা সদরে নাতিন জামাইয়ের ধারালো ছুরিকাঘাতে নানা শ্বশুরের মৃত্যু হয়েছে। ঘটনার পর থেকেই পলাতক রয়েছেন অভিযুক্ত আমির হামজা। 

শুক্রবার সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাসুদ রানা।

এর আগে বৃহস্পতিবার সন্ধার দিকে উপজেলার বোয়ালি ইউনিয়নের পুলবন্দি বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ময়জাল মিয়া (৭০) বোয়ালি ইউনিয়নের উত্তর ফলিয়া গ্রামের মৃত রিয়াজ উদ্দিনের ছেলে। অভিযুক্ত আমির হামজা (৩৬) একই গ্রামের আশরাফুলের ইমলামের জামাই। স্ত্রীকে নিয়ে বিয়ের পর থেকেই শ্বশুর বাড়িতে থাকতেন তিনি। 

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, সন্ধ্যার দিকে পুলবন্দি বাজারের একটি দোকানের কর্মচারী মুরাদ মিয়াকে মারধর করেন আমির হামজা। খবর পেয়ে মুরাদের বাবা আব্দুল আজিজ ও দাদা ময়জাল হক বাজারে আসেন। এ সময় আমির হামজা তাদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। একপর্যায়ে আমির হামজা তার পকেটে থাকা ধারালো ছুরি দিয়ে ময়জাল হকের বুক ও পেটে আঘাত করে। এতে গুরুত্বর আহত ময়জালকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান তিনি।

স্বজনদের অভিযোগ, আমির হামজা পকেটে থাকা ছুরি দিয়ে উপর্যুপরি আঘাতে ময়জাল হকের মৃত্যু হয়েছে। দাদন ব্যবসায় জড়িত আমির হামজা দীর্ঘদিন ধরেই নানা অপকর্মসহ লোকজনকে মারধর করে আসছিলো। কিছুদিন আগেও আমির হামজা মুরাদের বড় ভাই মাসুদকে ধারালো ছুরি নিয়ে ধাওয়া করে। ঘটনাটি থানা পুলিশকে জানিয়েও প্রতিকার মেলেনি। 

গাইবান্ধা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাসুদ রানা জানান, ছুরিকাঘাতে মফিজল হকের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় তার পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার প্রক্রিয়া চলছে। অভিযুক্ত আমির হামজাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

(ঢাকাটাইমস/২৯ডিসেম্বর/প্রতিনিধি/জেডএম)