পাকিস্তানের প্রথম নারী মুখ্যমন্ত্রী কে এই মরিয়ম?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৭:৪০ | প্রকাশিত : ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫:০০
মরিয়ম নওয়াজ শরিফ

পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন মরিয়ম নওয়াজ শরিফ। শুধু পাঞ্জাব নয়, পাকিস্তান দেশ হিসাবে স্বীকৃতি পাওয়ার পর মরিয়মই প্রথম নারী, যিনি দেশটির কোন প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী পদে অধিষ্ঠিত হলেন। তিনি পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের মেয়ে এবং নওয়াজের দল পিএমএল-এনের সহ-সভাপতি।

সোমবার মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিয়ে মরিয়ম নওয়াজ বলেন, তার নিয়োগ দেশের প্রতিটি নারীর জন্য সম্মানের। ভবিষ্যতে নারী নেতৃত্বের ঐতিহ্য অব্যাহত থাকবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি। কর্মসংস্থান, শিক্ষা এবং স্বাস্থ্যসেবা তার সরকারের প্রধান লক্ষ্য হবে বলেও জানিয়েছেন মরিয়ম নওয়াজ।

মরিয়ম আরও বলেন, তিনি তার রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বীদের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নিতে চান না। যারা তাকে এবং তার বাবা নওয়াজ শরিফসহ তার পরিবারের সদস্যদের কারাগারে পাঠিয়েছিলেন, তাদের বিরুদ্ধেও কোন ব্যবস্থা নেবেন না।

কারাবন্দি সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সরকারের দুর্নীতির মামলায় শরিফ পরিবারের সদস্যদের কারাগারে পাঠানোর কথা উল্লেখ করেন মরিয়ম।

এরআগে গত শুক্রবার পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশে নবনির্বাচিত এমপিদের শপথ গ্রহণের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সরকার গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হয়।

প্রসঙ্গত, ৮ ফেব্রুয়ারি জাতীয় পরিষদের পাশাপাশি পাকিস্তানের ৫টি প্রাদেশিক পরিষদেও ভোট হয়েছিল। এই ৫টি প্রদেশের পাকিস্তানের সবচেয়ে জনবহুল প্রদেশ পাঞ্জাবেই প্রথম অধিবেশন আহ্বান করা হলো।

পাঞ্জাব বিধানসভার মোট ৩৭১টি আসনের মধ্যে ২৯৭টি সাধারণ আসন, ৬৬টি মহিলাদের জন্য সংরক্ষিত এবং ৮টি সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জন্য নির্ধারিত রয়েছে। আর সরকার গঠনের জন্য যেকোন দল বা জোটের প্রয়োজন ১৮৬ আসনের। গত ৮ ফেব্রুয়ারি নিবার্চনে পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) পায় ১৩৭টি আসন এবং ১৩৮ আসনে জিতে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রাথীরা। তবে অনান্য দল গুলোর সঙ্গে জোট করে সরকার গঠনের জন্য এগিয়ে যায় পিএমএল-এন এবং দলটির পক্ষ থেকে মূখ্যমন্ত্রী পদের জন্য মনোনয়ন দেওয়া হয় মরিয়ম নওয়াজকে।

উল্লেখ্য, মরিয়মের জন্ম লাহোরে ১৯৭৩ সালের ২৮শে অক্টোবর; তিনি বিদ্যালয় জীবন কাটান লাহোরের নামকরা স্কুল 'কনভেন্ট অব জেসাস এন্ড ম্যারি স্কুলে। চিকিৎসক হতে চাইতেন মরিয়ম তাই তিনি লাহোরের কিং এডওয়ার্ড মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হয়েছিলেন কিন্তু ওখানে তার মন টেকেনি; পড়াশোনা ছেড়ে দিয়েছিলেন তিনি।

১৯৯২ সালে মরিয়মের বয়স যখন ১৯ তখন তার পিতা নওয়াজ শরিফ তাকে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন সফদর আওয়ানের সঙ্গে বিয়ে দেন, বিয়ের পরে সফদর সামরিক চাকরি ছেড়ে দিয়েছিলেন। এই দম্পতির দুই কন্যা এবং এক ছেলে সন্তান আছে।

২০১২ সালে মরিয়ম তার বাবার দল পাকিস্তান মুসলিম লীগ (এন)-এ যোগদান করেন এবং ২০১৩ সালের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনে তার বাবা নওয়াজ শরীফের পক্ষে প্রচারণা চালিয়েছিলেন মরিয়ম।

(ঢাকাটাইমস/২৭ফেব্রুয়ারি/এমআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :