যে প্রক্রিয়ায় মুক্তি পেল জিম্মি জাহাজ এমভি আব্দুল্লাহ

ঢাকা টাইস ডেস্ক
 | প্রকাশিত : ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৩২

ভারত মহাসাগরে জলদস্যুদের কবলে পড়ে এমভি আবদুল্লাহ। জাহাজটি জিম্মি করার পর সোমালিয়ার গদভজিরান জেলার জেফল উপকূলের কাছে নিয়ে যায় দস্যুরা। ৯ দিনের মাথায় দস্যুরা প্রথম মুক্তিপণের দাবি জানায়। প্রায় দুই সপ্তাহ দর কষাকষির পর মুক্তিপণের অঙ্ক চূড়ান্ত হয়। এরপর জলদস্যুদের সঙ্গে চূড়ান্ত সমঝোতার পর সোমালিয়ার সময় শনিবার দিবাগত রাত ১২টা ৮ মিনিটে (বাংলাদেশ সময় শনিবার দিবাগত রাত ৩টা ৮ মিনিট) জাহাজটি থেকে দস্যুরা নেমে যায়। এতে ৩২ দিন পর জিম্মি জাহাজ ও নাবিকরা মুক্তি পায়। জলদস্যুদের কবলে পড়ার পর আলোচনার মাধ্যমে জাহাজ ও নাবিকদের মুক্ত করার চেষ্টার কথা জানিয়েছিল জাহাজটির মালিক কর্তৃপক্ষ। পরে বিভিন্ন সময় আলোচনায় অগ্রগতির কথাও জানানো হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত আলোচনায় মুক্তিপণের পরিমাণ চূড়ান্ত হওয়ার পর শনিবার রাতে মুক্তি পেল জাহাজ ও এর ক্রুরা।

কেএসআরএম গ্রুপের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার জাহান রাহাত মুক্তিপণে নাবিকদের মুক্ত করে আনার বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে জানিয়েছেন। তবে তিনি সেখানে মুক্তিপণের অর্থের কোনো অংক উল্লেখ করেননি। সোমালিয়ার স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম বলছে, লেনদেন হওয়া মুক্তিপণের পরিমাণ ৫ মিলিয়ন ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ৫৫ কোটি টাকা। সেখানকার পান্টল্যান্ড মিরর নামের সংবাদ মাধ্যম ডলারের এই অঙ্ক উল্লেখ করেছে।”

জাহাজটির মালিক প্রতিষ্ঠান কেএসআরএম গ্রুপের মিডিয়া অ্যাডভাইজার মিজানুল ইসলাম বলেন, “মুক্তিপণের অর্থ পাওয়ার পর তারা আরও কিছুক্ষণ ছিল জাহাজে। রাত ১২টায় (সোমালিয়ার সময়) জাহাজটি মুক্ত হওয়ার পর দুবাইয়ের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছে। ৫/৬ দিন পর এটি দুবাইয়ের বন্দরে পৌঁছাবে।”

জানা গেছে, মালিক পক্ষের সঙ্গে আলোচনার পর মুক্তিপণের জন্য নির্ধারিত ডলারভর্তি ব্যাগ ছোট উড়োজাহাজ থেকে দস্যুদের নিয়ন্ত্রণে থাকা এমভি আব্দুল্লাহ জাহাজটির আশপাশে স্পিডবোটে অপেক্ষারত দস্যুদের লক্ষ্য করে ছোঁড়া হয়। যদিও মিজানুল ইসলাম বলেছেন, দস্যুদের মুক্তিপণের অর্থ দেয়া হয়েছে হেলিকপ্টার থেকে। ডলারভর্তি ব্যাগ পাওয়ার কয়েক ঘণ্টা পর জাহাজে অবস্থানরত দস্যুরা জাহাজ ছেড়ে চলে যায়। এরপর জাহাজটি সংযুক্ত আরব আমিরাতের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। বিবিসি বাংলা

(ঢাকাটাইমস/১৪এপ্রিল/টিআই/এফএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :