সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এবি পার্টির আহ্বায়ক 

আওয়ামী সরকার দেশকে দেউলিয়া করতে বেপরোয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ১৪ জুন ২০২৪, ০৮:৩৮

দেশকে দেউলিয়া করতে আওয়ামী সরকার বেপরোয়া লুটপাটনীতি চালাচ্ছে এবং তা অব্যাহত রাখার পরিকল্পনা নিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আমার বাংলাদেশ পার্টির (এবি পার্টি) আহ্বায়ক এএফএম সোলায়মান চৌধুরী।

বৃহস্পতিবার রাতে বিজয়নগরে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এবি পার্টিতে যোগ দেয়া কয়েকজন অবসরপ্রাপ্ত সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তার সম্মানে আয়োজিত এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়। লে. কর্নেল (অব.) দিদারুল আলম, লে. কর্নেল (অব.) হেলাল উদ্দিন ও অবসরপ্রাপ্ত যুগ্মসচিব এম.এম সুলতান মাহমুদ সম্প্রতি এবি পার্টিতে যোগদান করেন। তাদের যোগদানোত্তর সংবর্ধনার আয়োজন করে দলটি।

দলের আহ্বায়ক এএফএম সোলায়মান চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সদস্যসচিব মজিবুর রহমান মঞ্জুর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা সভায় নবাগতদের স্বাগত জানিয়ে বক্তব্য রাখেন এবি পার্টির যুগ্ম আহ্বায়ক অধ্যাপক ডা. মেজর (অব.) আব্দুল ওহাব মিনার, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট তাজুল ইসলাম, বিএম নাজমুল হক ও সংগঠনের যুগ্ম সদস্যসচিব ব্যারিস্টার আসাদুজ্জামান ফুয়াদ। এসময় কেন্দ্রীয় নেতারা যোগদানকৃতদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেন।

যোগদান করা নেতাদের স্বাগত জানিয়ে পার্টির আহ্বায়ক সোলায়মান চৌধুরী বলেন, “সরকারের দুর্নীতি ও দুঃশাসনের কারণে দেশের সব প্রতিষ্ঠান আজ অকার্যকর হয়ে পড়েছে। পুলিশ, সেনাবাহিনী ও প্রশাসনের বিরাট একটা অংশ এই অনৈতিক কর্মযজ্ঞে জড়িয়ে পড়েছে। প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীদের মধ্যে যারা সৎ, নিষ্ঠাবান ও দেশপ্রেমিক তারা বঞ্চিত, অবহেলিত ও অপমানিত হয়ে নিরুৎসাহ বোধ করছেন।”

দেশের ভবিষ্যৎ ক্রমশ গভীর অন্ধকারে ঢেকে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “দেশকে দেউলিয়া করতে আওয়ামী সরকার বেপরোয়া লুটপাটনীতি চালাচ্ছে এবং তা অব্যাহত রাখার জন্য আরও নির্লজ্জ পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।”

সাবেক সেনা ও প্রশাসনের কর্মকর্তাদের এবি পার্টিতে যোগদানের জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, “সততা ও অভিজ্ঞতার গতিশীলতা দিয়ে রাজনীতি পুনর্গঠন করতে পারলে দেশকে মেরামত করা সম্ভব।”

নবাগতরা সেই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করবেন বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। মেজর (অব.) মিনার বলেন, “ডামি প্রহসনমূলক সংসদ নির্বাচনের পর উপজেলা নির্বাচনও জনগণ প্রত্যাখ্যান করে এই সরকারকে চূড়ান্ত বার্তা জানিয়ে দিয়েছে। কোনো বিবেকবান নাগরিক এই সরকারকে নৈতিকভাবে সমর্থন জানাতে পারে না।”

তিনি বলেন, “সেনাবাহিনীর কর্মকর্তারা হচ্ছেন দেশ ও বিদেশে প্রশিক্ষিত শারীরিক ও মানসিকভাবে সর্বাধিক সক্ষম নেতা যারা দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে এই জাতিকে নেতৃত্ব দিতে পারবেন। অবসরপ্রাপ্ত সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের কাছ থেকে দেশ আজ এই ক্রান্তিলগ্নে অনেক কিছু প্রত্যাশা করে।”

তিনি নবাগত নেতাদের দলে স্বাগত জানান।

অ্যাডভোকেট তাজুল ইসলাম বলেন, “নতুন দল তৈরি করতে গিয়ে নানা মানুষের নানা কথা আমরা শুনেছি। বাংলাদেশের প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার হাতছানি থাকার পরও এবি পার্টির এই কঠিন সংগ্রামে অংশ নেওয়ার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সেটা আমাদের জন্য বিরাট আশার ব্যাপার। আমরা তাদের স্বাগত জানাই। আশা করি নবাগত ভাইয়েরা আমাদের সংগ্রামকে বিজয়ের লক্ষ্য পর্যন্ত এগিয়ে নিয়ে যাবেন।”

লে. কর্নেল (অব.) দিদারুল আলম, লে. কর্নেল (অব.) হেলাল উদ্দিন ও সরকারের অবসরপ্রাপ্ত যুগ্মসচিব এম.এম সুলতান মাহমুদ সংবর্ধনার জবাবে এবি পার্টি নেতাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। তারা দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব ও মুক্তিযুদ্ধের মহান অঙ্গীকার সমুন্নত করার লক্ষ্যে নিয়মতান্ত্রিক রাজনৈতিক সংগ্রামের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। বাংলাদেশকে একটি সুখী সমৃদ্ধশালী রাষ্ট্রে পরিণত করার লক্ষ্যে দেশপ্রেমিক সাহসী জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করার জন্য তারা দৃঢ়ভাবে কাজ করে যাওয়ার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন এবি পার্টির যুগ্ম সদস্যসচিব ব্যারিস্টার আসাদুজ্জামান ফুয়াদ, ব্যারিস্টার যোবায়ের আহমেদ ভুইয়া, দফতর সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন রানা, প্রচার সম্পাদক আনোয়ার সাদাত টুটুল, সিনিয়র সহকারী সদস্যসচিব এবিএম খালিদ হাসান, অর্থ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক আলতাফ হোসাইন, সহকারী সদস্যসচিব শাহ আব্দুর রহমান, এম আমজাদ খান, মাসুদ জমাদ্দার রানা, যুবপার্টির আহ্বায়ক শাহাদাতুল্লাহ টুটুল, মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম আহ্বায়ক গাজী নাসির, উত্তরের সদস্যসচিব সেলিম খান প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/১৪জুন/জেবি/এফএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

রাজনীতি এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :