কিমের সঙ্গে দ্বিতীয় বৈঠকের ব্যাপারে আশাবাদী ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ২১ জানুয়ারি ২০১৯, ১১:২১

সম্প্রতি উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনের সঙ্গে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দ্বিতীয় বৈঠকের বিয়ষটি নিশ্চিত করেছে হোয়াইট হাউস। এরপর এক টুইটবার্তায় এ বৈঠকের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তবে বৈঠকের সময় ও স্থান সম্পর্কে এখনো কিছু জানায়নি যুক্তরাষ্ট্র।

শনিবার হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে জানানো হয় যে, ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে কিমের সঙ্গে দ্বিতীয়বারের মতো বৈঠকে বসবেন ট্রাম্প। তবে কবে কোথায় এটি হবে তা পরে জানানো হবে বলেও জানায় হোয়াইট হাউস। এর একদিন পর টুইটবার্তায় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন,  পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের ক্ষেত্রে উত্তর কোরীয় নেতার সঙ্গে প্রথম সাক্ষাৎ ছিল অত্যন্ত সদর্থক৷ দেখতে হবে ওবামা প্রশাসনের সময়ের নিরিখে৷ উভয় দেশের সম্পর্ক কোথায় ছিল, এখন কোথায় রয়েছে৷

চীরশত্রু দুই দেশের শীর্ষ বৈঠক আবারো আলোচনার জন্ম দিয়েছে। এই বৈঠকের বিরোধীতা করেছেন  বিরোধীদল ডেমোক্র্যাটস। তারা এই বৈঠককে লোক দেখানো আখ্যা দিয়ে বলেছে,  প্রথম বৈঠকে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের যে প্রতিশ্রুতি উত্তর কোরিয়া দিয়েছিল তা পালন করা হয়নি৷ এবিষয়ে সব জেনেও নীরব ট্রাম্প প্রশাসন৷ এর মাঝেই দ্বিতীয় সাক্ষাতের সময় নির্দিষ্ট করা হয়েছে৷ ফের এক লোক দেখানো নিজেদের প্রচার সর্বস্ব বৈঠক করে কী লাভ?

এছাড়া ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে দেশটিতে ফেডারেল সরকারের অচলাবস্থার কারণে এমনিতেই কোণঠাসা অবস্থায় রয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেই অবস্থার কোনো সমাধান না করে কিমের সঙ্গে দ্বিতীয় বৈঠকের তোড়জোড় নিয়েও ট্রাম্পের সমালোচনায় মুখর বিরোধীরা।

তবে এসব সমালোচনা আমলে নিচ্ছেন না প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তিনি উত্তর কোরিয়াকে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের দিকে নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদি। তবে নিজেদের পরমাণু নিরস্ত্রীকরণসহ দেশের কোনো ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের  দাদাগিরি মানা হবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে উত্তর কোরিয়া।

উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উন ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যে কয়েকবছর ধরে বাকবিতণ্ডা চলার পর গত বছরের জুনে এক টেবিলে বসেন দুজন। সেখানে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের ঘোষণা দেয় উত্তর কোরিয়া। এরপরই দেশটির সবচেয়ে বড় পরমাণু পরীক্ষাকেন্দ্র পুঙ্গেরি ধ্বংস করে উত্তর কোরিয়া। এরপর তারা আর কোনো বড় ধরনের পরীক্ষা চালায়নি। তারপরও উত্তর কোরিয়ার ওপর থেকে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা না তোলায় আবারো যু্ক্তরাষ্ট্রের সমালোচানায় মুখর হন কিম। পাল্টা জবাব দেন ট্রাম্প।

একদিকে দুই দেশের সম্পর্কোন্নয়নে শীর্ষ কর্মকর্তাদের মধ্যে বৈঠক অন্যদিকে দুই রাষ্ট্রপ্রধানের তর্কবিতর্ক অব্যাহত রয়েছে। এরই মধ্যে বেশকিছুদিন ধরে দুই নেতার দ্বিতীয় বৈঠকের কথা শোনা যাচ্ছিল। অবেশেষে সেই বৈঠকের বিষয়ে নিশ্চিত করে হোয়াইট হাউস।

ঢাকা টাইমস/২১জানুয়ারি/একে

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :