সামাজিক ব্যবসায় এগিয়ে বাংলাদেশের নারীরা

ঢাকাটাইমস ডেস্ক
 | প্রকাশিত : ১০ অক্টোবর ২০১৬, ২২:৩৬
ফাইল ছবি

বাংলাদেশে সাধারণ ব্যবসায় নারী নেতৃত্ব পাঁচ শতাংশ হলেও সামাজিক ব্যবসার ২০ শতাংশের নেতৃত্ব রয়েছে নারীদের হাতে৷ এখানে যে কর্মশক্তি রয়েছে তার ৪১ শতাংশই নারী৷ ব্রিটিশ কাউন্সিলের এক গবেষণা প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে এসেছে৷ খবর ডিডব্লিউর

গবেষণায় বলা হয়েছে, বর্তমানে বাংলাদেশে এক লাখ ৫০ হাজার সামাজিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে৷ এ খাতের সুবিধা ভোগ করছেন দুই লাখ সাত হাজার মানুষ৷ শিক্ষা খাতে সামাজিক ব্যবসায় সবচেয়ে বেশি সম্প্রসারিত হয়েছে৷ তবে এ খাতে লিঙ্গ বৈষম্য রয়েছে৷ জরিপ অনুযায়ী, দেশের ৭৯ শতাংশ সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজের নিবন্ধন ২০০৯ সালের মধ্যে এবং বেশির ভাগ নেতৃত্বদানকারীর বয়স ৩৫ বছরের কম৷ এ খাতের সম্প্রসারণে সবচেয়ে বড় প্রতিন্ধকতা প্রযুক্তিগত দক্ষতার অভাব ৷

ওভারসিজ ডেভেলপমেন্ট ইন্সটিউটের নেতৃত্বে বেটার স্টোরিজ, ইউএন লিমিটেড ও সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজ ইউকে'র সহায়তায় ব্রিটিশ কাউন্সিল ‘দ্য স্টেট অব সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজ ইন বাংলাদেশ' এবং ‘সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজ পলিসি ল্যান্ডস্কেপ ইন বাংলাদেশ' নামে এ গবেষণা পরিচালনা করেছে৷ ওই দুই প্রতিবেদন অনুযায়ী সাধারণ ব্যবসার ক্ষেত্রে ৫ শতাংশ নারী নেতৃত্ব থাকলেও সামাজিক ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে নারীরা ২০ ভাগ প্রতিষ্ঠানের নেতৃত্ব দিয়ে থাকেন৷ সামাজিক ব্যবসায়ের কর্মশক্তির ৪১ শতাংশই নারী, যা অন্যান্য সাধারণ প্রতিষ্ঠানে নারীর অংশগ্রহণের প্রায় তিনগুণ৷

বাংলাদেশের একটি সামাজিক প্রতিষ্ঠানের বার্ষিক গড় আয় ২১ লাখ টাকা৷ আগামী বছর তা আরও এক-তৃতীয়াংশ বাড়বে৷ বাংলাদেশে সামাজিক ব্যবসা খাতটির উন্নয়ন ঘটছে৷ দেশের মোট সামাজিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে অর্ধেকের বয়স কমবেশি ছয় বছর৷ এসব প্রতিষ্ঠান সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে সুবিধাবঞ্চিত ব্যক্তিদের নতুন কর্মসংস্থান তৈরিতে কাজ করে৷

সামাজিক ব্যবসা হলো এমন এক ধরনের ব্যবসা, যেখানে সামাজিক উদ্দেশ্য এবং ফের বিনিয়োগের ওপর বেশি জোর দেয়া হয়৷ মালিক ও অংশীদাররা এজন্য শুধু মুনাফা বাড়ানোর দিকে গুরুত্ব না দিয়ে সামাজিক কর্মকাণ্ডের ওপর গুরুত্ব দেন৷ কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধী, অবহেলিতদের গুরুত্ব দেয়া হয়৷ নারীর ক্ষমতায়ন, সামাজিক বৈষম্য দূর করাসহ সমাজের ছোট-বড় সমস্যা নিয়ে কাজ করেন তারা৷

রবিবার এই জরিপের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে ব্রিটিশ কাউন্সিলের বাংলাদেশ পরিচালক বারবারা উইকহ্যাম বলেন, সামাজিক ব্যবসার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ বিশ্বে পথিকৃৎ৷ এ নিয়ে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস)-র অর্থনীতিবিদ ড. নাজনীন আহমেদ বলেন, ‘‘সামাজিক ব্যবসা একটি কাঠামোগত ব্যবসা৷ এর জন্য গ্রামীণ ব্যাংকসহ আরো কিছু প্রতিষ্ঠান ঋণের পাশাপাশি প্রশিক্ষণও দেয়৷ এই ব্যবসাটি করতে স্বচ্ছ ধারণা নিয়েই নারীরা মাঠে নামেন৷ ফলে তারা সফল হচ্ছেন৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘এই ব্যবসার উদ্যোক্তা লাভের অংশ পুরো নিয়ে যেতে পারেন না৷ তাঁকে আবার বিনিয়োগ করতে হয়৷ ফলে ব্যবসা বাড়ে এবং সম্প্রসারিত হয়৷ নারীরা এই ব্যবসায় এগিয়ে আসার কারণ এখানে ঋণ দেয়ার পাশাপাশি ব্যবসাটি হাত কলমে শেখানোও হয়৷''

ড. নাজনীন আহমেদ বলেন. ‘‘এখান থেকেই আবার কেউ মূল ধারার ব্যবসায় চলে যেতে পারেন৷ ফলে এখানকার সফলতা নারীদের মূল ধারায় অংশগ্রহণও বাড়াবে৷''

প্রসঙ্গত, সামাজিক ব্যবসার প্রথম ধারণা দেন বাংলাদেশের গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা এবং শান্তিতে নোবেল জয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস৷ সূত্র: ডিডব্লিউ

সংবাদটি শেয়ার করুন

নারীমেলা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত