‘পা ফাটা মানুষগুলোর নিখাদ ভালোবাসাতেই তৃপ্তি পাই’

জগলুল হায়দার
| আপডেট : ০৪ জুন ২০১৯, ১০:৪৯ | প্রকাশিত : ০৪ জুন ২০১৯, ১০:০৯
জগলুল হায়দার

আমি সাতক্ষীরা জেলার সন্তান। আমি বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। শ্যামনগর ও কালীগঞ্জ (আংশিক) উপজেলাবাসীর ভালোবাসার বলয়েই আমার অবস্থান। তাই ওই বলয়ের মধ্যেই হবে আমার ঈদ।

শুধুমাত্র সংসদ অধিবেশন ছাড়া আমি আমার নির্বাচনী এলাকায় থাকি। এ সময় আমার কোনও সিকিউরিটি প্রয়োজন হয় না। আপামর জনসাধারণই আমাকে তাদের ভালোবাসার বলয়ে নিরাপত্তা দিয়ে রাখেন। নির্বাচনী এলাকায় আমি কোনও স্যার নই। আমি কারও ভাই, কারও বন্ধু, কারও ছেলে, কারও বা আশার স্থল। আমি সকলের ভালোবাসায় সিক্ত। তাদের এই ভালোবাসা আর সমর্থনেই আমি একটানা দুইবার এমপি হয়েছি। আমি নির্বাচনী এলাকায় কখনও মোটরসাইকেলে, কখনও পায়ে হেঁটে এলাকার উন্নয়ন আর সমস্যা সমাধানে কাজ করি।

যেকোনো উন্নয়নে জনসাধারণের চোখে-মুখে যখন আনন্দের রেখা ফুটে ওঠে, সে সময় আমি সবচেয়ে বেশি আনন্দিত হই। যখন কোনও মানুষের চিকিৎসা সংক্রান্ত সমস্যা, অর্থ সমস্যা, রাস্তা-ঘাটে যাতায়াতের সমস্যা, বেকার জীবনের সমস্যা ইত্যাদির খবর পাই, তখন নিজেকে চিকিৎসক বাবার সন্তান হিসেবে ধরে রাখতে পারি না। ছুটে যাই তাদের কাছে। সমস্যার সমাধান করেই আমি অর্জন করি তৃপ্তি, এই পা-ফাটা মানুষগুলোর নিখাদ ভালোবাসা। এভাবেই আজ আমি তাদের ভালোবাসার বলয়ে বাঁধা।

আমি আওয়ামী পরিবারের সন্তান। আওয়ামী লীগ আমার প্রাণ। জননেত্রী শেখ হাসিনা আমার অভিভাবক। শেখ হাসিনার কাছে প্রধান বিষয় বাংলাদেশের উন্নয়ন, শুধু আওয়ামী লীগের উন্নয়ন নয়। তেমনই প্রধানমন্ত্রীর স্নেহধন্য হিসেবে সাতক্ষীরা জেলার সার্বিক উন্নয়নই আমার প্রত্যাশা।

সকলকে জানাই ঈদ মোবারক।

লেখক: জাতীয় সংসদ সদস্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফেসবুক কর্নার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত