মানিকগঞ্জ শহরবাসীর ‘গলার কাঁটা’ অটোবাইক

মঞ্জুর রহমান, মানিকগঞ্জ থেকে
 | প্রকাশিত : ১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ০৯:২০

মানিকগঞ্জ পৌরসভায় নম্বর প্লেট আছে এমন বৈধ অটোবাইক রয়েছে পাঁচশ অথচ অবৈধ ভাবে শহর দাঁপিয়ে বেড়াচ্ছে কয়েক হাজার। বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে শহীদ রফিক সড়ক হয়ে পুরনো বাজার পর্যন্ত ব্যাটারিচালিত অটোবাইক চলাচল করলেও শহরের আরেকটি অংশে চলাচল করছে ইঞ্জিনচালিত অটোবাইক। সরকার দলীয় নেতাকর্মীদের ছত্রছায়ায় কাগজপত্র না থাকলেও তা চলাচল করছে। 

তবে ঠিক কতগুলো অটোবাইক শহরে চলাচল করছে তার নির্দিষ্ট কোনো তথ্য নেই জেলা ট্রাফিক বিভাগের কাছে। পৌরসভার প্যানেল মেয়র আরশেদ আলী বলছেন, পৌর এলাকার ভেতর অবৈধ অটোবাইকের সংখ্যা দাঁড়াবে প্রায় দের হাজার। তার দাবি নানা কারণে অবৈধ ভাবে চলাচল করা অটোবাইকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া যায় না।

জানা গেছে, মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে পুরনো কাঁচাবাজার পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার রাস্তা। এটি জেলা শহরের প্রধান রাস্তা। ২০১০ সালের আগে এই রাস্তা ছিল প্যাডেলচালিত রিকশার দখলে। এরপর অনুমোদনহীন ভাবে শহরের রাস্তায় ব্যাটারিচালিত অটোবাইক চলাচল শুরু করে। প্রথম দিকে অটোবাইকগুলো সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠলেও এটি এখন গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে শহরবাসীদের জন্য।

মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালাম বলেন, অবৈধ অটোবাইকের যন্ত্রণায় মেইন শহর দিয়ে চলাচল করা যায় না। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। এটা দেখা দায়িত্ব পৌর মেয়রের। আমরা সাধারণ নাগরিক হিসেবে আশা করি পৌর মেয়র ও প্রশাসন এ ব্যাপারে সক্রিয় ভূমিকা পালন করবেন।

মানিকগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি গোলাম ছারোয়ার ছানু বলেন, পৌরসভা থেকে (২০১৬-২০১৭) অর্থবছরে যেসব অটোবাইক অনুমোদন পেয়েছে শুধুমাত্র সেগুলো চলাচল করলে শহরের যানজট অনেকটা কমে আসতো। কিন্তু যেসব অটোবাইক শহরে চলাচল করে সেগুলোর বেশির ভাগই অনুমোদনহীন। তিনি বলেন, এই শহরকে যানজটমুক্ত রাখতে  হলে অবৈধ ভাবে চলাচল করা অটোবাইক, রিকশা উঠিয়ে দিতে হবে। তাহলেই শহর যানজটমুক্ত হবে।

মানিকগঞ্জ পৌরসভার প্যানেল মেয়র আরশেদ আলী বলেন, সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে অবৈধ ব্যাটারিচালিত অটোবাইক শহরে এসে চলাচল করায় ছোট্ট শহরে যানজট সষ্টি হয়। এসব নিয়ন্ত্রণে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিনিয়ত মোবাইল কোট পরিচালনা করা হয়। তার মতে ইঞ্জিন চালিত অটোবাইকের বিরুদ্ধে বিআরটিএ ব্যবস্থা নিলে শহর অনেকটাই যানজটমুক্ত থাকবে।

তিনি বলেন, আগামী পৌর পরিষদের আলোচনা সভায় শহরে চলাচল করা বৈধ অটোবাইক ও অটো রিকশার ভাড়ার ব্যাপারে নতুন সিদ্ধান্ত হবে।

মানিকগঞ্জ ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (টিআই) আনোয়ার হোসেন বলেন, আমরা শহরে অবৈধ অটোবাইকগুলো চলতে দেই না। মাঝে মাঝে মোবাইল কোর্ট বসিয়ে অবৈধ অটোগুলো জব্দ করি।

(ঢাকাটাইমস/৯ডিসেম্বর/প্রতিনিধি/জেডএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত