পদ্মায় সংঘর্ষে দুই স্পিডবোট ডুবে আহত ৮, নিখোঁজ ২

শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ০৬ জানুয়ারি ২০১৭, ১২:০৫ | প্রকাশিত : ০৬ জানুয়ারি ২০১৭, ১১:৪৮

কাওড়াকান্দি-শিমুলিয়া নৌরুটে মুখোমুখি সংঘর্ষে দুটি স্পিডবোট ডুবির ঘটনা ঘটেছে। ঘন কুয়াশার মধ্যে চলতে গিয়ে শুক্রবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে। এতে দুই স্পিডবোটের কমপক্ষে আটজন যাত্রী আহত হয়েছেন। নিখোঁজ রয়েছেন আরও দুইজন। আহতদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। তবে ডুবে যাওয়া বোটের যাত্রীরা তাদের সাথে থাকা মালামাল হারিয়েছেন।

কাওড়াকান্দি ঘাট সূত্রে জানা গেছে, শিমুলিয়া থেকে যাত্রীবাহী একটি স্পিডবোট কাওড়াকান্দি ঘাটের কাছাকাছি এলে কাওড়াকান্দি থেকে ছেড়ে যাওয়া অপর একটি যাত্রীবাহী স্পিডবোটের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় উভয় বোটই পানিতে তলিয়ে যায়। তাৎক্ষণিকভাবে যাত্রীরা কেউ সাঁতরে উঠেন এবং কয়েকজনকে অন্য বোট দ্বারা উদ্ধার করা হয়। তবে দুইজন যাত্রী নিখোঁজ রয়েছে বলে জানা গেছে।

লিপি বেগম (৩৫) নামে এক নারী নিখোঁজ রয়েছেন বলে দাবি করছেন তার ভাই সফিকুল ইসলাম। তার বাড়ি ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলায়। তিনি জানান, সকালে তার বোন লিপি তার ভাই ও ভাগ্নে নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা করেন। কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে স্পিডবোটে উঠলে তারা দুর্ঘটনার কবলে পড়েন। এসময় তার ভাই রুবেল ও ভাগ্নে তৌফিককে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। তবে বোন লিপিকে পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন সফিকুল ইসলাম।

ঘাটের একটি সূত্র একাধিক যাত্রী নিখোঁজ রয়েছে বলে জানায়। শিবচর ফায়ার সার্ভিসের একটি দল ঘটনাস্থলে রয়েছে। টিমের প্রধান মো. সালাউদ্দিন ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে ছুটে আসি। স্থানীয়রা ট্রলারে করে যাত্রীদের উদ্ধার করেছে। তবে একজন নিখোঁজ থাকার কথা শুনছি। তবে তা নিশ্চিত নয়। আমরা খোঁজ নিচ্ছি। নিখোঁজ থাকলে প্রয়োজনে ডুবুরী দ্বারা উদ্ধার কাজ শুরু হবে।’

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে শিবচর থানার তদন্ত কর্মকর্তা আবুল খায়ের মিয়া ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘সকালে কাওড়াকান্দি ঘাট এলাকায় স্পিডবোট দুর্ঘটনা ঘটে। তবে সব যাত্রী উদ্ধার হয়েছে। কোনো যাত্রী নিখোঁজের খবর আমাদের কাছে নেই।’

(ঢাকাটাইমস/০৬জানুয়ারি/প্রতিনিধি/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত