সাহসী নারীর পুরস্কার নিলেন ঝালকাঠির শারমিন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ৩০ মার্চ ২০১৭, ১৩:৩৯ | প্রকাশিত : ৩০ মার্চ ২০১৭, ১৩:০৭

নিজের বাল্যবিবাহ রুখে দেয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ‘ইন্টারন্যাশনাল উইমেন অব কারেজ অ্যাওয়ার্ড’ গ্রহণ করেছেন বাংলাদেশের ঝালকাঠির মেয়ে শারমিন আক্তার । 

বুধবার ওয়াশিংটনের ডিন এচেসন মিলনায়তনে ফার্স্টলেডি মেলানিয়া ট্রাম্প তার হাতে ‘ইন্টারন্যাশনাল উইমেন অব কারেজ অ্যাওয়ার্ড’পদক তুলে দেন বলে যুক্তরাষ্ট্র পররাষ্ট্র দপ্তরের ওয়েবসাইটে জানানো হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতি বিষয়ক আন্ডার সেক্রেটারি থমাস শ্যাননের উপস্থাপনায় ওই অনুষ্ঠানে শারমিনের সঙ্গে বিভিন্ন দেশের আরও ১২ জন নারীকে এই সম্মাননা দেওয়া হয়।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে মেলানিয়া বলেন, ‘যখনই নারীর অধিকার খর্ব করা হয়, সঙ্গে সঙ্গে পৃথিবী নিজেও অনেকটা খর্ব হয়ে পড়ে। আর যখনই পৃথিবীর কোথাও কোনো নারী ক্ষমতায়িত হয়, আমরাও তাদের সঙ্গে শক্তিশালী হয়ে উঠি।’

ব্যতিক্রমধর্মী সাহস, শান্তি, ন্যায়বিচার, মানবাধিকার, লিঙ্গ সমতা, নারীর ক্ষমতায়ন ও নারী নেতৃত্বে অবদানের জন্য বিশ্বব্যাপী নারীদের পুরস্কৃত করছে যুক্তরাষ্ট্র।

মাত্র ১৫ বছর বয়সে জোরপূর্বক বিয়ে ঠেকিয়ে দক্ষিণ এশিয়ার কিশোরীদের জন্য দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করায় এই বছর শারমিন আক্তারকে ‘সাহসী নারী’ পুরস্কার দেয়া হয়েছে। ২০১৫ সালের অগাস্টের ওই ঘটনায় শারমিন তার মা এবং ৩২ বছর বয়সী ‘হবু স্বামী’ প্রতিবেশী স্বপন খলিফার বিরুদ্ধে মামলাও করেছিলেন।

বাল্যবিবাহের প্রচলন রয়েছে বিশ্বের এমন দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। অপ্রাপ্ত বয়সে বিয়ের কারণে লাখো কিশোরীদের স্বাস্থ্য, নিরাপত্তা, শিক্ষা হুমকির মুখে পড়ে এবং দেশের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হয়।

শারমিনের গ্রামের বাড়ি ঝালকাঠি জেলায়। তিনি এখন রাজাপুর পাইলট গার্লস উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়াশুনা করছেন। তার স্বপ্ন পড়াশুনা শেষ করে আইনজীবী হওয়া। যাতে করে বাল্যবিবাহ ও জোরপূর্বক বিয়ে প্রথার বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে পারেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ২০০৭ সালে প্রথম এই পুরস্কার চালু করে। এখন পর্যন্ত ৬০টি দেশের ১০০ জন নারীকে এই পুরস্কার দেয়া হয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/২৯মার্চ/এসআই)

সংবাদটি শেয়ার করুন

নারীমেলা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত