ইফতারে রাজনৈতিক বক্তব্যে রোজাদাররা আহত হন: হানিফ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৮ জুন ২০১৭, ১৯:৫৯
ফাইল ছবি

ইফতার মাহফিলে রাজনৈতিক বক্তব্য দিলে রোজাদাররা বিরক্ত ও আহত হন বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। তবে প্রতিপক্ষের বক্তব্যে বিভ্রান্তি ছড়াবে এজন্য বাধ্য হয়ে তিনিও ইফতার মাহফিলে রাজনৈতিক বক্তব্য দিয়েছেন।

রবিবার সন্ধ্যায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন আয়োজিত ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ও মহানগরের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন হানিফ।

বিএনপির ইফতার মাহফিলে দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বক্তব্যের নিন্দা জানিয়ে হানিফ বলেন, ‘আমরা সাধারণ ইফতার মাহফিলে কোনো রাজনৈতিক কথা বলতে চাই না। এসব বলতে গেলে রোজাদার মানুষ আহত হন এটা আমরা বুঝি। কিন্তু বেগম খালেদা জিয়া ইফতার মাহফিলের নামে যেসব মিথ্যাচার করছেন, আক্রমণাত্মক বক্তব্য দিচ্ছেন, রাজনৈতিক সুবিধা হাসিলের চেষ্টা করছেন তা কোনোভাবেই ইসলাম সমর্থন করে না। আমরাও করি না। তাই অনিচ্ছা সত্ত্বেও এসবের জবাব দিচ্ছি, না হলে এসব মিথ্যাচার প্রতিষ্ঠিত হয়ে যাবে।’

হানিফ বলেন, ‘গেল সপ্তাহে চট্টগ্রামে যে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটল। এতে শতাধিক মানুষ মারা গেল। আমরা এতে প্রচণ্ড রকম আহত হই এবং প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী সেদিনই ঘটনাস্থলে যান ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন মায়া, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী। আমরা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ও আমাদের দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে যাই। সেখানে সাধ্যমত সহায়তা করি এবং বিপর্যস্ত পরিবারের স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে না আসা পার্যন্ত তাদের পাশের থাকার আশ্বাস দিই। আর এর এক সপ্তাহ পর বিএনপি খবর নিতে যায় সেখানে কী হচ্ছে। এর আগে শুধু আওয়ামী লীগের বিষাদগার ছাড়া কিছু করেনি। তারা হয়তো প্রস্তুতিই নিয়েছিল সেখান থেকে ফিরে বলবে আওয়ামী লীগ সরকার কোনো সহয়তা করছে না।’

প্রধানমন্ত্রীর সুইডেন সফর নিয়ে বিএনপি নেত্রীর মিথ্যাচার ও অসৌজন্যবোধ করেছেন এমন অভিযোগ করে হানিফ বলেন, ‘সুইডেন হচ্ছে সে রাষ্ট্র যে রাষ্ট্রটি স্বাধীন বাংলাদেশের স্বীকৃতি প্রদানের পাশাপাশি স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশের নানা সহায়তা দিয়ে বাংলাদেশের মানুষের জীবনমান উন্নয়নের চেষ্টা করে। স্বাধীনতার ৪৭ বছর পর প্রথমবারের মতো সে রাষ্ট্রটিতে বাংলাদেশের কোনো রাষ্ট্রপ্রধান ভ্রমণ করেন। এরকম একটা বিষয়কে সাধুবাদ না জানিয়ে তিনি বলছেন পাহাড়ি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে আর প্রধানমন্ত্রী নাকি আনন্দ ভ্রমণে গেছেন। এই রমজানের মাসে এমন মিথ্যাচার তারই মানায় যার ইসলাম ধর্ম পালনের কোনো নজির নাই।’

হানিফ বলেন, ‘ইসলামকে যেন কোনোভাবে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করা না হয়, ইসলামের মূল আদর্শ থেকে বের হয়ে ইসলামের ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে জনগণকে যেন কোনোভাবে বিভ্রান্ত করা না হয় বরং ইসলামের আদর্শ মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দেয়ার অভিপ্রায়ে প্রাথমিকভাবে সারাদেশে ১১০টি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে।’

সব ধর্ম-বর্ণের মানুষ যেন একসঙ্গে শান্তিতে বাস করতে পারে সেজন্য সবার সহযোগিতা কামনা করেন আওয়ামী লীগের এই নেতা। সেই সঙ্গে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হায়াত বৃদ্ধির জন্য সবার কাছে দোয়া কামনা করেন হানিফ।

ইসলামিক ফাইন্ডেশনের সভাপতি সামীম মোহাম্মদ আফজালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ। ইফতারে আগে মোনাজাতে অংশ নেন অনুষ্ঠানের অতিথিরা।

(ঢাকাটাইমস/১৮জুন/টিএ/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত