আরব বিশ্বে প্রথম পরমাণু চুল্লির অনুমোদন দিল আরব আমিরাত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
 | প্রকাশিত : ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬:৫৯

জীবাশ্ম জ্বালানির ওপর নির্ভরতা কমাতে আরব বিশ্বের মধ্যে প্রথমবারের মতো সংযুক্ত আরব আমিরাত বারাকাহ পরমাণু চুল্লি তৈরির জন্য লাইসেন্স অনুমোদন করেছে।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, সোমবার আরব আমিরাত পরমাণু চুল্লি তৈরির জন্য লাইসেন্স ইস্যু করেছে। আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবির পশ্চিমে পারস্য উপসাগরের উপকূলে অবস্থিত বারাকাহ পরমাণু স্থাপনায় এই চুল্লি নির্মাণ করা হবে। চুল্লিটি সৌদি আরবের সীমান্ত থেকে মাত্র ৫০ কিলোমিটার দূরে এবং কাতারের রাজধানী দুহারের নিকটে।

এক সংবাদ সম্মেলনে আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থায় (আইএইএ) নিযুক্ত সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রতিনিধি হামাদ আল-কাবি এ তথ্য জানান।

তিনি বলেছেন, দেশটি চারটি পরমাণু চুল্লি নির্মাণ করবে। তবে প্রাথমিকভাবে একটির নির্মাণ কাজ শুরু হবে।

গত মাসে আমিরাতের সরকারি কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন, ওই পরমাণু স্থাপনা আগামী কয়েক মাসের মধ্যে চালু হবে। পরমাণু স্থাপনা চালুর ব্যাপারে কোনও নির্দিষ্ট সময়সূচি উল্লেখ করেননি হামাদ আল-কাবি।

দক্ষিণ কোরিয়ার একটি জ্বালানি করপোরেশন ১৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি ব্যয়ে পরমাণু চুল্লিটি তৈরি করবে। চারটি পরমাণু চুল্লি চালু হলে ৫ হাজার ৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভব হবে; যা দেশটির জাতীয় চাহিদার শতকরা ২৫ ভাগ।

মূলত জীবাশ্ম জ্বালানির ওপর থেকে চাপ কমানোর উদ্দেশ্যেই পরমাণু চুল্লি করা হচ্ছে। এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে মধ্যপ্রাচ্যে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে আরব আমিরাত আঞ্চলিক নেতা হবে।

পরমাণু চুল্লি তৈরির পাশাপাশি মহাকাশেও মহাকাশযান প্রেরণের পরিকল্পনা করছে দেশটি। গত বছর প্রথমবারের মতো একজন মহাকাশচারীকে প্রেরণ করেছিল আরব আমিরাত।

গত বছর সৌদি আরবের তেলক্ষেত্রে মিসাইল হামলার ঘটনা ঘটে। এছাড়া মধ্যপ্রাচ্যে ইরান ও সৌদি আরবের মধ্যে ভবিষ্যতে সংঘাত হলে জীবাশ্ম জ্বালানি ব্যবহারের ওপর চাপ পড়বে। ফলে সমগ্র মধ্যপ্রাচ্যেই জ্বালানি সংকট তৈরি হতে পারে। এ আশঙ্কা থেকেই আরব আমিরাত জীবাশ্ম জ্বালানির পরিবর্তে পারমাণবিক চুল্লির প্রতি বেশি আগ্রহী হচ্ছে বলে বিশেষজ্ঞাদের মতামত।

(ঢাকা টাইমস/১৮ফেব্রুয়ারি/আরআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :