ব্যাংক কর্মকর্তাকে মারধরের মামলায় প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:০৪ | প্রকাশিত : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:০২

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ব্যাংক কর্মকর্তাকে মারধরের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় প্রধান আসামি সজিবুল ইসলাম সজিবকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার রাতে আড়াইহাজার থানা পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

ঋণের টাকা ফেরত চাওয়ায় মারধরের শিকার হয়ে গত ১৬ সেপ্টেম্বর চারজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৭/৮ জনকে আসামি করে মামলাটি দায়ের করেন এনআরবিসি ব্যাংকের আড়াইহাজার শাখার ডেপুটি ম্যানেজার মনিরুল ইসলাম।

পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়া সজিবুল ইসলাম সজিব এই মামলার মূল আসামি। তিনি আড়াই হাজার থানার খাগকান্দা ইউনিয়ের সাবেক চেয়ারম্যান মৃত শহিদুল ইসলাম ওরফে নুরু মোক্তারের ছেলে। মামলাটির (মামলা নং-১৫ তারিখ ১৬/৯/২১) অপর আসামিরা হলেন, জাকির খান সাগর, তাছলিমা আক্তার ও মুজাহিদ।

মামলার বিষয়ে আড়াইহাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিসুর রহমান মোল্লা (০১৩২০০৯০৫০৭) । তদন্ত কর্মকর্তা শামীম আল মামুন (০১৭৪২৫৬৯০৯৮)

মামলা সূত্রে জানা যায়, দুবাই প্লাজার জাকির খান কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টারের মালিক জাকির খান এক বছর আগে এনআরবিসি ব্যাংক আড়াইহাজার শাখা থেকে তিন লাখ টাকা ঋণ নেন। তার ঋণের জামিনদার হন খাগকান্দা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরিফুলের মা তাছলিমা আক্তার ও ভাই সজিবুল ইসলাম। প্রাথমিকভাবে ঋণের কিস্তি পরিশোধ করে আসছিলেন তাছলিমা আক্তার ও সজিবুল। কিন্তু হঠাৎ তারা কিস্তি বন্ধ করে দেন। কিস্তি পরিশোধের কথা বলা হলে তারা টালবাহানা শুরু করেন।

এক পর্যায়ে চার-পাঁচ মাসের কিস্তি বাকি থাকায় গত বুধবার দুবাই প্লাজায় জাকির খানের কাছে যান এনআরবিসি ব্যাংকের ম্যানেজার কচি শিকদার, ক্রেডিট অফিসার আজহারুল হক ও মনিরুল ইসলাম। জাকির খানের কাছে কয়েক মাসের বকেয়া ও চলতি কিস্তি চাইলে উত্তেজিত হন তিনি। এ সময় জাকির খানের পক্ষ নিয়ে তাছলিমা আক্তার তাদের গালাগাল করেন এবং মারতে উদ্যত হন। পরে ব্যাংকে ফিরে যান কর্মকর্তারা।

এর জেরে বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ব্যাংক কর্মকতা মনিরুলকে বাসা থেকে ডেকে বের করে চেয়ারম্যান আরিফুলের ভাই সজিবুলের নেতৃত্বে সাত-আটজন হকিস্টিক ও রড দিয়ে পেটায়। তার কাছে থাকা ৫৫ হাজার টাকা ও স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয়। মনিরুলকে মারধরের সময় তার স্ত্রী আয়েশা বানু এগিয়ে এলে তাকেও পিটিয়ে আহত করা হয়। পরে তাদের হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায় হামলাকারীরা। আঘাতের কারণে মনিরুল ইসলামের এক চোখ নষ্ট হতে চলেছে।

(ঢাকাটাইমস/২৬সেপ্টেম্বর/এসকেএস/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :