চাঁদে অবতরণ করে ইতিহাস গড়ল মার্কিন কোম্পানির মহাকাশযান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১০:৫৬ | প্রকাশিত : ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৮:৪৬

একটি আমেরিকান কোম্পানি প্রথম বারের মতো চাঁদে মহাকাশযান পাঠিয়ে ইতিহাস তৈরি করেছে।

হিউস্টনভিত্তিক মহাকাশযানের ওডিসিয়াস রোবট চাঁদের দক্ষিণ মেরুর কাছে অবতরণ করেছে।

যানটি নিচে নেমেছে তা নিশ্চিত করতে নিয়ন্ত্রকদের কিছু মিনিট সময় লেগেছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত একটি সংকেত পাওয়া গেছে।

ফ্লাইট ডিরেক্টর টিম ক্রেন ঘোষণা করেন, “আমরা যা নিশ্চিত করতে পারি, তা হলো, আমাদের যন্ত্রপাতি চাঁদের পৃষ্ঠে রয়েছে এবং আমরা প্রেরণ করছি।”

কোম্পানির কর্মীরা এই খবরে উল্লাস ও করতালি দেয়।

এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্ত ছিল, শুধু মহাকাশের বাণিজ্যিক ব্যবহার নয়, সাধারণভাবে মার্কিন মহাকাশ কর্মসূচির জন্যও।

মেশিনগুলি চাঁদের পৃষ্ঠ থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্ধ শতাব্দীর অনুপস্থিতিকে ভেঙে দিয়েছে। ১৯৭২ সালের শেষ অ্যাপোলো মিশনে ফিরে যেতে হবে যখন আমেরিকান হার্ডওয়্যার চাঁদের মাটিতে আলতোভাবে বাসা বেঁধেছিল।

ইউএস স্পেস এজেন্সি নাসা ছয়টি বৈজ্ঞানিক যন্ত্রের জন্য ওডিসিয়াসে কক্ষ কিনেছিল।

নাসার প্রশাসক বিল নেলসন বলেন, যুক্তরাষ্ট্র চাঁদে ফিরে এসেছে। আজ, মানবতার ইতিহাসে প্রথমবারের মতো একটি বাণিজ্যিক কোম্পানি, একটি আমেরিকান কোম্পানি সেখানে যাত্রা শুরু করেছে এবং নেতৃত্ব দিয়েছে। আজ সেই দিন যা নাসার বাণিজ্যিক অংশীদারিত্বের শক্তি এবং প্রতিশ্রুতি দেখায়।

ওডিসিয়াস গ্রিনিচউইচ মিন টাইম ২৩টা ২৩ মিনিটে নেমেছে। প্রথমে রোবট থেকে কোনও নিশ্চিতকরণ সংকেত ছিল না এবং নিয়ন্ত্রকদের কয়েক মিনিট অপেক্ষা করতে হয়েছিল।

ল্যান্ডিং সাইটটি মালাপের্ট নামে পরিচিত একটি ৫ কিমি উচ্চ পর্বতমালার পাশে একটি গর্তযুক্ত ভূখণ্ড। এটি সেই স্থানগুলির সংক্ষিপ্ত তালিকায় রয়েছে যেখানে নাসা তার আর্টেমিস প্রোগ্রামের অংশ হিসেবে এই দশকের পরে মহাকাশচারী পাঠানোর কথা বিবেচনা করছে।

এই অঞ্চলে কিছু গভীর গর্ত রয়েছে যেগুলো কখনও সূর্যালোক দেখতে পায় না। তারা স্থায়ীভাবে ছায়ায় থাকে এবং বিজ্ঞানীরা মনে করেন হিমায়িত জল তাদের ভিতরে থাকতে পারে।

“বরফটি সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ কারণ আমরা যদি সত্যিই চাঁদের পৃষ্ঠে সেই বরফের সুবিধা নিতে পারি তবে আমাদের সঙ্গে কম উপকরণ আনতে হবে,” নাসার গ্রহ বিজ্ঞানের পরিচালক লরি গ্লেজ ব্যাখ্যা করেছেন।

“আমরা সেই বরফটিকে পানীয় জলে রূপান্তর করতে ব্যবহার করতে পারি এবং আমরা জ্বালানির জন্য ও মহাকাশচারীদের শ্বাস নেওয়ার জন্য অক্সিজেন ও হাইড্রোজেন বের করতে পারি। তাই এটি সত্যিই আমাদের মানব অনুসন্ধানে সাহায্য করে।” বলেণ তিনি।

ওডিসিয়াস ৩ বোর্ডে নাসার ছয়টি পেলোড হল প্রযুক্তি প্রদর্শন এবং বিজ্ঞান। একটি মূল তদন্ত হবে চন্দ্রের ধূলিকণার আচরণের দিকে তাকানো।

এজেন্সির বিজ্ঞানীরা আরও ভালোভাবে বুঝতে চান যে ল্যান্ডিং ক্র্যাফটের মাধ্যমে ধুলো কীভাবে উপরে উঠে যায় এবং তারপরে আবার নীচে বসতি স্থাপন করার আগে ঠিক পৃষ্ঠের উপরে ঝুলে থাকে।

বোর্ডে থাকা ছয়টি বাণিজ্যিক পেলোডের মধ্যে রয়েছে এমব্রি-রিডল অ্যারোনটিক্যাল ইউনিভার্সিটির একটি ছাত্র ক্যামেরা সিস্টেম, যা চাঁদের পৃষ্ঠ থেকে ৩০ মিটার উপরে থাকাকালীন ওডিসিয়াস থেকে স্থাপন করা উচিত ছিল।

আমেরিকান শিল্পী জেফ কুনস ল্যান্ডারের পাশে একটি বাক্স সংযুক্ত করেছেন যাতে ১২৫টি ছোট স্টেইনলেস স্টিল বল রয়েছে যা এক মাস ধরে চাঁদের বিভিন্ন পর্যায়কে উপস্থাপন করে।

(ঢাকাটাইমস/২৩ফেব্রুয়ারি/এফএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

আন্তর্জাতিক এর সর্বশেষ

ইসরায়েলকে লক্ষ্য করে ইরানের ব্যাপক হামলা শুরু, মধ্যপ্রাচ্যে উৎকণ্ঠা

হরমুজ প্রণালিতে আটক করা জাহাজে রয়েছেন ১৭ ভারতীয় ক্রু

হামলার জন্য ড্রোন-ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র প্রস্তুত করছে ইরান!

সিডনিতে শপিংমলে হামলা, নিহত অন্তত ৬

কিউবার পক্ষে গুপ্তচরবৃত্তি: সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূতের ১৫ বছর কারাদণ্ড

হিজবুল্লাহর মুহুর্মুহু রকেট নিক্ষেপ কীসের ইঙ্গিত? ইরানের ভয়ে ইসরায়েলে ‘হাই অ্যালার্ট’

ইরানের হামলার ভয়: শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন নেতানিয়াহু

ইইউ পার্লামেন্টে রাজনৈতিক আশ্রয় সংক্রান্ত নতুন প্রস্তাব পাস 

কাজাখস্তানে বন্যা: উচ্চ পানির স্তর ওরেনবার্গের বাড়িঘর জলাবদ্ধ

ইরান ও ইসরায়েল ভ্রমণে ফরাসিদের নিষেধাজ্ঞা

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :