মানিকগঞ্জে আ.লীগ প্রার্থীর দাবি

‘রমজানের অস্ত্র-টাকায় পরিবেশ নষ্ট হবে, ব্যবস্থা নিন’

মঞ্জুর রহমান, মানিকগঞ্জ
| আপডেট : ২৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ০১:১৭ | প্রকাশিত : ২৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১:০৩

মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোর্হী প্রার্থী মো. রমজান আলীর বিরুদ্ধে কালো টাকা বিতরণ ও অস্ত্রধারী ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে ভোটারদের ভয়ভীতি দেখনোর লিখিত অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী অ্যাডভোকেট গোলাম মহিউদ্দীন। তার আশঙ্কা, বিদ্রোহী প্রার্থীর বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা না নিলে পরিবেশ নষ্ট হবে।

আজ সোমবার সন্ধ্যায় জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক রাশিদা ফেরদৌসের কাছে লিখিত অভিযোগটি দেয়া হয়।
বিদ্রোর্হী প্রার্থী মো. রমজান আলীকে ‘তথাকথিত চেয়ারম্যান প্রার্থী’ হিসেবে উল্লেখ করে গোলাম মহিউদ্দীন অভিযোগ করেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও দলের বিদ্রোর্হী চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. রমজান আলী অস্ত্রধারী ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী নিয়ে ঘিওর, দৌলতপুর ও শিবালয় এলাকার ভোটারদের কালোটাকা দিচ্ছেন।

ক্ষমতাসীন দলের চেয়ারম্যান প্রার্থী বলেন, রমজান আলী অস্ত্র দেখিয়ে ভোটারদের তার পক্ষে ভোট দিতে বলছেন। এ কারণে ভোটাররা ভয়ভীতির মধ্যে আছেন এবং নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। তার (রমজান) বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা না নিলে ভোটের পরিবেশ নষ্ট হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।

তবে এসব অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছেন বিদ্রোহী প্রার্থী রমজান আলী। তিনি বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট। আওয়ামী লীগের প্রার্থী গোলাম মহিউদ্দীন নিজেই ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে ভোটারদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন।’
কালো টাকার অভিযোগের বিষয়ে রমজান আলী বলেন, ‘আমার কোনো কালো টাকা নেই। তিনি (মহিউদ্দিন) জেলা পরিষদের প্রশাসক থাকার সময় অবৈধভাবে যে টাকা কামিয়েছেন, সেই টাকা রাতের আঁধারে ভোটারদের দিচ্ছেন।’

অবৈধ অস্ত্রের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে রমজান আলী ঢাকাটাইমসের কাছে দাবি করেন, তার লাইসেন্স করা বন্দুক থানায় জমা দেওয়া আছে। তিনি উল্টো পরামর্শ দেন গোলাম মহিউদ্দীনের বন্দুকটি কোথায় আছে তা জানতে।

দেশের ৬১ জেলা পরিষদে নির্বাচনে ২২ জেলায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা। আর ১৫ থেকে ২০টি জেলায় দল-সমর্থিত প্রার্থীর বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন দলের পদ-পদবি ধারণকারী নেতারা। দলের মধ্যে এই কোন্দল সামাল দিতে সোমবার চার জেলায় চারটি দল পাঠায় আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী (নওফেল), কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক, ফরিদুন্নাহার লাইলী ও বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন সোমবার মানিকগঞ্জ সফর করেন।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে প্রায় দুই ঘণ্টা বৈঠক করেন মানিকগঞ্জ-১ আসনের (ঘিওর, দৌলতপুর ও শিবালয়) সংসদ সদস্য আবু মো. নাঈমুর রহমান দুর্জয়, আওয়ামী লীগ-সমর্থিত প্রার্থী গোলাম মহিউদ্দীন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালামসহ জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা।

কিন্তু বৈঠকে তেমন একটা অগ্রগতি হয়নি। কেন্দ্রীয নেতাদের মানিকগঞ্জ সফরের পর এদিনই সন্ধ্যায় বিদ্রোহী প্রার্তীর বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিলেন দলের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী।

(ঢাকাটাইমস/২৬ডিসেম্বর/মোআ)

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত