পাকিস্তানকে কোহলির অভিনন্দন

দেলোয়ার হোসেন, লন্ডন ইংল্যান্ড থেকে
| আপডেট : ১৯ জুন ২০১৭, ১০:১৩ | প্রকাশিত : ১৯ জুন ২০১৭, ০৯:৫৭

মাঠে তিনি বেশিই আক্রমণাত্মক। কখনও একটু বাড়াবাড়িও করে ফেলেন হয়তো।  মাঠের বাইরের কোহলি কী এমন? মানে একটু ঔদ্ধত্য ঔদ্ধত্য ভাব কিনা? না, মোটেও তা নয়। মাঠের বাইরের কোহলি বেশ বিনম্র এবং বিনয়ী।

পাকিস্তানের কাছে ১৮০ রানে হারার পর তার তো অপ্রস্তুত থাকার কথা। কিন্তু বুদ্ধিমান কোহলির পরিস্থিতি সামলে নিতে এতটুকু কষ্ট হয়নি। হারের পর সব অধিনায়কেরই মুড একটু অফ থাকে।আর ম্যাচটা যদি হয় ফাইনাল, তাহলে তো আরও বেশি মুড অফ থাকার কথা।

কিন্তু ভারত অধিনায়ককে দেখে বোঝা গেল না যে, একটু আগেই তিনি সাম্প্রতিক বছরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড় হারের স্বাদ নিয়ে এসেছেন। সংবাদ সম্মেলনে একেবারেই স্বাভাবিক কোহলি। শরীরী ভাষা বলে দিচ্ছিল যে, এই হারের জন্য আসলে তার দলের কিছুই করার ছিল না।

কোহলি বললেন, ‘আমি অবশ্যই কোনো অজুহাত দাঁড় করাচ্ছি না। আজ পাকিস্তানই সেরা দল ছিল। আর সামান্য সুযোগ কখনও কখনও বিশাল হয়ে যায়৷ যা হয়েছে তাতে নেমে নিতেই হবে। আমাদের এই হার ভুলে এগিয়ে যেতে হবে৷ ভুল থেকে শিক্ষা নিতে হবে৷ আমি উইকেটের দোষ দিচ্ছি না৷ আমি জানতাম আমরা কি পারি। তাই নিজেদের শক্তি অনুযায়ী রান তাড়া করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম৷ নিজেদের সেরাটা দেওয়ারই চেষ্টা করেছি৷ কিন্তু ওরা উজ্জীবিত ক্রিকেট খেলেছে৷ হার্দিক ছাড়া আর কেউ প্রতিরোধ গড়তে পারেনি৷ পাকিস্তান প্রমাণ করেছে নিজেদের দিনে ওরা যে কাউকে হারাতে পারে৷ তাই চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য পাকিস্তানকে অভিনন্দন৷ জয়টা ওদেরই প্রাপ্য ছিল।’

সরফরাজ আহমেদ।পাকিস্তান অধিনায়ককে সহজ সরল, ভালো মানুষই বলতে হবে এক দেখায়। সংবাদ সম্মেলনে গড়গড় করে কথা বলতে থাকেন। যেন প্রশ্নগুলো তার আগে থেকেই জানা ছিল। এবং উত্তরগুলো তিনি মুখস্থ করে এখানে এসেছেন। প্রশ্ন শেষ হওয়ার আগেই বলতে শুরু করেন অনর্গল।

ফেভারিট ভারতকে কীভাবে এভাবে হারিয়ে দেওয়া সম্ভব হলো? সরফরাজ বললেন,‘ভারতের কাছে গ্রুপ স্টেজে হারের পর দলের প্রতিটি খেলোয়াড়কে বলেছিলাম, বিচলিত হওয়ার দরকার নেই। এখানেই টুর্নামেন্টের শেষ নয়। গোটা টুর্নামেন্ট পড়ে রয়েছে। আজ দলের প্রতিটি ক্রিকেটারই চ্যাম্পিয়নশিপের লড়াইয়ে দুর্দান্ত খেলেছে। আমি তাদের কাছে এমনই আশা করেছিলাম।’

সেঞ্চুরিয়ান ফখর জামানেরও প্রশংসা করে সরফরাজ বলেন, ‘সত্যি, ফখর একজন চ্যাম্পিয়ন প্লেয়ার। যদি এভাবে খেলতে থাকে তাহলে, আমি দেখছি পাকিস্তানের জন্য আগামী দিনে  সম্পদ সে হতে চলেছে।’

বোলারদের প্রশংসা করে পাকিস্তান অধিনায়ক বলেন, ‘আমির-হাসান-জুনেইদ সকলেই দারুণ  বল করেছে। এটা একটা তরুণ দল,  আমাদের  হারানোর কিছু ছিল না। কিন্তু আজ আমরা চ্যাম্পিয়ন। আমাদের যারা সমর্থন করেছেন পাশে থেকেছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা।’

(ঢাকাটাইমস/১৯জুন/ডিএইচ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

খেলাধুলা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত