ভাঙ্গায় জোড়া খুনের মামলার দায়িত্ব সিআইডিকে দেওয়ার দাবি পরিবারের

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৩ আগস্ট ২০২২, ২০:২৮
ছবি: সংগৃহীত

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় আলোচিত জোড়া খুনের (দুই ভাই) মামলা পুনঃতদন্ত ও ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানিয়েছে নিহতের পরিবার। ডিবি ও পিবিআইয়ের তদন্তে অসন্তষ প্রকাশ করে তারা এই সংবাদ সম্মেলন করেন।

শনিবার দুপুরে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (ক্র্যাব) মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, নিহতদের বাবা গিয়াস উদ্দিন, মা রাবেয়া বেগম, বোন বিউটি বেগম, ভাই আরী নুর মাতুব্বর ও নিহত শামীমের শিশু কন্যা সাদিয়া।

লিখিত বক্তব্যে নিহতদের ভাই শাহীন মাতুব্বর জানান, ২০২০ সালের ২৪ আগস্ট সকাল ৭টার দিকে পূর্বপরিকল্পিত ভাবে আমার ভাই রাকিব ও শামীমকে নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যা করে স্থানীয় সন্ত্রাসীরা।

শাহীনের ভাষ্য, ঘটনায় সরাসরি জড়িত- আমিনুল ইসলাম ওরফে গিয়াস মিয়া, কামাল মাতুব্বর, মিন্টু মাতুব্বর, মোতালেব মাতুব্বর, আফজাল মাতুব্বর, জামাল মাতুব্বর, কামাল মাতুব্বর, সালাম মাতুব্বর, সদ্দাক মাতুব্বর, মোকলেসুর রহমান হাবিব, মজিবর মাতুব্বর, মানিক মাতুব্বর, আলিম মাতুব্বর, হৃদয় মাতুব্বর, মনির সরদার, ছরো মাতুব্বরসহ আরো চার-পাঁচ জন। এদের মধ্যে তিনজনকে পুলিশ আটক করলেও তাদের মধ্যে সদ্দাক মাতুব্বর জামিনে বেরিয়ে যায়। এ ঘটনায় ২০২০ সালের ২৫ আগস্ট ভাঙ্গা থানায় মামলা নং ১৮ করা হয়।

শাহীন জানান, গ্রেপ্তার আসামীরা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দেয়। এতে তারা বেশ কয়েকজনের নাম জানায়। প্রথমাবস্থায় মামলাটি থানা পুলিশ তদন্ত করলেও পরে ডিবি পুলিশ মামলাটি তদন্ত করে। তারা তদন্ত শেষে মুল আসামী আমিনুল ইসলাম ওরফে গিয়াস মাতুব্বর ও কামাল মাতুব্বরকে বাদ দিয়ে আদালতে চার্জশিট দেয়।

এ বিষয়ে আদালতে নারাজী দেয়া হলে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় পিবিআইকে। কিন্তু পিবিআইও এই মামলা তদন্ত শেষে ডিবির মতই চার্জশিট প্রদান করে। এতে আমরা নিহতের পরিবার স্বজন ও স্থানীয়রা চরমভাবে হতাশ ও অসন্তোষ প্রকাশ করছি। পরে পিবিআইয়ের তদন্তের বিষয়েও আদালতে নারাজী দেওয়া হয়। বর্তমানে ফরিদপুর জজকোর্টে মামলাটি রিভিশন করা হয়েছে।

শাহীন মাতুব্বর জানান, এই মামলার প্রধান অভিযুক্ত আমিনুল ইসলাম ওরফে গিয়াস এবং কামাল মাতুব্বর এই দুজনকে পিবিআই মামলার অভিযোগ পত্র থেকে বাদ দেয়ায় এলাকার সাধারণ মানুষ ও আমাদের মাঝে চরম ক্ষোভ-অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। আসামীরা প্রভাবশালী অঢেল অর্থের মালিক। ডিবি পুলিশ ও পিবিআইয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা আসামীদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা পেয়ে আমিনুল ইসলাম ওরফে গিয়াস এবং কামাল মাতুব্বর- পিতা কাউল্যা মাতুব্বর এই দুই মূল আসামীকে মামলার চার্জশীট থাকে বাদ দিয়েছে বলে ধারণা করছি। ন্যায় বিচার পাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছি। অপরদিকে আসামীরা জামিনে বেরিয়ে আমাদের প্রতিনিয়ত হুমকি দিচ্ছে।

শাহীন বলেন, ‘আমাদের পরিবারের সদস্যরা নিরাপত্তহীনতায় ভুগছি। ওই মামলাটি পুনঃতদন্ত করে প্রকৃত দোষীদের আইনের আওতায় আনতে ইতিমধ্যে পুলিশ সদরদপ্তর, ফরিদুপর পুলিশ সুপারসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বরাবরে আবেদন করা হয়েছে। এই জোড়া খুনের মামলাটি সিআইডি পুলিশের পুণঃতদন্তের মাধ্যমে দোষীদের আইনের আওতায় নিয়ে ন্যায় বিচার পেতে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইজিপির হস্তক্ষেপ কামনা করে পরিবার।

(ঢাকাটাইমস/১৩আগস্ট/এএইচ/কেএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অপরাধ ও দুর্নীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

অপরাধ ও দুর্নীতি এর সর্বশেষ

দেবীদ্বারে চেয়ারম্যানের গাড়িতে গুলি: মামলায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাসহ আসামি ৫৯

নিরুদ্দেশ তরুণরা যোগ দেয় নতুন জঙ্গি সংগঠনে, যেভাবে ধরল র‌্যাব

শাহজালালে সাড়ে তিন কেজি স্বর্ণ উদ্ধার

রাজধানীতে গৃহকর্মীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, পুলিশ বলছে ঘটনা রহস্যজনক

রাবি শিক্ষক তাহের হত্যা: দুই আসামির মৃত্যুদণ্ডের রায় স্থগিত

খালাতো ভাইয়ের মাধ্যমে জঙ্গিবাদে জড়িয়ে নিলয় বুঝলেন, ‘এটা ভুল পথ’

‘নিখোঁজ’ তরুণদের সশস্ত্র হামলা-বোমা তৈরির প্রশিক্ষণ দেয়া হয়

পিকে হালদারের অবৈধ সম্পদের মামলার আলামত আদালতে

কারাগারে যা করছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সেই গাড়িচালক

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২১, মামলা ১৮

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :