জেলা পরিষদ নির্বাচন

মানিকগঞ্জে সংসদ সদস্য দুর্জয়ের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ

মঞ্জুর রহমান, মানিকগঞ্জ থেকে
| আপডেট : ২৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০:৫৩ | প্রকাশিত : ২৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০:৩২

মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে ঘিওর, দৌলতপুর ও শিবালয়ের সংসদ সদস্য নাঈমুর রহমান দুর্জয়ের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ করছেন একজন প্রার্থী। আওয়ামী লীগের সমর্থন না পেয়ে ভোটে দাঁড়ানো ওই প্রার্থী রমজান আলীর অভিযোগ, আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর গোলাম মহীউদ্দিনের পক্ষে প্রচারে অংশ নিচ্ছেন। 

রোববার জেলা নির্বাচন মুনীর হোসাইনের কাছে লিখিত অভিযোগ জমা দেন রমজান আলী। এই অভিযোগ সোমবার রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক রাশিদা ফেরদৌসের কাছে দেয়া হবে। এতে রমজান লিখেন, আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী গোলাম মহীউদ্দিনের সমর্থকেরা তাঁর নির্বাচনী কাজে বাধা দিচ্ছেন এবং পোস্টার ছিড়ে ফেলছেন। সম্প্রতি হরিরামপুর উপজেলার লেছড়াগঞ্জ ইউনিয়নে পোস্টার লাগাতে গেলে গোলাম মহীউদ্দিনের সমর্থকেরা তাঁর কর্মীদের মারধর করেন। এ ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরিও করা হয়েছে।

রমজান আলী লিখেন, প্রত্যেক ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যকে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীকে ভোট দিতে চাপ দেয়া হচ্ছে। ভোটকেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা থাকবে উল্লে করে সরকার সমর্থক প্রার্থী গোলাম মহীউদ্দিন ভোটারদের বলছেন, যাঁরা তাঁকে ভোট দেবে না, তাঁদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এমন পরিস্থিতিতে ভোটারদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এসব অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী গোলাম মহীউদ্দিন ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘এসব অভিযোগ অসত্য ও বানায়োট। আমি সারাজীবন রাজনীতি করেছি। জেলা পরিষদ প্রশাসকের দায়িত্ব পালনকালে ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। ভোটে পরাজয় জেনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী এসব মিথ্যা অভিযোগ করছেন।’

সংসদ সদস্য নাঈমুর রহমান দুর্জয়ের বিরুদ্ধেও আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রভাব খাটানোর অভিযোগ করছেন রমজান আলী। তার অভিযোগ, দুর্জয় বিভিন্ন সভায় যোগ দিয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর পক্ষে ভোট দিতে ভোটারদেরকে উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টা করছেন। অথচ জেলা পরিষদ নির্বাচন আচরণ বিধিমালার ২২ নম্বর ধারার ১ নম্বর অনুচ্ছেদ অনুযায়ী তিনি এটা করতে পারেন না।

লিখিত অভিযোগ রমজান আলী দুর্জয়ের বিরুদ্ধে তাঁর নির্বাচনী এলাকা ঘিওর, দৌলতপুর ও শিবালয় উপজেলার ভোটারদের ঘুষ দেয়ার অভিযোগও করেছেন। 

তবে সংসদ সদস্য দুর্জয় তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘কারো পক্ষে ভোট চাইতে নয়, আমি উন্নয়নমূলক কাজের কথা সাধারণ মানুষের কাছে তুলে ধরতে আমার নির্বাচনী এলাকায় যাই।’
   
মানিকগঞ্জ পৌরসভার মেয়র গাজী কামরুল হুদা সেলিমের বিরুদ্ধে সরকারি গাড়ি ব্যবহার করে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী গোলাম মহিউদ্দীনের পক্ষে প্রচার চালানোর অভিযোগও করেন রমজান আলী। তবে এই অভিযোগকেও বানোয়াট বলেছেন কামরুল হুদা।

জানতে চাইলে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মুনীর হোসাইন খান ঢাকাটাইমসকে জানান, লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর এ বিষয়ে আইনি পদক্ষেপ নিতে তিনি রিটার্নিং কর্মকর্তাকে বলবেন।

আগামী ২৮ ডিসেম্বরের জেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটকে সামনে রেখে মানিকগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে পাঁচজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এদের মধ্যে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী গোলাম মহীউদ্দিন ‘আনারস’, মানিকগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র রমজান আলী মোবাইল ফোন, গণফোরাম নেতা মফিজুল ইসলাম খান ‘প্রজাপতি’ এবং দুই স্বতন্ত্র প্রার্থী বজলুল হক খান ‘কাপ-পিরিচ’ এবং কাজী রফিকুল ইসলাম ‘তালগাছ’ প্রতীকে নির্বাচন করছেন। 

এ ছাড়া ১৫ টি ওয়ার্ডে সদস্য পদে ৫৪ জন এবং পাঁচটি ওয়ার্ডে সংরক্ষিত (নারী) সদস্যপদে ১৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

ঢাকাটাইমস/২৫ডিসেম্বর/প্রতিনিধি/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত