চুয়াডাঙ্গায় ব্যবসায়ীদের ধর্মঘট চলছে, এসপির অপসারণ দাবি

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১২ জুন ২০১৭, ১৪:৩৬

পুলিশ সুপারের হাতে দুই ব্যবসায়ী নেতা লাঞ্ছিতের প্রতিবাদে ও অভিযুক্ত পুলিশ সুপারকে অপসারণের দাবিতে চুয়াডাঙ্গায় ব্যবসায়ীদের ডাকা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট দ্বিতীয় দিনের মতো অব্যাহত আছে। ধর্মঘটের কারণে জেলা শহরের ছোট-বড় সব ধরনের দোকান বন্ধ রয়েছে। শহরের বিপনি বিতানগুলোর পাশাপাশি কাঁচা বাজার, মাছ মুরগি ও মাংসের দোকানও বন্ধ রেখেছেন ব্যবসায়ীরা। এদিকে, সোমবার দুপুরে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন জেলা দোকান মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ। সংবাদ সম্মেলনে রবিবারের ঘটনার বর্ণনা তুলে ধরেন সাধারণ সম্পাদক ইবরুল হাসান জোয়ার্দ্দার ইবু।

লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, চুয়াডাঙ্গার পুলিশ সুপার নিজাম উদ্দীন যোগদানের পর থেকেই জেলার আইন-শৃ্ঙ্খলার চরম অবনতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ব্যবসায়ীরা চরম অনিশ্চিত ও আতঙ্কে দিনযাপন করছেন।

এসময় ব্যবসায়ী নেতারা হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন, আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে পুলিশ সুপারকে চুয়াডাঙ্গা থেকে অপসারণ না করা হলে হরতাল অবরোধ ও পুলিশ সুপারের কার্যালয় ও বাসভবন ঘেরাও করার মত কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে। একই সাথে তাদের চলমান ব্যবসায়িক ধর্মঘট অব্যাহত রাখারও ঘোষণা দেয়া হয়।

সংবাদ সম্মেলন শেষে শহরে একটি বিক্ষোভ মিছিল করে সাধারণ ব্যবসায়ীরা। পরে শহরের শহীদ হাসান চত্বরে গিয়ে শেষ হয়।

চুয়াডাঙ্গা জেলা দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হাজী আশাদুর রহমান লেমন জানান, চলমান আন্দোলন সংগ্রাম বর্তমানে শহরের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও দু-এক দিনের মধ্যে তা ছড়িয়ে দেয়া হবে জেলাব্যাপী। বিকালে এ বিষয়ে কার্যনির্বাহী কমিটির জরুরি সভাও আহ্বান করা হয়েছে।

এদিকে, ঈদকে সামনে রেখে আকস্মিক এই ধর্মঘটে চরম বিপাকে পড়েছে ভোক্তা ও ক্রেতা সাধারণরা। তাদের দাবি দ্রুত এ সমস্যার অবসান হউক।

প্রসঙ্গত, রবিবার দুপুরে শহরের রেল বাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করতে গেলে ব্যবসায়ীদের প্রতিরোধের মুখে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যজিস্ট্রেট হাকিম ফখরুল ইসলাম। ক্ষুব্ধ ব্যবসায়ীরা এ সময় ওই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের অবরুদ্ধ করে রাখে।

খবর পেয়ে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছান। পরে ব্যবসায়ী নেতাদের সাথে পুলিশ সুপারের উত্তপ্ত কথা কাটাকাটি ও বাদানুবাদের ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ সুপার নিজাম উদ্দীন ব্যবসায়ী দুই নেতাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন। এ অভিযোগে দুপুরের পর থেকেই ব্যবসায়ীরা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দেয়।

(ঢাকাটাইমস/১২জুন/প্রতিনিধি/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত