রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় সুগন্ধি পানীয়

ফিচার ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০২ আগস্ট ২০২০, ০৭:৫৭

পানি শরীরে ক্লান্তিভাব দূর করে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। কিন্তু সেই পানীয়টা যদি হয় সুগন্ধি তবে তো কথাই নেই। আজকের প্রতিবেদনে আপনাদেরকে সুগন্ধি পানীয়ের নানা ধরন জানিয়ে দেয়া হলো।

•এক চামচ ত্রিফলা অর্থাৎ শুকনো আমলকি, হরিতকি ও বহেরা নামে তিনটি ফলের চূর্ণ এক গ্লাস পানিতে সারা রাত ভিজিয়ে সকালে খালিপেটে খেলে পেট পরিষ্কার হয়, তা সবাই জানেন। কিন্তু জানেন না যে, এর আরও কত গুণ আছে!

অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট গুণের জন্য এই মিশ্রণ প্রদাহ কম রাখে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, ফ্লু ঠেকাতে কাজে আসে। উষ্ণ পানিতে গুলে খেলে গলা ব্যথা কমে। এর সঙ্গে এক চিমটি দারচিনির গুঁড়ো ও একচামচ মধু মিশিয়ে খেলে স্বাদ-গন্ধ ও উপকার বাড়ে।

•এক চামচ মেথি শুকনো কড়াইয়ে ভেজে গুঁড়ো করে এক গ্লাস পানিতে মিশিয়ে সকালে খালি পেটে খেলে ডায়াবেটিস ও ক্ষতিকর কোলেস্টেরল, এলডিএল-এর প্রকোপ কমে। প্রদাহ কমে বলে বাড়ে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা।হজমও ভাল হয়।

•মৌরির পানি বানাতে পারেন দু-ভাবে। হয় এক গ্লাস পানিতে এক চামচ মৌরি সারা রাত ভিজিয়ে রেখে সকালে ছেঁকে খান। নয়তো এক গ্লাস পানি ফুটিয়ে তাতে এক চামচ মৌরি দিয়ে ঢাকা দিয়ে রাখুন ২-৩ মিনিট। ছেঁকে চায়ের মতো খান। স্বাদ ও গুণ বাড়াতে অল্প লেবুর রস ও এক চামচ মধু মিশিয়ে নিতে পারেন।ঠান্ডা করেও খেতে পারেন।নিমেষে তরতাজা লাগবে। পেট ফাঁপা, গ্যাস, বদহজমের উপসর্গ কমবে কিছুটা। শরীরে জমা পানি বের হওয়ার সুরাহা হবে। কম থাকবে উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিসের প্রকোপও।

•এক চা চামচ সাদা জিরে, দেড় কাপ পানি, আধ চা চামচ মধু নিন।কড়াইতে জিরা হালকা করে ভেজে দেড় কাপ পানি দিয়ে ৩-৪ মিনিট ফোটান। ঠান্ডা হলে ছেঁকে মধু মিশিয়ে পানিটা খেয়ে নিন।এতে ওজন যেমন কমবে, হজম শক্তিও বাড়বে।

• সিকি কাপ পুদিনা পাতা এক কাপ ফুটন্ত পানিতে দিয়ে ১৫ মিনিট ঢেকে রাখুন। ঠান্ডা হলে তাতে ৭ কাপ পানি মিশিয়ে বোতলে ভরে ফ্রিজে রেখে দিন এক ঘণ্টা।সুগন্ধ সবচেয়ে ভাল বের হয় এক দিন পর। এই পানি সারা দিন অল্প করে খান। তরতাজা বোধ করবেন। পেট গরম কম হবে। কম থাকবে ফ্লুয়ের উপসর্গ। নিয়মিত খেলে মস্তিষ্কের কার্যকারিতাও ঠিক থাকে বলে জানা গেছে।

• এক মুঠো টাটকা পুদিনা পাতা হালকা পিষে তাতে মেশান পাতলা করে কাটা লেবুর টুকরো। ৮ কাপ পানিতে মিশিয়ে ফ্রিজে রেখে দিন।২-৩ ঘণ্টা পর থেকে খেতে থাকুন।

• এক চামচ আদা কুচি ও টুকরো করে কাটা লেবু ফুটন্ত পানিতে ১৫ মিনিট ভিজিয়ে ঠান্ডা করে ফ্রিজে রেখে দিন।

• কমলা লেবুর কোয়া টুকরো করে কেটে ৮ কাপ পানিতে মেশান। তাতে দিন ও এক মুঠো তুলসি। ফ্রিজে রেখে ঠান্ডা করুন কম করে এক ঘণ্টা।

• পাতিলেবু, কমলালেবু, চাকতি করে কাটা শসা, আদা কুচি, পুদিনা পাতা মেশান বড় এক বোতল পানিতে। সারারাত ফ্রিজে রাখুন। আপেল, তরমুজ, আঙুর বা অন্য কোনও মৌসুমী ফল দিয়েও বানাতে পারেন এই পানীয়।

• ১-২ লিটার ঠান্ডা পানিতে তরমুজ, শসা, মুসুম্বি বা পাতিলেবুর টুকরো ও ১০-১২টি পুদিনা পাতা দিয়ে রাতভর ভিজিয়ে রেখে সকালে খান।

• ১টি নারকেল, পুদিনা পাতা, ১ চা চামচ মধু, ১ টা পাতিলেবু নিন।নারকেলের পানি বের করে ভেতরটা কুরিয়ে নিন। কোরানো নারকেল ও পানির সঙ্গে পাতিলেবুর রস, পুদিনা পাতা, মধু ভাল করে মিশিয়ে নিন। টানা কাজের মাঝে যখন ক্লান্ত লাগবে, এক গ্লাস খেলে উদ্যম আবার নতুন করে ফিরে আসবে।

(ঢাকাটাইমস/২আগস্ট/এজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :