‘বাজেটে যুব সমাজের চাহিদাকে অগ্রাধিকার দেয়া উচিত’

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৭ মে ২০২১, ১০:১৯

টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে যুব সমাজের চাহিদাকে অগ্রাধিকার দেয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের কার্যনির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. সেলিম উদ্দিন।

সম্প্রতি এসডিজি ইয়ুথ ফোরাম’র উদ্যোগে ‘জাতীয় বাজেট: তারুণ্যের সংলাপ’ শীর্ষক ভার্চুয়াল প্রাক বাজেট সংলাপে অংশ নিয়ে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

সংলাপে বিশেষ আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ড. মো. সেলিম উদ্দিন। তিনি বলেন, টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে যুব সমাজের চাহিদাকে অগ্রাধিকার দেয়া উচিত। এজন্য বাজেটে সংশ্লিষ্ট সকল খাতের সুষম বরাদ্দ, বন্টন ও তা সদ্ব্যবহারের প্রতি গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

সেলিম উদ্দিন বলেন, দরিদ্র্য জনগোষ্ঠি উন্নয়নের পথে অন্তরায়। তাই ২০৩১ সাল নাগাদ দারিদ্র্য হার সর্বনিম্ন পর্যায়ে নামিয়ে আনার যে পরিকল্পনা রয়েছে তা বাস্তবায়ন করতে যুব সম্প্রদায়ের আর্থসামাজিক উন্নয়ন ও সকল বয়সের মানুষের জন্য যেন সমান সুযোগ নিশ্চিত হয় সেদিকে লক্ষ্য রেখে বাজেট প্রণয়ন জরুরি।

মুখ্য আলোচক নাহিম রাজ্জাক এমপি বলেন, করোনার প্রাদুর্ভাবে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে স্বাস্থ্য ও শিক্ষা খাত। বিগত বছরগুলোর অভিজ্ঞতার আলোকে আসন্ন বাজেটে স্বাস্থ্য ও শিক্ষা খাতে পর্যাপ্ত বরাদ্দ করা দরকার। পাশাপাশি কর্মক্ষম জনগোষ্ঠীর সক্ষমতাকে কাজে লাগাতে উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করা ও তাদের জন্য উপযোগী ব্যবস্থা গড়ে তোলাই হবে সমৃদ্ধ ও টেকসই উন্নয়নের জন্য উপযোগী।

এসডিজি ইয়ুথ ফোরাম’র সভাপতি নোমান উল্লাহ বাহারের সভাপতিত্বে দপ্তর সম্পাদক মিনহাজুর রহমান শিহাব ও ঢাকা টিমের কমিউনিকেশন এক্সিকিউটিভ তনিমা রহমানের যৌথ সঞ্চালনায় এ প্রাক বাজেট সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়।

সংলাপে স্বাগত বক্তব্য দেন এসডিজি ইয়ুথ ফোরামের সাধারণ সম্পাদক দহেন বিকাশ ত্রিপুরা। আরও অংশ নেন যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর চট্টগ্রাম’র উপপরিচালক প্রজেশ কুমার সাহা, রিহ্যাবের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি আব্দুল কৈয়ুম চৌধুরী, ইপসা’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুর রহমান, যুগান্তর সমাজ উন্নয়ন সংস্থার পরিচালক সাঈদুল আরেফিন, এফবিসিসিআই সদস্য ইঞ্জিনিয়ার ইমরান, ব্যবসায়ী লায়ন এম.এ. মান্নান, এসডিজি ইয়ুথ ফোরামের ঢাকা টিমের কো-অর্ডিনেটর ফারহানা বারী, ওব্যাট হেল্পার্সের কান্ট্রি ম্যানেজার সোহেল আখতার খান, এনট্রাপ্রিনিউয়ার এন্ড ই-কমার্স ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি অলিউর রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাপ্লাই চেইন অ্যালায়েন্সের সভাপতি আবির আহমেদ, তারুণ্যের প্রতীক বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি জি.এম. তাওসিফ, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ডেমোক্রসি এন্ড ডেভেলপমেন্টের জুনিয়র রিসার্চার আইভি আক্তার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রিসার্চ সোসাইটির সদস্য সৈকত দাশ, ত্রিপুরা স্টুডেন্টস ফোরামের কেন্দ্রীয় সভাপতি প্রেম কুমার ত্রিপুরা, সোশ্যাল বিজনেস স্টুডেন্টস ফোরামের সভাপতি নাইমুল হায়দার রিজভী, চন্দনাইশ ছাত্র সমিতির সহ-সভাপতি তানভীর আহমেদ সিদ্দিকী, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয় ইকো নেটওয়ার্ক ক্লাবের সদস্য সাদমান সাকিব, সোসাইটি ফর লিডারশীপ স্কিল ডেভলপমেন্টের সদস্য মশিউর রহমান, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ইয়াং ইকোনমিস্ট সোসাইটির সভাপতি মিশুক রায়, এসডিজি ইয়ুথ ফোরাম সদস্য হাসান উদ্দীন প্রমুখ।

প্রজেশ কুমার সাহা বলেন, ডেমোগ্রাফিক বিশ্লেষণে দেখা যায় বাংলাদেশের জনসংখ্যার ৬০-৭০ শতাংশ কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী রয়েছে যা অন্যান্য অনেক দেশের তুলনায় বেশি। আসন্ন বাজেটে এই কর্মক্ষম জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের দক্ষ ও প্রশিক্ষিত করে তোলার জন্য প্রকল্প সৃজনের মাধ্যমে বরাদ্দ দেওয়া উচিত।

নোমান উল্লাহ বাহার বলেন, তরুণদের জন্য প্রশিক্ষণ প্রসার, দক্ষতা বাড়ানো, শোভন কর্মসংস্থান নিশ্চিতে জাতীয় বাজেটে বিশেষ বরাদ্দ রাখা দরকার। তরুণ উদ্যোক্তাদের প্রণোদনা দিয়ে গতিশীল অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে এগোতে হবে।

ঢাকাটাইমস/৭মে/এমআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :