শেয়ারবাজারে টানা পতনে আজ বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৯ এপ্রিল ২০১৯, ২০:২১

দেশের শেয়ারবাজারে টানা দরপতন চলছেই। অনেকটা যেন বেসামাল হয়ে পড়েছে শেয়ারবাজার। আজ মঙ্গলবারও দেশের উভয় শেয়ারবাজারের সব সূচক কমেছে।

একই সঙ্গে কমেছে টাকার পরিমাণে লেনদেন এবং লেনদেনে অংশ নেয়া বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দর।

ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই ও সিএসই) সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

অব্যাহত পতনের প্রতিবাদে গতকালের মতো আজও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সামনে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছেন বিনিয়োগকারীরা। বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের ব্যানারে এই মানববন্ধন করা হয়।

আজ ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৫৩ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৩১৮ পয়েন্টে, যা গত ৩ মাস ১৫ দিন বা ৬৭ কার্যদিবসের মধ্যে সর্বনিম্ন। এর আগে ২০১৮ সালের ২৪ ডিসেম্বর আজকের চেয়ে কমে অবস্থান করছিল ডিএসইএক্স। ওই দিন ডিএসইএক্স ছিল ৫ হাজার ৩০০ পয়েন্টে।

আজ অপর দুই সূচকের মধ্যে শরিয়াহ সূচক ৭ পয়েন্ট ও ডিএসই-৩০ সূচক ২৪ পয়েন্টে কমে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১২৩২ ও ১৯০০ পয়েন্টে।

ডিএসইতে আজ টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ৩৬৫ কোটি ৯১ লাখ টাকার, যা আগের দিনের চেয়ে ৫৩ কোটি টাকা কম। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৪১৮ কোটি টাকার শেযার।

আজ ডিএসইতে ৩৪৭টি প্রতিষ্ঠান লেনদেনে অংশ নেয়। এর মধ্যে শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে ৫৭টির বা ১৬ শতাংশের, কমেছে ২৩১টির বা ৬৭ শতাংশের। অপরিবর্তিত রয়েছে ৫৯টির বা ১৭ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দর।

ডিএসইতে আজ টাকার পরিমাণে সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে এস্কয়্যার নিট কম্পোজিটের। কোম্পানিটির ৩২ কোটি ৮০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ২৩ কোটি ২৮ লাখ টাকার লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে ইউনাইটেড পাওয়ার এবং ২০ কোটি ৭০ লাখ টাকা লেনদেনে তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে বৃটিশ আমেরিকান ট্যোবাকো।

টপটেন লেনদেন উঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে রয়েছে- ইস্টার্ন কেবলস, গ্রামীণফোন, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল, ফরচুন সুজ, মুন্নু সিরামিক, রেকিট বেনকিজার এবং স্কয়ার ফার্মা।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই আজ ১৬৫ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৬ হাজার ৩১৩। এদিন সিএসইতে হাতবদল হওয়া ২৩৫টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ারদর বেড়েছে ৫২টির, কমেছে ১৬২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২১টির দর। সিএসইতে আজ ১৮ কোটি ৯৩ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

পুঁজিবাজারে টানা দরপতনে ক্ষোভ বাড়ছে ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের মধ্যে। আজ মানববন্ধনে বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের সভাপতি মিজান-উর-রশিদ চৌধুরী বলেন, শেয়ারবাজারে পতন হওয়ার মতো কিছু ঘটেনি। পাতানো খেলার মাধ্যমে বাজারে কৃত্রিম প্রভাব ফেলানো হচ্ছে। এতে ২০১০ সালের রাঘববোয়ালরা জড়িত। তাদের আইনের আওতায় আনলে সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে বলে মনে করেন তিনি।

শেয়ারবাজারের বর্তমান মন্দাবস্থায় আইসিবি শেয়ার কেনার ক্ষেত্রে নিষ্ক্রিয় রয়েছে অভিযোগ করে মিজান-উর-রশিদ বিষয়টি তদন্ত হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন।

মিজান-উর-রশিদ বলেন, শেয়ারবাজারকে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলো একটি লুটপাট করার জায়গা হিসেবে বেছে নিয়েছে। আর সাধারণ বিনিয়োগকারীরা না বুঝে সেই লুটপাটের শিকার হচ্ছে। বর্তমানে ৭৬টি কোম্পানি ইস্যু মূল্যের নিচে অবস্থান করছে। কিন্তু নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসেবে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) এদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

(ঢাকাটাইমস/৯এপ্রিল/আরএ/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত