বাংলাদেশ ফাইন্যান্সে দুই বিলিয়ন ডলার বিদেশি বিনিয়োগ কোথায়?

বীর সাহাবী, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৪ মে ২০২২, ২২:০২ | প্রকাশিত : ১৪ মে ২০২২, ১৫:২৫

বাংলাদেশ ফাইন্যান্সে (বিডি ফাইন্যান্স) যুক্তরাষ্ট্রের বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান সভেরন ইনফ্রাস্ট্রাকচার গ্রুপ—এসআইজি যে দুই বিলিয়ন ডলার ‍বিনিয়োগের ঘোষণা এসেছিল, এক বছর পরও সেই বিনিয়োগ না আসায় প্রশ্ন উঠেছে।

বাংলাদেশ ফাইন্যান্স যুক্তি দেখাচ্ছে, বাংলাদেশে যে কোনো স্থানীয় ঋণদাতাকে বিদেশি বিনিয়োগ আনার ক্ষেত্রে গড়ে ২ বছর বা তারও বেশি সময় লাগে। তাদের ক্ষেত্রে এটা মাত্র এক বছর এক মাসে গড়িয়েছে।

২০২১ সালের ৮ এপ্রিল পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আর্থিক খাতের প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ফাইন্যান্সের সঙ্গে এসআইজি ২ বছরে ২ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করবে বলে সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) হয়েছিল।

সেসময় বাংলাদেশ ফাইন্যান্সের পক্ষ থেকে বলা হয়, সমঝোতা অনুযায়ী এসআইজি এমওইউ সাক্ষরের পরবর্তী দুই বছর বাংলাদেশের অবকাঠামোগত প্রকল্পের জন্য ২ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করবে। এই অর্থের মধ্যে সেকেন্ডারি মার্কেট থেকে শেয়ার কেনার জন্যও দেয়া হবে ৪০ মিলিয়ন ডলার।

তবে এক বছরের বেশি সময় পরও সেই বিনিয়োগ আসেনি। সেই বিনিয়োগ কোথায় বা বিনিয়োগের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে ঢাকাটাইমসের প্রশ্নে জবাবে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. কায়সার হামিদ বলেন, ‘বিনিয়োগের বিষয়ে সবশেষ ঈদের আগেও এসআইজির সঙ্গে আমাদের মিটিং হয়েছে।’

‘তাদের কাছে আমাদের অনেকগুলো প্রপোজাল আছে, তারাও আমাদের অনেকগুলো টার্মশিট দিয়েছে। আমরা উভয় পক্ষ লিগ্যাল কাউন্সিল নিয়োগ দিয়েছি। কিছু ডকুমেন্টশনের ড্রাফটিং বাকি আছে, সেগুলির কাজ চলছে’— যোগ করেন বাংলাদেশ ফাইন্যান্সের এমডির পাশাপাশি সিইও কায়সার হামিদ।

বিনিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে আর কত সময় লাগবে জানতে চাইলে ঢাকাটাইমসকে তিনি বলেন, ‘একটা প্রপোজাল শেষ করতেই তিন থেকে চার মাস সময় লেগে যায়। এখানে অনেকগুলো প্রপোজাল আর প্রতেক্যটা প্রপোজালের যে পরিমাণ অ্যারেঞ্জমেন্ট বা স্ট্রাকচার থাকে সেই অনুযায়ী ডকুমেন্টেশন, রিক্রুটাইজেশনগুলো তৈরি হয়। এটার পরে আবার রেগুলেটরির অ্যাপ্রুভাল নিতে হয়।’

বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত যতগুলো ফরেন ফান্ডিং হয়েছে দুই-তিন বছরের বেশি সময় লেগেছে দাবি করেন বাংলাদেশ ফাইন্যান্সের এই এমডি। তার ভাষ্য, দুই বছরের আগে প্রজেক্ট ক্লোজ করতে পেরেছে এমনটা তিনি দেখেননি।

এর আগে ২০২১ সালের ৯ ডিসেম্বর বাংলাদেশ ফাইন্যান্সের সঙ্গে এসআইজির বিনিয়োগ সমঝোতার বিষয়ে বিশদ জানতে চেয়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ—ডিএসইকে চিঠি দিয়েছিল নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি। সমঝোতা স্মারকের বিষয়টি খতিয়ে দেখতে তিন সদস্যের একটি কমিটিও গঠন করেছিল ডিএসই।

সেই বিষয়ে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সের এমডি কায়সার হামিদ ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘ডিএসই থেকে যে সময়ের মধ্যে যা যা চাওয়া হয়েছিল আমরা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই সবকিছু জমা দিয়েছি।’

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোনো প্রতিষ্ঠানের বিদেশি বিনিয়োগের ঘোষণা দেওয়া এবং তা আনতে দেরি হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন—বিএসইসি কমিশনার ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘যেকোনো প্রতিষ্ঠানই হোক না কেন বিনিয়োগ না আসার আগে এভাবে ঘোষণা দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। এটা আইনের পরিপন্থী। যেদিন বিনিয়োগ আসবে ঠিক সেদিনই পিএসআই আকারে সেই প্রতিষ্ঠান থেকে ঘোষণা দিতে হবে।’

(ঢাকাটাইমস/১৪মে/বিএস/ডিএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অর্থনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :