কুড়িগ্রামে গাছ তলায় পাঠদান, পিছিয়ে পড়ছে শিক্ষার্থীরা

সাইফুর রহমান শামীম, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৮ মে ২০১৭, ১১:২১ | প্রকাশিত : ২৮ মে ২০১৭, ১১:১৩

শ্রেণি কক্ষের সংকটে বিদ্যালয়ের পাঠদান চলছে খোলা আকাশের নিচে গাছ তলায়। কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার পাত্রখাতা ব্যাপারীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চিত্র এটি। বিভিন্ন অবকাঠামোসহ শিক্ষক সংকটের কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা যায়। দিনের পর দিন পড়ালেখায় এভাবে বিঘ্ন ঘটায় অন্যান্য বিদ্যালয়ের তুলনায় পড়া-লেখায় পিছিয়ে পড়ছে শিক্ষার্থীরা।

সরেজমিনে দেখা গেছে- তিন রুম বিশিষ্ট একটি পুরনো ভবন থাকলেও সেটিও হয়ে পড়েছে ঝুঁকিপূর্ণ। ওই ভবনে ভয়-ভীতির মধ্যে অন্যান্য শিক্ষার্থীরা ক্লাস করলেও কক্ষ আর অবকাঠামোর অভাবে ১ম শ্রেণির ৪০ জন শিক্ষার্থীকে পাঠ নিতে হচ্ছে খোলা আকাশের নিছে গাছ তলায়।

১৯৮৫ সালে কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার পাত্রখাতা মিনাবাজার এলাকায় ব্যাপারী পাড়া গ্রামে স্কুলটি প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠার কিছুদিন পর একটি তিন রুম বিশিষ্ট ভবন নির্মাণ হলেও তা এখন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই ছাদ বেয়ে পানি পড়ে। ফলে শিক্ষার্থীদের বৃষ্টির সময় এক পাশে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়।

স্থান সংকুলান না হওয়ায় প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বসানো হয়েছে বিদ্যালয়ের মাঠে থাকা একটি গাছ তলায়। ঝুঁকিপূর্র্ণ ভবনের সাথে সাথে খোলা আকাশের নিচে পাঠদান অব্যাহত থাকায় বিদ্যালয়টির শিক্ষার মান দিন দিন পিছিয়ে পড়ছে।

এতে শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি অভিভাবকরাও পড়েছেন মহা চিন্তায়। এ কারণে অনেক অভিভাবক সন্তানদের অন্য দূরের স্কুলে ভর্তি করছেন বলেও জানান এলাকাবাসী।

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানায়, অনেক দিনের পুরানো এই ভবনে আমাদের ক্লাস করতে ভয় করে। আর বৃষ্টি হলে তো ছুটি ছাড়া উপায় নাই।

১ম শ্রেণির শিক্ষার্থী শিফাত অভিযোগ করে, খোলা আকাশের নিচে পড়াশুনা করতে ভালো লাগে না।

এ ব্যাপারে শ্রেণি শিক্ষক মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, খোলা স্থানে গাছ তলায় পাঠদান দিতে হচ্ছে। পড়ার সময় ছাত্র/ছাত্রীদের মনোযোগ অন্যদিকে চলে যায়।

ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ও শ্রেণি সংকটের কথা স্বীকার করে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক শাহেদুল ইসলাম বলেন, শ্রেণি সংকটের কারণে শিক্ষার গুণগত মান ধরে রাখা সম্ভব হচ্ছে না।

এব্যাপারে চিলমারী উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শাখাওয়াৎ হোসেন জানান, ভবন ঝুঁকিপূর্র্ণ কি না তা দেখার দায়িত্ব স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের। আর উক্ত বিদ্যালয়ের শ্রেণি সংকটের বিষয়টি আমার জানা নেই।

ঢাকাটাইমস/২৮মে/প্রতিনিধি/ইএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত