জরিমানার পর চা-দোকানিকে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিলেন ম্যাজিস্ট্রেট

নাটোর প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৩ এপ্রিল ২০২০, ০১:১৫

‘সাত-আটজন কাস্টমার গোল হয়ে চায়ের কাপ হাতে নিয়ে আড্ডা দিচ্ছে। এসময় ভ্রাম্যমাণ আদালতের উপস্থিতি টের পেয়ে সবাই কাপ ফেলে পালিয়ে যায়। পড়ে থাকে শুধু দোকানি। এসময় গণজমায়েত সৃষ্টি করে সে অপরাধ করেছে কিনা জানতে চাইলে, অপরাধ স্বীকার করে। আদালতের নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করে। পরে তাকে ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়। কিন্তু জরিমানার টাকা পরিশোধের সময় তার চোখের কোণায় যে কষ্ট দেখেছিলাম- তা বারবার মনে পীড়া দিচ্ছিল। তাই সকালে উঠেই ওই দোকানিকে খুঁজে বের করে তার হাতে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিয়ে এসেছি।’

এমনই এক ঘটনা ঘটেছে সিংড়া পৌর এলাকায়। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করতে গিয়ে তার ফেসবুকে পুরো ঘটনার এভাবে বর্ণনা দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল আলম।

করোনার প্রভাব মোকাবিলা করতে গিয়ে প্রতিদিনই কোন না কোন ঘটনা ঘটছে। অনেক সময় দিন এনে দিন খাওয়া মানুষদের জরিমানাও করতে হচ্ছে বাধ্য হয়েই। তবে চা দোকানিকে জরিমানার ঘটনা মনে দাগ কেটেছে এ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের।

তিনি ফেসবুকে লেখেন, ‘রাত নয়টার দিকে সব অভিযান শেষ করে রুমে ফিরে আসার পর ওই চা দোকানির মুখখানাই চোখের সামনে ভাসছিল। জরিমানার টাকা পরিশোধ করার সময় তার চোখের কোণায় যে কষ্ট দেখেছিলাম- তা বারবার পীড়া দিচ্ছিল আমাকে। রাতেই কল দিলাম সিংড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসরিন বানু স্যারকে এবং চা দোকানির আর্থিক অবস্থা ব্যাখ্যা করে কোন সাহায্য করা যায় কিনা দেখবার জন্য অনুরোধ করি।

স্যার সাথে সাথেই সম্মতি দেন এবং আমাকে নির্দেশ দেন, যত সকালে সম্ভব পিআইও’র নিকট থেকে ত্রাণ সংগ্রহ করে চা দোকানির বাড়ি খুঁজে বের করে ত্রাণ পৌঁছে দিই।

স্যারের নির্দেশনায় বৃহস্পতিবার সকালে ত্রাণ নিয়ে ওই চা দোকানির নিকট যাই এবং তাকে ত্রাণ হিসেবে মোট ১৫ কেজি চাল, ২ লিটার সয়াবিন তেল, ২ কেজি মসুরের ডাল, ২ কেজি আলু, ১টি লাইফবয় সাবান ও ১টি পাচশ গ্রাম হুইল পাউডার প্রদান করা হয়।

এই ত্রাণসামগ্রী পেয়ে তার মুখে ফুটে উঠল হাসি। গতরাত থেকে যে অন্তর্দাহে জ্বলছিলাম তা এই অকৃত্রিম হাসি দেখে কিছুটা হলেও লাঘব হলো।’

(ঢাকাটাইমস/৩এপ্রিল/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত