বিরোধী নেতাকে দেখতে যাওয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের ওপর ক্ষিপ্ত উগান্ডা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৯ জানুয়ারি ২০২১, ১৬:৫৫

উগান্ডার সরকার যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফল পাল্টে দেয়ার চেষ্টার অভিযোগ এনেছে। গার্ডিয়ানের খবরে বলা হয়েছে, জনসম্মুখে সচরাচর মিত্ররাষ্ট্র যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে উগান্ডা এ ধরনের বার্তা এর আগে কখনো দেয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তার উগান্ডার সৈন্যবাহিনী সোমলিয়ায় শান্তিরক্ষা মিশনে কাজ করছে। গত তিন বছর যুক্তরাষ্ট্র দেশটির স্বাস্থ্য খাতে ১.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সহায়তা দিয়েছে।

গত শনিবার উগান্ডার সাধারণ নির্বাচনের ফল ঘোষণা করা হয়। নির্বাচন কমিশন চেয়ারম্যান সাইমন মুগেনিই উগান্ডার দীর্ঘদিনের শাসক ইওয়েরি মুসেভেনিকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে বিজয়ী ঘোষণা করেন। নির্বাচন কমিশন জানায়, নির্বাচনে মুসেভেনি ৫.৮৫ মিলিয়ন ভোট বা ৫৮.৬৪ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। আর প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ববি ওয়াইন ৩.৪৮ মিলিয়ন বা ৩৪.৮৩ শতাংশ ভোট পেয়েছে।

ববি ওয়াইনের দল সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে ব্যালট বক্স পূর্ণ করা, জালভোট দেয়া এবং ভোটকেন্দ্র থেকে ভোটারদের তাড়িয়ে দেবার ভিডিও প্রমাণ আছে বলে দাবি করেছে। নির্বাচনের ফলাফল বর্জন করে তারা আইনি লড়াইয়ের ঘোষণা দিয়েছে। কিন্তু পুলিশ ও সেনাবাহিনী ববি ওয়াইনের প্রধান রাজনৈতিক কার্যালয় ঘিরে রেখেছে।

গত বৃহস্পতিবার নির্বাচনের দিন ভোট দেয়ার পর সেনাবাহিনীর সদস্যরা ববি ওয়াইনকে গৃহবন্দি করে রাখে। উগান্ডায় নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত ন্যাটালি-ই ব্রাউন গৃহবন্দি ববি ওয়াইনকে দেখতে যাচ্ছিলেন। কিন্তু তাকে সেখানে যেতে বাধা দেয়া হয়েছে বলে দূতাবাসের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

তবে ‍উগান্ড সরকারের মুখপাত্র অফোনো অপোনডো ববি ওয়াইনের কাছে ব্রাউনের কোনো কাজ নেই উল্লেখ করে বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত যা করার চেষ্টা করছে সেটা স্পষ্টত উগান্ডার অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে হস্তক্ষেপের শামিল। তারা ভোট এবং জনগণের মতামত পাল্টে দেয়ার চেষ্টা করছে।’ কূটনৈতিক শিষ্টাচারের বিরুদ্ধে যায় এমন কিছু করা উচিত নয় উল্লেখ করে ব্রাউন পূর্বে যেখানে কাজ করতেন সেখানেও সমস্যা সৃষ্টি করার রেকর্ড আছে বলে দাবি করেন তিনি।

তবে উগান্ডার সরকারের অভিযোগের বিষয়ে তাৎক্ষণিক কোনো মন্তব্য করেননি যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত ব্রাউন। দূতাবাস গত সপ্তাহে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের সমালোচনা করে বলেছে, নির্বাচনে বিরোধীদের ভীতি প্রদর্শন, গণমাধ্যম এবং মানবাধিকার কর্মীদের টুটি চেপে ধরা হয়েছে এবং দেশব্যাপী ইন্টারনেট বন্ধ করা হয়েছে। এমন নীতিহীন কর্মকাণ্ড এবং বিরোধী দলীয় নেতাকে গৃহবন্দি করে রাখা উগান্ডার গণতন্ত্রের জন্য উদ্বেগজনক প্রবণতা বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়। যদিও উগান্ডার সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে ববি ওয়াইনের নিরপত্তার জন্যই তাকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে।

গত সপ্তাহে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন কোনো পর্যবেক্ষক পাঠায়নি। কারণ উগান্ডা কর্তৃপক্ষ তাদের প্রবেশের অনুমতি দেয়নি। গত নভেম্বরে ববি ওয়াইনকে গ্রেপ্তারের পর উগান্ডাজুড়ে সহিংসতায় ৫৪ জন নিহত হয়।

(ঢাকাটাইমস/১৯জানুয়ারি/কেআই/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :