বালিয়াডাঙ্গীর আরও ৮০০ ভূমিহীন পরিবার ঘর পাচ্ছে

বদরুল ইসলাম বিপ্লব, ঠাকুরগাঁও
| আপডেট : ০২ জুন ২০২১, ১৩:৪৭ | প্রকাশিত : ০২ জুন ২০২১, ১৩:৩৪

‘আশ্রয়ণের অধিকার, শেখ হাসিনার উপহার’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার আরও ৮০০ পরিবার পাচ্ছে ঘর। এ উপলক্ষে ৩০টি খাস জমিতে নির্মাণ কাজ চলছে জোরেশোরে। চলতি মাসে এসব ঘর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার আটটি ইউনিয়নে অসহায় ও দরিদ্র ভূমিহীন পরিবারের জন্য দ্বিতীয় পর্যায়ে নির্মাণ হচ্ছে এই ৮০০ ঘর। বড়বাড়ি ইউনিয়নের আধার দিঘি, জাউনিয়া গ্রামসহ প্রায় ৩০টি স্থানে সরকারি জমিতে দুই মাস আগে প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর আওতায় ৮০০ ঘর নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। প্রতিটি ঘরের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে এক লাখ ৯০ হাজার টাকা। খাস জমিতে এসব গৃহ নির্মাণ কাজ শেষের দিকে।

প্রতিটি ঘরে দুটি কক্ষ, একটি করে বারান্দা, রান্না ঘর ও বাথরুম, বিদ্যুৎ সংযোগসহ নানা সুযোগ সুবিধা রাখা হয়েছে। এছাড়াও সুবিধাভোগী প্রতিটি পরিবারকে দুই শতক করে জমি বরাদ্দ দেয়া হবে।

উপজেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে নির্মাণাধীন এসব ঘরের কাজের মান নিয়মিত পরিদর্শন করছেন জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা যোবায়ের হোসেনসহ অন্যান্য নেতা।

সরজমিনে জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার নির্মাণাধীন বিভিন্ন প্রকল্প এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, লাল-সবুজের রঙে রঙিন এসব ঘর দৃষ্টিনন্দন লাগছে। এসব ঘরে বরাদ্দ তালিকাভুক্ত একাধিক সুবিধাভোগী প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

উপকারভোগী আলাল হোসেন বলেন, আমি ভিক্ষা করে জীবিকা নির্বাহ করি। আমার মাথা গোজার ঠাঁই ছিল না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে একটি ঘর উপহার দেবেন, যে ঘর কোনোদিন নির্মাণের কথা কল্পনাও করতে পারি না। আমি তার জন্য প্রাণভরে দোয়া করছি।

করিমন বেওয়া নামে একজন বিধবা জানান, আমার স্বামী নাই। কাজ করতাম অন্যের বাড়িতে। ঘরের অভাবে যেখানে সেখানে পড়ে থাকতাম। রাতে নিজের ঘরে ঘুমাতে পারব কল্পনাও করতে পারিনি। এখন আমার সে দুশ্চিন্তার দিন শেষ হতে চলেছে।

হলদিবাড়ী গ্রামের সাহেদা বেগম জানান, মাঠে ঘাটে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতাম। রাত হলেই কোনোমতে পড়ে থাকতাম একটা ভাঙ্গা খুপড়ি ঘরে। নিজের একটা ঘর হবে সেটা স্বপ্নেও ভাবিনি। এবার প্রধানমন্ত্রীর কারণে একটি সুন্দর ঘরের মালিক হব, ভেবেও ভাল লাগছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা যোবায়ের হোসেন জানান, প্রথম দফায় ১৬৬টি গৃহহীন পরিবারকে ঘর দেওয়া হয়েছে। দ্বিতীয় ধাপের আরও ৮০০ ঘর নির্মাণ কাজ শেষের দিকে। ইতোমধ্যে ঘর বরাদ্দ দেওয়ার জন্য প্রতিবন্ধী, স্বামী পরিত্যক্তা, বিধবা ও অতিদরিদ্র পরিবার বাছাই করে তালিকা তৈরি করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক কেএম কামরুজ্জামান সেলিম জানান, বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্ন দেখেছিলেন সকল মানুষের বাসস্থান থাকবে বঙ্গবন্ধুর সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করছেন তারই কন্যা শেখ হাসিনা। বালিয়াডাঙ্গীর লাল-সবুজের এসব ঘরের কাজের মানের পাশাাপশি ঘরের ছবি পরিকল্পনা কমিশনে সমাদৃত হয়েছে।

তিনি আরও জানান, প্রথম ধাপে উপজেলায় যাদের ঘর দেওয়া হয়েছে তার নিয়মিত খোঁজ-খবর নেওয়া হচ্ছে এবং তাদের বিভিন্ন সাহায্য-সহযোগিতা দেওয়া হচ্ছে।

(ঢাকাটাইমস/২জুন/পিএল)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :