৫৩ ওষুধের দাম: বাড়ার আগেই বাড়িয়ে বিক্রি, সরবরাহ বন্ধের অজুহাত

আকিবুর রহমান, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৭ জুলাই ২০২২, ১৮:৩৩

দেশে অত্যাবশ্যকীয় ৫৩টি ওষুধের দাম বাড়িয়ে সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য নির্ধারণ করা হচ্ছে। জুনের শেষ দিকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও এখনো পর্যন্ত কোনো কোনো ব্র্যান্ডের ওষুধের দাম বাড়ছে তার ঘোষণা আসেনি। তবে ওষুধগুলি সরবরাহ সংকটের কথা বলে বাড়তি দামেই বিক্রি করা হচ্ছে।

তবে প্যারাসিটামল জেনেরিকেরসহ বেশ কিছু অত্যাবশ্যকীয় ওষুধের সরবরাহ বন্ধ থাকার অভিযোগ পাওয়া গেছে। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ওষুধের দোকানে খোঁজ নিয়ে অভিযোগের সত্যতা মিলেছে।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের সূত্র বলছে, দেশে অত্যাবশ্যকীয় এমন ওষুধের তালিকায় আছে ২১৯টি ওষুধ। এর মধ্যে ১১৭টির সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য নির্ধারণ করে দেয় অধিদপ্তর। এই ১১৭টির মধ্যে প্রাথমিক চিকিৎসায় বহুল ব্যবহৃত ২০টি জেনেরিকের ৫৩টি ব্র্যান্ডের ৫৩টি ওষুধের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য বাড়ছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে গত ৩০ জুন অনুষ্ঠিত ওষুধের মূল্য নির্ধারণ কমিটির ৫৮তম সভায় ওষুধের পুনর্নির্ধারিত দাম অনুমোদন করা হয়। ওষুধগুলোর নাম ও দাম শিগগির প্রকাশ করা হবে।

জানা গেছে, নতুন নির্ধারিত মূল্য অনুযায়ী প্যারাসিটামলের ৫০০ মিলিগ্রামের প্রতিটি ট্যাবলেট ৭০ পয়সা থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে এক টাকা ২০ পয়সা। কিছু ওষুধের দাম বেড়েছে ১০০ শতাংশেরও বেশি। অর্থাৎ আগের চেয়ে দিগুন দামে কিনতে হবে ওষুধগুলো।

এদিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে ওষুধের দাম বাড়ানোর ঘোষণা না দেওয়া হলেও ফার্মেসিতে বেশি দামেই বিক্রি হচ্ছে তালিকায় থাকা ৫৩ ব্র্যান্ডের ওষুধ।

রবিবার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ওষুধ ব্যবসায়ীরা বলছেন, কিছু অত্যাবশ্যক ওষুধের সরবরাহ বন্ধ। সরবরাহ না থাকায় কিছু কিছু ওষুধ বাড়তি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। তবে সরবরাহ কেন বন্ধ তার যৌক্তিক উত্তর তাদের কাছে মেলেনি।

নিউ ইস্কাটন এলাকায় আল জাবের ফার্মার বিক্রেতা শেখ ফরিদ ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘অনেক ওষুধের দাম বাড়ানো হয়েছে। কয়েকদিন ধরে নাপার সাপ্লাই বন্ধ রেখেছে কোম্পানি। কোম্পানি থেকে নতুন মূল্য তালিকা দেওয়া হলেও ওষুধ সরবরাহ করা হয়নি।

মগবাজারে একটি ফার্মেসির ফার্মাসিস্ট নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘নাপাজাতীয় সব ওষুধের দাম বেড়েছে। যেসব ওষুধের দাম বাড়ছে সেসবের সরবরাহ বন্ধ রেখেছে কোম্পানি।’

ওষুধ কিনতে আসা মঈন উদ্দিন নামে এক বেসরকারি কর্মজীবী ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘আমি স্বল্প আয়ের মানুষ। সকল জিনিসের দাম বাড়ছে। কয়েকদিন যাবৎ জ্বরে ভুগছি। ওষুধ কিনতে এসে দেখি প্যারাসিটামল ৬৫০ এমজি ট্যাবলেট (এক্সআর) আগে ১.৩০ টাকা ছিলো এখন দুই টাকা তরে রাখছে। এমোক্সিসিলিন বিপি ৫০০ এমজি ক্যাপসুল আগে ৫ টাকা ৯০ পয়সা ছিলো আজকে ৭ টাকা ৫ পয়সা দিয়ে কিনলাম।’

বেইলি বোড় এলাকায় ওষুধ বিক্রেতা ইমদাদুল হক ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘ওষুধের দাম বৃদ্ধি সম্পর্কে কোম্পানি কিছু জানায়নি। কোম্পানি আমাদেরকে ১২ পার্সেন্ট দেয়। আর কাস্টমাররা ওষুধ কিনতে এসে ৭/৮ পার্সেন্ট দাবি করে। লাভ নাই বললেই চলে।’

যেসব ওষুধের দাম বাড়ছে:

১. প্যারাসিটামল ৫০০ এমজি ট্যাবলেট এর দাম করা হয়েছে এক টাকা ২০ পয়সা, আগে ছিল ৭০ পয়সা।

২. প্যারাসিটামল ৫০০ এমজি ট্যাবলেট (র‌্যাপিড) এর দাম করা হয়েছে এক টাকা ৩০ পয়সা, আগে ছিল ৭০ পয়সা।

৩. প্যারাসিটামল ৬৫০ এমজি ট্যাবলেট (এক্সআর) এর দাম করা হয়েছে দুই টাকা, আগে ছিল এক টাকা ৩১ পয়সা।

৪. প্যারাসিটামল ১০০০ এমজি ট্যাবলেটের দাম করা হয়েছে দুই টাকা ২৫ পয়সা, আগে ছিল এক টাকা ৪ পয়সা।

৫. প্যারাসিটামল ৮০ এমজি ড্রাপস ১৫ এমএল বোতলের দাম করা হয়েছে ২০ টাকা, আগের দাম ১২ টাকা ৮৮ পয়সা।

৬. প্যারাসিটামল ৮০ এমজি ড্রাপস ৩০ এমএল বোতলের দাম হয়েছে ৩০ টাকা, আগের দাম ১৮ টাকা।

৭. প্যারাসিটামল ১২০ এমজি/৫ এমএল সাসপেনশন (৬০ এমএল) বোতলের দাম হয়েছে ৩৫ টাকা, আগের দাম ১৮ টাকা।

৮. প্যারাসিটামল ১২০ এমজি/৫ এমএল সাসপেনশন ১০০ এমএল বোতলের দাম হয়েছে ৫০ টাকা, আগের দাম ৩০ টাকা ৮ পয়সা।

৯. প্যারাসিটামল ১২০ এমজি/৫ এমএল সিরাপ (৬০ এমএল) বোতল দাম ৩৫ টাকা, আগের মূল্য ১৮ টাকা।

১০. প্যারাসিটামল ১২০ এমজি/৫ এমএল সিরাপ (১০০ এমএল) বোতলের দাম করা হয়েছে ৫০ টাকা, আগের মূল্য ২৭ টাকা ৭২ পয়সা।

১১. মেট্রোনিডাজল ২০০ এমজি ট্যাবলেট কোটেড আগের মুল্য ৬০ পয়সা, বর্তমান মূল্য এক টাকা।

১২. মেট্রোনিডাজল ২৫০ এমজি ট্যাবলেট কোটেড’ আগের মুল্য ৯২ পয়সা, বর্তমান মূল্য এক টাকা ২৫ পয়সা।

১৩. মেট্রোনিডাজল ৪০০ এমজি ট্যাবলেট কোটেড আগের মুল্য এক টাকা ৩৭ পয়সা, বর্তমান মূল্য এক টাকা ৭০ পয়সা।

১৪. মেট্রোনিডাজল ৫০০ এমজি ট্যাবলেট কোটেড আগের মুল্য এক টাকা ৬৬ পয়সা, বর্তমান মূল্য দুই টাকা।

১৫. মেট্রোনিডাজল ২০০এমজি/৫এমএল সাসপেনশন ৬০ এমএল বোতলের আগের মুল্য ২৬ টাকা, বর্তমান মূল্য ৩৫ টাকা।

১৬. মেট্রোনিডাজল ২০০এমজি/৫এমএল সাসপেনশন ১০০ এমএল বোতলের আগের মুল্য ৩৪ টাকা ৯২ পয়সা, বর্তমান মূল্য ৪৫ টাকা।

১৭. মেট্রোনিডাজল ৫০০এমজি/১০০ এমএল ইনফিউশন, ১০০ এমএল বোতলের আগের মুল্য ৭৪ টাকা ৩৫ পয়সা, বর্তমান মূল্য ৮৫ টাকা।

১৮. এমোক্সিসিলিন বিপি ১২৫ এমজি/১.২৫ এমএল সাসপেনশন ১৫ মিলি বোতলের আগের ২৬ টাকা ৩৪ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৩৫ টাকা।

১৯. এমোক্সিসিলিন বিপি ১২৫ এমজি/৫ এমএল সাসপেনশন ১০০ মিলি বোতলের আগের ৪১ টাকা ৪০ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৭০ টাকা।

২০. এমোক্সিসিলিন বিপি ২৫০ এমজি/৫ এমএল সাসপেনশন-ডিএস ১৫ মিলি বোতলের আগের ৬৭ টাকা ৯৪ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ১০০ টাকা।

২১. এমোক্সিসিলিন বিপি ২৫০ এমজি ক্যাপসুল, আগের ৩টাকা ১৫ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৪ টাকা।

২২. এমোক্সিসিলিন বিপি ৫০০ এমজি ক্যাপসুল, আগের ৫ টাকা ৯০ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৭ টাকা ৫ পয়সা।

২৩. এমোক্সিসিলিন বিপি ৫০০ এমজি ইনজেকশন, আগের দাম ২৪ টাকা ১০ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৫৫ টাকা।

২৪. জাইলোমেট্রোজালিন এইচসিআই ০.০৫% নাসাল ড্রাপ ১৫ এমএল এর আগের দাম ৯ টাকা ৬০ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ১৮ টাকা।

২৫. জাইলোমেট্রোজালিন এইচসিআই ০.১% নাসাল ড্রাপ ১৫ এমএল এর আগের দাম ১০ টাকা ৪ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ২০ টাকা।

২৬. প্রোকলেপেরাজিন ৫এমজি ট্যাবলেট, আগের দাম ৪০ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৬৫ পয়সা।

২৭. প্রোকলেপেরাজিন ১২.৫ এমজি ইনজেকশন, আগের দাম ৪ টাকা ৩৬ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৯ টাকা।

২৮. ডায়াজেপাম ১০এমজি/২এমএল ইনজেকশন আগে ছিল ৩টাকা ২২ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৭টাকা।

২৯. মিথাইলডোপা ২৫০ এমজি ট্যাবলেটের আগের দাম এক টাকা ৫০ পয়সা, এটি ১৩৪ শতাংশ বেড়ে হয়েছে ৩টাকা ৪৮ পয়সা।

৩০. মিথাইলডোপা ৫০০ এমজি ট্যাবলেটের আগের দাম ছিল ৫ টাকা ১৩ পয়সা, এটি বেড়ে হয়েছে ৬ টাকা ৯ পয়সা।

৩১. ফ্রুসেমাইড ২০ এমজি/২এমএল ইনজেকশনের দাম আগে ছিল ৫ টাকা ৯৯ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৯ টাকা।

৩২. ফ্রুসেমাইড ৪০ এমজি ট্যাবলেট আগে ছিল ৫৬ পয়সা, বেড়ে হয়েছে এক টাকা।

৩৩. ফেনোবারাবিটাল ৩০ এমজি ট্যাবলেটের আগের দাম ছিল ৬৮ পয়সা, বেড়ে হয়েছে এক টাকা।

৩৪. ফেনোবারাবিটাল ৬০ এমজি ট্যাবলেটের আগের দাম ছিল এক টাকা, বেড়ে হয়েছে এক টাকা ৫০ পয়সা।

৩৫. ফেনোবারাবিটাল ৫০ এমএল এলিক্সির ২০এমজি৫ এমএল বোতলের আগের দাম ছিল ২১ টাকা ৭৮ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৪৩ টাকা।

৩৬. ফেনোবারাবিটাল ১০০ এমএল এলিক্সির ২০ এমজি/৫ এমএল বোতলের আগের দাম ছিল ৫০ টাকা, বেড়ে হয়েছে ৭০ টাকা।

৩৭. ওআরএস ৫০০ এমএল স্যাটেস এর আগের দাম ছিল ৪ টাকা ৩৫ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৬টাকা। ৩৮. ওআরএস ফ্রুটি ২৫০ এমএল স্যাটেস এর আগের দাম ছিল ৪ টাকা ৪০ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৬ টাকা।

৩৯. লিডোকেইন ১% ডব্লিউভি, ২০ এমজি/২এমএল ইনজেকশন এর আগের দাম ছিল ৩টাকা ৬ পয়সা, ৯৯ শতাংশ বেড়ে ওষধুটির দাম হয়েছে ৭ টাকা।

৪০. লিডোকেইন ১% ডব্লিউভি, ৫০ এমএল ইনজেকশন এর আগের দাম ছিল ২০ টাকা, বেড়ে ওষধুটির দাম হয়েছে ৩৫ টাকা।

৪১. লিডোকেইন ২% ডব্লিউভি, ৫০ এমএল ইনজেকশন এর আগের দাম ছিল ২৫ টাকা, বেড়ে ওষধুটির দাম হয়েছে ৪০ টাকা।

৪২. ফলিক এডিস ০.০৫ এমজি/১০০এমএল ওরাল সলিউশন (১০০ এমএল বোতল) এর দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৫০ টাকা।

৪৩. ক্লোরফেনিরামিন ২এমজি/৫এমএল সিরাপ (৬০ এমএল বোতল) এর আগের দাম ছিল ১৩ টাকা, বেড়ে হয়েছে ২০ টাকা।

৪৪. বেনজাথিন বেনজিলপেনিসিলিন ১২ লাখ ইউনিট/ভায়ল ইনজেকশন এর আগের দাম ১৫ টাকা ৬০ পয়সা, প্রায় ৯৯ শতাংশা বেড়ে দাম হয়েছে ৩০ টাকা।

৪৫. এ্যসপিরিন ৭৫ এমজি ট্যাবলেটের আগের দাম ছিল ৫৫ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৮০ পয়সা। ৪৬. এ্যসপিরিন ৩০০ এমজি ট্যাবলেটের আগের দাম ছিল দেড় টাকা, বেড়ে হয়েছে ২টাকা।

৪৭. ফেনোক্সিমিথাইল পেনিসিলিন ২৫০ এমজি ট্যাবলেটের আগের দাম ছিল দুই টাকা, বেড়ে হয়েছে ২ টাকা ৮০ পয়সা।

৪৮. ফেনোক্সিমিথাইল পেনিসিলিন ৫০০ এমজি ট্যাবলেটের আগের দাম ছিল ৩ টাকা ৮৬ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৫ টাকা ৫০ পয়সা।

৪৯. ফেনোক্সিমিথাইল পেনিসিলিন ২৫০ এমজি/৫এমএল সিরাপ (৫০ এমএল বোতল) এর আগের দাম ছিল ২১ টাকা ৫০ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৩৫ টাকা।

৫০. প্রোমেথাজিন ৫এমজি/৫এমএল এলিক্সির (১০০ এমএল বোতল) আগের দাম ছিল ২১ টাকা ৩৫ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৩৫ পয়সা। ৫১. প্রোমেথাজিন ২৫এমজি/এমএল ইনজেকশনের আগের দাম ছিল ৩টাকা, বেড়ে হয়েছে ৭টাকা।

৫২. নরগেস্টেরেল ০.৩০ এমজি+ইথাইনিলিস্ট্রাডল ০.০৩এমজি ট্যাবলেটের দাম আগে ছিল একটা ৫০ পয়সা, বেড়ে হয়েছে দুই টাকা।

৫৩. ফেরোস ফেুমেরেট ৭৫ এমজি ট্যাবলেলেটর আগের দাম ছিল ৩৮ পয়সা, বেড়ে হয়েছে ৫০ পয়সা।

(ঢাকাটাইমস/১৭জুলাই/ডিএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

জাতীয় এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :