বালু ফেলে জিও ব্যাগ চুরি, আবারও ভাঙতে পারে পদ্মা পাড়

শরীয়তপুর প্রতিনিধি, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৭:০৪

পদ্মা নদীর ভাঙন থেকে রক্ষা পেতে শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার উত্তর তারাবুনিয়া থেকে চরমোহন পর্যন্ত নদী পাড়ে বালু ভর্তি করে ফেলা হয়েছিল হাজার হাজার জিও ব্যাগ। শীত মৌসুমে নদীর পানি কমে যাওয়ায় পাড়ে দৃশ্যমান হচ্ছে এসব ব্যাগ। সুযোগটি কাজে লাগিয়ে শীতের হাত থেকে রক্ষা পেতে বসতবাড়ির আঙ্গিনার বেষ্টনী নির্মাণ, ঘরের মেঝের কার্পেট গবাদি পশুর গরম কাপড় তৈরি করতে এক শ্রেণির মানুষ বালু ফেলে চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে এসব ব্যাগ। ফলে আগামী বর্ষা মৌসুমে আবারও দেখা দিচ্ছে নদী ভাঙনের শঙ্কা।

নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্তরা ক্ষোভ জানিয়ে বলেন, দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে আসছে বর্ষায় আবারও ভাঙনের শিকার হতে পারে পদ্মা পাড়ের হাজার হাজার মানুষ।

সম্প্রতি ওই এলাকা ঘুরে দেখা যায়, শীত মৌসুমে নদী পাড়ে জিও ব্যাগ দৃশ্যমান হওয়া বালু ফেলে দিয়ে ব্যাগগুলো নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, পদ্মা নদীর ভাঙনে কয়েক হাজার মানুষ বসতবাড়ি হারিয়ে অসহায় হয়ে পড়েছিলেন। স্থানীয় জনপ্রতিনিধির প্রচেষ্টায় ৫৫২ কোটি টাকা ব্যয়ে উত্তর তারাবুনিয়া থেকে চরমোহন পর্যন্ত দশমিক কিলোমিটার এলাকা জুড়ে জিও ব্যাগ ফেলা হয়। যা ২০২৩ সালের মে মাসে শুরু হয়ে গত বর্ষায় শেষ হয়। পানি উন্নয়ন বোর্ড কাজটি সমাপ্ত করে বাঁধ প্রকল্পের আওতায় এলাকাকে সোনার বাংলা এভিনিউ নামকরণ করে, যা স্থানীয়দের বিনোদন কেন্দ্র হিসেবে পরিণত হয়।

বাঁধ প্রকল্পের সব অংশেই সেলাই কেটে ব্যাগ নিয়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে আসছে বর্ষায় আবারও ভাঙনের মুখে পরবে পদ্মার চরাঞ্চলের হাজার হাজার মানুষ। এমনই আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

চরভাগা এলাকার নদী পাড়ের বাসিন্দা খবির কবিরাজ বলেন, স্থানীয় অসচেতন মানুষ সাময়িক প্রশান্তির জন্য দিন রাত ২৪ ঘণ্টাই জিও ব্যাগ চুরি করে নিয়ে নিষেধ করলেও কেউ কথা শোনে না।

আকলিমা বেগম নামে এক নারী বলেন, জিও ব্যাগ ফেলার কারণে আমরা নতুন করে স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছিলাম। অথচ হরিলুটের মতো সকাল-বিকাল জিও ব্যাগ নিয়ে যাচ্ছে মানুষ। যাদের বাড়িঘর রক্ষার জন্য সরকার জিও ব্যাগ ফেলেছে তারাই এখন ব্যাগ নিয়ে যাচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্টদের দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া দরকার বলে জানান তিনি।

চরভাগা ইউপি সদস্য বোরহান ব্যাপারী বলেন, জিও ব্যাগ চুরির ঘটনা আমাদের নজরে আসার পরপরই আমরা স্থানীয় মসজিদের মাইকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে ব্যাগ না নিতে এলাকাবাসীকে অনুরোধ করে সতর্ক করেছি। তারপরও থামানো যাচ্ছে না। যে যার মত করে ব্যাগ নিয়ে যাচ্ছে।

জিও ব্যাগ নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি নিয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড শরীয়তপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান হাবীব বলেন, বিষয়টি জানার পরে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সচেতন মহলকে বলেছি মানুষদের সচেতন করতে। এরপরও যদি তারা সচেতন না হয়, তাহলে আমরা আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

(ঢাকাটাইমস/১৪ফেব্রুয়ারি/প্রতিনিধি/পিএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

সারাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সারাদেশ এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :