মানিকগঞ্জে চাঁদা না দেওয়ায় হেলোবাইক ভাঙচুর, চালক আহত

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৩ মে ২০১৭, ১৭:১৫

চাঁদা না দেয়ায় মানিকগঞ্জে বেশ কয়েকটি হেলোবাইক ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। জেলা শ্রমিকলীগ সভাপতি বাবুল সরকারের সমর্থকরা এই হামলা করেছে বলে অভিযোগ করছেন চালকরা।

বুধবার দুপুরের দিকে এই ঘটনা ঘটে। এর প্রতিবাদে বেলা ১১টা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত হেলোবাইক চলাচল বন্ধ করে দিয়েছিল চালকরা। পরে পৌর মেয়র গাজী কামরুল হুদা সেলিম ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিত স্বাভাবিক করলে পুনরায় হেলোবাইক চলাচল শুরু হয়।

মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় হেলোবাইক চালকরা জানান, গতকাল মঙ্গলবার নতুন ইজারাদারের লোক পরিচয় দিয়ে বাসস্ট্যান্ড এলাকায় হেলোবাইক চালকদের কাছ থেকে ২০ টাকা হারে চাঁদা আদায় করতে যান কয়েকজন যুবক। হেলোবাইক চালকরা টাকা না দিয়ে বিষয়টি স্থানীয় ট্রাফিক পুলিশকে অবহিত করলে ওই যুবকরা চলে যায়।

বুধবার সকালে জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি বাবুল সরকারের উপস্থিতিতে ১৫ থেকে ২০ জন যুবক হঠাৎ এলোপাথাড়িভাবে হেলোবাইক ভাঙচুর করে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন হেলোবাইক চালক বলেন, বেলা ১১টার দিকে বাবুল সরকারের নেতৃত্বে কয়েকজন যুবক আমাদের ওপর লাঠিসোটা নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। এতে ১৫ থেকে ২০টি গাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ সময় বেশ কয়েকটি গাড়ির সামনের ও পেছনের গ্লাস ভেঙ্গে যায়। তাদের হামলায় পাঁচ চালক আহত হয়। এদের মধ্যে বকজুরীর সুমন ও আড়শুকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। অপর তিনজন হাতে ও পায়ে আঘাত পেয়েছেন।

মানিকগঞ্জ জেলা কেন্দ্রীয় পৌর টার্মিনালের ইজারাদার রকিব হাসান ওরফে অপু বলেন, ‘আমরা পহেলা বৈশাখের শুরুতে পৌরসভা থেকে জেলা কেন্দ্রীয় পৌর টার্মিনাল ইজারা নিয়েছি। সেই কারণে আমাদের দুইজন স্টাফ মঙ্গলবার সকালে হেলোবাইক থেকে রশিদ দিয়ে টোল আদায় করতে গিয়েছিল। কিন্তু আমরা ইজারা নিয়েছি সেই বিষয়টি হেলোবাইক চালক ও স্থানীয় ট্রাফিক পুলিশ অবগত না থাকায় টোল আদায় বন্ধ করে দেয়।’

মানিকগঞ্জ জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি বাবুল সরকার বলেন, আমাদের কেউ হেলোবাইক চালকেদের কাছ থেকে চাঁদা তুলতে যায়নি। তিনি বলেন, যাত্রী নিয়ে হেলোবাইক চালকদের সঙ্গে মেক্সি চালকদের মারপিটের ঘটনা ঘটেছে বলে শুনেছি। এই ঘটনায় মেক্সি চালকরা হেলোবাইক চালকদের বেশ কিছু গাড়ি ভাঙচুর করেছে। পরে আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে শ্রমিকদের নিয়ন্ত্রণ করেছি।

মানিকগঞ্জ পৌরসভার মেয়র গাজী কামরুল হুদা সেলিম বলেন, বিষয়টি শোনার পর দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করেছি। তিনি বলেন, ‘আগামীকাল বৃহস্পতিবার নগর ভবনে হেলোবাইক চালক ও ইজারাদারদের নিয়ে বসে ফাইনাল মীমাংসা করা হবে।’

এ ব্যাপারে মানিকগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুল্লাহ সরকারের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

ঢাকাটাইমস/৩মে/প্রতিনিধি/এমআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত