দেশে ডাউন সিনড্রোমে ভুগছেন দুই লাখ মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ৩০ অক্টোবর ২০১৯, ১৪:০৫

বাংলাদেশে দুই লাখেরও বেশি মানুষ ডাউন সিনড্রোমে ভুগছেন, যারা সমাজে অবহেলিত। অথচ সঠিক যত্ন, পুষ্টিকর খাবার, স্পিচ ও ল্যাংগুয়েজ এবং ফিজিক্যাল থেরাপি দিলে ডাউন সিনড্রোম শিশুরা স্বাভাবিক শিশুদের ন্যায় পড়ালেখা করে স্বনির্ভর হতে পারে।

বিশ্ব ডাউন সিনড্রোম সচেতনতা মাস উপলক্ষে মঙ্গলবার গাজীপুরে টঙ্গীতে এক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন ডাউন সিনড্রোম নিয়ে কাজ করা বিশিষ্টজনরা। টঙ্গীর ঘাস ফড়িং শিশু বিকাশ কেন্দ্রে ডাউন সিনড্রোম বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন শিশু, ব্যক্তি ও অভিভাবকদের নিয়ে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে কর্মসূচি শুরু হয়।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ডাউন সিনড্রোম ব্যক্তিরা সমাজেরই অংশ। সচেতনতার মাধ্যমে তাদেরকে সমাজের মূলধারার সঙ্গে সম্পৃক্ত করতে হবে। তারা বলেন, জাতীয় পর্যায়ে ডাউন সিনড্রোম বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন শিশু ও ব্যক্তিদের সামাজিক মর্যাদা, গ্রহণযোগ্যতা, অধিকার প্রতিষ্ঠা, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি এবং সমাজের সর্বস্তরের মানুষের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কাজ করা হচ্ছে।

ঘাস ফড়িং শিশু বিকাশ কেন্দ্র, ডাউন সিনড্রোম সোসাইটি অব বাংলাদেশ, আমদা বাংলাদেশ ও জাপান বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল যৌথভাবে প্রথমবারের মতো ডাউন সিনড্রোম সচেতনতা মাস উপযাপন করে।

বক্তারা বলেন, ডাউন সিনড্রোম কোন রোগ নয়, বরং এটি শরীরের একটি জেনেটিক পার্থক্য (ভিন্নতার মাত্রা) এবং ক্রোমজমের একটি বিশেষ অবস্থা। ডাউন সিনড্রোম ব্যক্তির দেহ কোষে একটি অতিরিক্ত ক্রোমোজম কারণে এটি হয়ে থাকে। অন্যদের তুলনায় সাধারণত এরা দেরিতে বসে ও কথা বলে, হামাগুড়ি দেয় ও হাঁটে।

অনুষ্ঠানের শুরুতে সচেতনতা মাস উদযাপনের গুরুত্ব তুলে ধরে স্বাগত বক্তব্য দেন ডাউন সিনড্রোম সোসাইটি অব বাংলাদেশের চেয়ারম্যান সরদার এ. রাজ্জাক। আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আল হেলাল স্কুল এর অধ্যক্ষ এবং গাজীপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের জেনারেল সেক্রেটারি মো. হেদায়েত উল্লাহ, আরবান কমিনিটি ডেভেলপমেন্ট প্রোমগ্রামের সমাজ সেবা অফিসার আবুল ফজুল মোহাম্মদ আমান উল্লাহ, ওয়ার্ড কমিশনার নাসির উদ্দিন মোল্লা, মহিলা কাউন্সিলর কেয়া শারমিন, টঙ্গি প্রেসক্লাবের জেলারেল সেক্রেটারি মো. কালিমুল্লাহ ইকবাল ও টঙ্গী প্রেসক্লাবের প্রেসিডেন্ট এম এ  হায়দার সরকার।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ডাউন সিনড্রোম সোসাইটি অব বাংলাদেশ এর ডাইরেক্টর লুনা রাজ্জাক, ডাউন সিনড্রোম সোসাইটি অব বাংলাদেশ এর কোর্ডিনেটর- জনাব খন্দকার আশেকুল ইসলাম, ডাউন সিনড্রোম সোসাইটি অব বাংলাদেশ এর এডুকেটর দিপক কুমার রয়, ঘাস ফড়িং শিশু বিকাশ কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা আশিয়া আহম্মদ, সহকারী শিক্ষিকা নাসরিন ডলি, সহকারী শিক্ষক মো. আসাদুজ্জামান।

ঢাকাটাইমস/৩০ অক্টোবর/এসএস/এমআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :