অবশেষে ডিএসসিসির টাওয়ার ভাড়া পরিশোধ করল গ্রামীণফোন

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৯ অক্টোবর ২০২০, ১৯:২৩

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) এলাকায় মোবাইল টাওয়ার ব্যবহার বাবদ ডিএসসিসিকে নয় কোটি ৬৩ লাখ সাত হাজার ৩২৫ টাকা বকেয়া পরিশোধ করেছে মোবাইলফোন অপারেটর গ্রামীণফোন। ২০১৩-১৪ অর্থবছর থেকে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বকেয়া বাবদ দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কাছে গ্রামীণফোন কর্তৃপক্ষ এই অর্থমূল্যের চেক হস্তান্তর করে।

রবিবার ডিএসসিসি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপসের কাছে গ্রামীণফোনের কর্মকর্তারা এই বকেয়া পরিশোধের চেক হস্তান্তর করেন।

গ্রামীণফোন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে এই বকেয়া আদায় প্রসঙ্গে ডিএসসিসির প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আরিফুল হক বলেন, ‘আইন ও তফসিল অনুযায়ী করপোরেশন মোবাইল ফোন অপারেটরদের কাছ থেকে অর্থ প্রাপ্য হলেও এই বিষয়ে উদ্যোগের অভাবে করপোরেশন এই খাত থেকে কখনো অর্থ আদায় করতে পারেনি। কিন্তু ডিএসসিসি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপসের নির্দেশনায় আমরা এই বিষয়ে উদ্যোগ গ্রহণ করি এবং সব মোবাইলফোন অপারেটরকে করপোরেশন এলাকায় ব্যবহৃত টাওয়ারের তথ্য-উপাত্ত চেয়ে পত্র দিই। এরই আলোকে গ্রামীণফোন কর্তৃপক্ষ তাদের টাওয়ারগুলোর সার্বিক বিবরণসহ প্রয়োজনীয় অন্যান্য তথ্য-উপাত্ত সরবরাহ করে এবং আমাদের সাথে কয়েক দফা বৈঠকের মাধ্যমে বিগত সাত বছরের সমুদয় বকেয়া বাবদ নয় কোটি ৬৩ লাখ টাকার অধিক অর্থ পরিশোধ করে। আমরা বিশ্বাস করি, অন্যান্য মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোও গ্রামীণফোনের কার্যক্রম অনুসরণ করে দ্রুততার সঙ্গে করপোরেশনের কাছে তাদের সমুদয় বকেয়া পরিশোধ করবে।’

আইন অনুযায়ী, করপোরেশনে এলাকায় মোবাইলফোন অপারেটরগুলো তাদের টাওয়ার বা বিটিএস ব্যবহারে সংশ্লিষ্ট বাড়ির মালিকের সঙ্গে চুক্তি করে। সেই চুক্তির ছয় ভাগের এক ভাগ অর্থ করপোরেশনকে দিতে হয়। এর আগে এ বিষয়ে কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি বলে করপোরেশন মোবাইলফোন অপারেটরদের বড় অংকের রাজস্ব আহরণ থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছিল।

প্রথমবারের মতো এই বিষয়ে উদ্যোগ গ্রহণ করে দক্ষিণ সিটি এলাকায় সেবা প্রদানকারী মোবাইলফোন অপারেটরগুলোকে ডিএসসিসির রাজস্ব বিভাগ থেকে চিঠি দেয়া হয়। চিঠি পাওয়ার পর গ্রামীণফোন কর্তৃপক্ষ ডিএসসিসির সঙ্গে কয়েক দফা বৈঠক করে বকেয়ার পরিশোধ করে।

চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আরিফুল হক, গ্রামীণফোনের স্টেট এজেন্সি এঙ্গেজমেন্ট অ্যান্ড সাপোর্ট বিভাগের পরিচালক এস এম রায়হান রশিদ, টাওয়ার ইনফ্রা অপারেশন বিভাগের মহাব্যবস্থাপক মো. ফিরোজ উদ্দীন এবং ট্যাক্সেশন অ্যান্ড ফিসক্যাল কমপ্লায়েন্স বিভাগের প্রধান ও পরিচালক মো. আরিফ উদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

(ঢাকাটাইমস/১৯অক্টোবর/কারই/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :