ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতি করতো তারা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ২০:৪৮ | প্রকাশিত : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৪:০২

রাজধানী ও আশপাশের এলাকায় বেশ কয়েকটি গ্রুপ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয় দিয়ে ছিনতাই-ডাকাতি করে আসছে। এ তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশি সরঞ্জাম, ইয়াবা ও দুটি গাড়িসহ ডিবি পুলিশ পরিচয়ধারী নয় ডাকাতকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর (ডিএমপি) গোয়েন্দা পুলিশ।

বুধবার দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ডিএমপির সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম ও ডিবি-উত্তর বিভাগের যুগ্ম পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

হারুন অর রশীদ বলেন, এই চক্রের সদস্যরা প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাসযোগে র‌্যাব ও ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে ব্যাংকে টাকা জমা দিতে যাওয়া অথবা ব্যাংক থেকে টাকা তুলে আনা ব্যক্তিদেরকে জোর করে মাইক্রোবাসে তুলে নেয়। এরপর তুলে নেয়া ব্যক্তিকে কখনো সাভার-আশুলিয়া, কখনো বেড়িবাঁধ, কখনো নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জে নিয়ে ব্যাপক মারধর করে আতঙ্ক সৃষ্টি করে নগদ টাকা ও ভুক্তভোগীদের ডেবিট, ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে টাকা তুলে নিত।

মঙ্গলবার রাজধানীর মতিঝিল ও মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে ডিবি পুলিশ পরিচয়ধারী নয় ডাকাতকে গ্রেপ্তার করে ডিএমপির গোয়েন্দা পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন, মো. ইমদাদুল শরীফ, মো. খোকন মিয়া, মো. মাসুদুর রহমান তুহিন, মামুন সিকদার, মো. কামাল হোসেন, মো. ওয়াহিদুল ইসলাম, মো. ফারুক বেপারী ও মো. মতিউর রহমান।

তাদের কাছ থেকে একটি ওয়াকিটকি, একটি ডামি পিস্তল, এক জোড়া হাতকড়া, একটি নেভি ব্লু রংয়ের ট্রাভেল ব্যাগ, দুটি ডিবি জ্যাকেট, চারটি নতুন গামছা, একটি সিলভার রংয়ের প্রাইভেটকার, একটি মাইক্রোবাস ও পাঁচ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।

ডিএমপির এই যুগ্ম পুলিশ কমিশনার বলেন, করোনাভাইরাসের তীব্রতা কমার কারণে জনজীবন স্বাভাবিক হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে পেয়েছে। এ সময় বেশ কয়েকটা গ্রুপ ঢাকা মহানগরী এবং আশপাশের এলাকায় প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাসযোগে র‌্যাব ও ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে ব্যাংকে টাকা জমা দিতে যাওয়া অথবা ব্যাংক থেকে টাকা তুলে আনার সময়ে মানুষজনকে জোর করে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে সর্বস্ব কেড়ে নেয়।

হারুন অর রশীদ বলেন, মঙ্গলবার আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বেশ ধারণ করে ডাকাতি ও ছিনতাই কাজে লিপ্ত ডাকাত দলের সদস্যরা মতিঝিল এলাকায় অপরাধ কর্মকাণ্ডের উদ্দেশ্যে জড়ো হয়েছে বলে তথ্য পায় ডিবি। এই তথ্যের ভিত্তিতে ডিবি পুলিশের একাধিক টিম বলাকা চত্বর, ইউনুস সেন্টারের আশপাশের একাধিক ব্যাংকের কাছাকাছি অবস্থান নেয়। এই ডাকাত দলের সদস্যরা মাইক্রোবাস ও প্রাইভেটকারে করে অপরাধের চেষ্টাকালে উপস্থিত জনতার সহায়তায় ডিবি পুলিশ তাদেরকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করে।

ডিএমপির এই গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, গ্রেপ্তারকৃতরা ব্যাংক থেকে নগদ টাকা উত্তোলনকারী ব্যক্তিদের টার্গেট করে। টার্গেটকৃত ব্যক্তিকে অনুসরণ করে সুবিধাজনক স্থানে পৌঁছার পর তাদের সাথে থাকা ডিবির জ্যাকেট পরে ওই ব্যক্তির গতিরোধ করে। এসময় ওয়াকিটকি দেখিয়ে নিজেদেরকে ডিবি পুলিশের পরিচয়ে নগদ টাকা বহন করা ব্যক্তিকে হাতকড়া পরিয়ে তাদের নিজেদের গাড়িতে তুলে নেয়। কিছুদুর গাড়ি চালানোর পর তাদের কাছে থাকা টাকা-পয়সা, মোবাইল ফোন ও মূল্যবান সামগ্রী ভয় দেখিয়ে কেড়ে নেয় তারা। কখনও তাদের কাছে থাকা গামছা দিয়ে চোখ বেঁধে ফেলে। আবার কখনও কোনো ব্যক্তি চিৎকার চেঁচামেচি করলে গামছা দিয়ে গলায় ফাঁস দেয়।

সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব, পুলিশ বা ডিবির ইউনিফর্ম পরা দেখলেই তাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মনে না করার পরামর্শ দিয়েছেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) এর যুগ্ম কমিশনার হারুন অর রশীদ। তিনি বলেন, ‘ইউনিফর্ম দেখেই তাদের ডাকে সাড়া দেওয়ার কোনো কারণ নেই। তাদের পরিচয় নিশ্চিত হতে প্রয়োজনে বাকবিতাণ্ডা করুণ। মানুষ জড়ো করুন। নিকস্থ থানা পুলিশ বা জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ ফোন দিন। সরাসরি মহানগর গোয়েন্দা অফিসে এসে কেউ অভিযোগ করলেও কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে ‘

গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে মতিঝিল থানায় ডাকাতি ও মাদকের দুটি মামলা করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন গোয়েন্দা পুলিশের গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার মো. মশিউর রহমান, অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মোহাম্মদ কামরুজ্জামান, অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মাহবুব আলম সজিব এবং ডিএমপির জনসংযোগ ও গণমাধ্যম শাখার অতিরিক্ত উপ-কমিশনার হাফিজ আল ফারুক।

(ঢাকাটাইমস/২৭অক্টোবর/এএ/কেআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

অপরাধ ও দুর্নীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :