কুড়িগ্রামে এক শিক্ষক দিয়ে চলছে বিদ্যালয়

মোমিনুল ইসলাম বাবু, কুড়িগ্রাম
 | প্রকাশিত : ০৯ নভেম্বর ২০২৩, ০০:১২

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার পান্ডুল ইউনিয়নের সিদ্ধান্ত মালতী বাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একজন শিক্ষককে দিয়ে চলছে পাঠদান কার্যক্রম। শুধু তাই নয় পাঠদানের পাশাপাশি একাই করছেন স্কুলের পরিস্কার-পরিছন্নতা, পতাকা উত্তোলনসহ সকল দাপ্তরিক কাজ।

শিশু শ্রেণি থেকে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত ৬টি ক্লাসে ১০৪ জন শিক্ষার্থীর পাঠদান সামলাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে ওই শিক্ষককে। এক ক্লাসে গেলে অন্য ক্লাস থাকে ফাঁকা। ফলে একদিকে যেমন শিক্ষার্থীরা কাঙ্খিত পড়াশোনা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে অন্যদিকে প্রতিষ্ঠানটি নিয়ে দুঃশ্চিন্তায় আছেন অভিভাবকরা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ১৯৮৯ সালে স্থাপিত হয় সিদ্ধান্ত মালতী বাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এই বিদ্যালয়ে শিক্ষক ছিল ৪ জন। এর মধ্যে সহকারী শিক্ষক জান্নাতুল আল ফেরদৌস মাতৃত্বকালীন ছুটিতে আছেন। আর বাকি তিনজন শিক্ষকের মধ্যে দুজন ডিপুটেশনে অন্যত্র চলে গেছেন। এরমধ্যে শিক্ষিকা শ্রীমতি মালা রানী গোড়াই পাচঁপীর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এবং বিলকিছ জাহানকে আনন্দ বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে। ফলে সিদ্ধান্ত মালতী বাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা তামান্না ফেরদৌসী একাই সামলাচ্ছেন শতাধিক শিক্ষার্থীকে। শিক্ষক না থাকায় শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা করতে গিয়ে অলস সময় কেটে ঘরে ফিরতে হচ্ছে।

৪র্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী হরিপ্রিয়া জানান, প্রথম ও দ্বিতীয় অধিবেশনে শিশু শ্রেণি থেকে ৫ম শ্রেণির ৬টি ক্লাস একজন শিক্ষকই নেয়। অনেক সময় ম্যাডাম আমাদের পড়া দিয়ে আবার অন্য ক্লাসে চলে যান। এ জন্য ম্যাডাম আমাদের ক্লাসের পড়া ভালোভাবে আদায় করার আগেই ক্লাসের সময় চলে যায়। সামনে আমাদের পরীক্ষা, প্রস্তুতিও নেই তেমনটা।

অভিভাবক শ্যামল চন্দ্র বলেন, এই বিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষক সংকট থাকলেও শিক্ষা অফিস কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না।

অভিভাবক আমিনুর রহমান বলেন, সরকার কোটি টাকা খরচ করে সুন্দর একটি ভবন দিয়েছে পড়াশোনা শেখার জন্য। কিন্তু শিক্ষা অফিসারদের অনিয়ম আর গাফলতির কারণে আমাদের সন্তানরা শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

বিদ্যালয়ের একমাত্র সহকারী শিক্ষিকা তামান্না ফেরদৌসী বলেন, একাই শিশু থেকে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত ক্লাসগুলো নিতে হচ্ছে। শিক্ষক সংকটে বিদ্যালয়ের সার্বিক শিক্ষা কার্যক্রম বিঘ্নিত হচ্ছে। দ্বিতীয় তলায় ক্লাস নিতে গেলে নিচতলায় শিক্ষার্থীরা বিশৃঙ্খলা করে।

বিদ্যালয়ের জমিদাতা ও সাবেক প্রধান শিক্ষক আব্দুস সামাদ বলেন, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক দুজনে স্কুল উন্নয়নের স্লিপের টাকা আত্মসাৎ ও নানান অনিয়ম করায় স্কুল কমিটির সঙ্গে দ্বন্দ্ব হয়। এছাড়া সাম্প্রদায়িক ইস্যু তৈরি করে তারা ডিপুটেশনের নামে নিজের পছন্দসই স্কুলে বদলী হয়েছেন।

কুড়িগ্রাম জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নবেজ উদ্দিন সরকার বলেন, ডেপুটেশনে বদলী হওয়া ওই শিক্ষকদের স্থানে অন্য একজনকে দেয়া হয়েছে। আরেকজন শিক্ষকের সুপারিশ দিলেই পদায়ন করা হবে। তবে উলিপুর শিক্ষা অফিস থেকে স্লিপের টাকা আত্মসাৎ কিংবা সাম্প্রদায়িকতার কোন অভিযোগ আমাকে দেয়নি বলেও জানান তিনি।

(ঢাকাটাইমস/০৯ নভেম্বর/ইএইচ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

সারাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :