চাঁদপুরে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে জাটকা

​​​​​​​চাঁদপুর প্রতিনিধি, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ১০ জানুয়ারি ২০২৪, ১২:০৫ | প্রকাশিত : ১০ জানুয়ারি ২০২৪, ১১:২৮

নিষিদ্ধ থাকলেও চাঁদপুর শহরের একাধিক বাজার ও পাড়া-মহল্লায় প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে জাটকা। অথচ জাটকা ধরা ও বিক্রি বন্ধে কোনো উদ্যোগ নেই মৎস্য বিভাগের।

মঙ্গলবার (৯ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় চাঁদপুর শহরের কালিবাড়ী মন্দির সংলগ্ন চাঁদপুর-কুমিল্লা সড়কে প্রকাশ্যে জাটকা বিক্রি করতে দেখা গেছে বেশ কিছু ক্ষুদ্র মাছ ব্যবসায়ীকে।

শহরের পুরান বাজার দোকানঘর এলাকার জাটকা বিক্রেতা মো. নুরুল আমিন জানান, এসব জাটকা বহরিয়া এলাকা থেকে ক্রয় করেছেন। দুই ভাগে ৭ হাজার ৫শ টাকার জাটকা ক্রয় করেছেন তিনি। এর মধ্যে ছোট সাইজের জাটকা বিক্রি করছেন প্রতি কেজি ৩২০ টাকা দরে এবং একটু বড় সাইজের জাটকা বিক্রি করছেন ৪৫০ টাকায়।

এছাড়াও গত কয়েক দিন শহরের পালবাজার এলাকা এবং ওয়ারলেস বাজারে প্রকাশ্যে জাটকা বিক্রি করতে দেখা গেছে একাধিক মাছ ব্যবসায়ীকে।

চাঁদপুর সদর উপজেলা সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান জানান, বছরজুড়েই জাটকা ধরা নিষেধ। এছাড়া ইলিশ ডিম ছাড়ার পর নভেম্বর মাসের ১ তারিখ থেকে জুন মাসের ৩০ তারিখ পর্যন্ত ৮ মাস জাটকা ধরা সম্পূর্ণ নিষেধ। এর মধ্যে মার্চ-এপ্রিল দুই মাস অভয়াশ্রম এলাকায় জাটকাসহ সব ধরনের মাছ আহরণ নিষেধ থাকে।

জাটকা বিক্রির বিষয়টি নজরে এসেছে জানিয়ে এ মৎস্য কর্মকর্তা বলেন, চাঁদপুরের জেলেসহ দক্ষিণাঞ্চলের জেলেদের আহরণ করা এসব জাটকা এখানে বিক্রির জন্য আনা হয়।

চাঁদপুর সদর উপজেলা জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা মো. তানজিমুল ইসলাম জানান, জাটকা ধরার খবর আমাদের কাছে এসেছে। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কারণে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যস্ত ছিল। নির্বাচন শেষ হয়েছে। এখন আমরা পুলিশ ও কোস্টগার্ডের সহায়তায় অভিযান পরিচালনা করবো। তবে মৎস্য বিভাগ ছাড়া থানা পুলিশ এবং নৌপুলিশ যেকোনো সময় অভিযান পরিচালনা করতে পারেন বলে জানান তিনি। আইন অনুযায়ী উপ-পরিদর্শক (এসআই) পদের এবং তার ওপরের পদের কর্মকর্তা মৎস্য বিভাগ ছাড়াই জাটকা আহরণকারী ও বিক্রেতাদের আইনের আওতায় আনতে পারবেন বলেও জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, ১০ জানুয়ারি কেন্দ্রীয়ভাবে মৎস্য সংরক্ষণ সংক্রান্ত ভার্চুয়ালি একটি সভা অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে মৎস্য বিভাগ, জেলা প্রশাসন ও নৌ পুলিশ যুক্ত থাকবে। এই সভার পরেই আমরা অভিযানে নামবো। তার মতে, জাতীয় সম্পদ ইলিশ রক্ষায় শুধুমাত্র মৎস্য বিভাগ নয়, জনপ্রতিনিধি ও সচেতন নাগরিকরা এগিয়ে আসলে জাটকা অনেকাংশে রক্ষা পাবে। প্রতিবাদ হিসেবে আমাদেরকে জাটকা ক্রয় করা থেকেও বিরত থাকতে হবে বলে জানান তিনি।

(ঢাকাটাইমস/১০জানুয়ারি/প্রতিনিধি/পিএস)

সংবাদটি শেয়ার করুন

সারাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সারাদেশ এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :