৯ বছরেও শেষ হয়নি বর্ষবরণে শ্লীলতাহানি মামলার বিচার

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ১৯:২৬ | প্রকাশিত : ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ১৯:১৯

২০১৫ সালের বর্ষবরণ উৎসবেও উপচে পড়া ভিড় ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) টিএসসি এলাকায়। ওই ভিড়ে বেশ কয়েকজন নারীর শ্লীলতাহানির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বিভিন্ন স্তরের মানুষের নিন্দা ও প্রতিবাদের মুখে মামলা হয়। বিচারের আশাও দিয়েছিলেন সংশ্লিষ্টরা। কিন্তু বিচার ৯ বছর ধরে ঝুলে আছে এই বিচার কার্যক্রম।

বর্তমানে ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৮-এ মামলাটির বিচারিক কার্যক্রম চলছে।

ওই ট্রাইব্যুনালের বিশেষ রাষ্ট্রীয় কৌঁসুলি (পিপি) মো. রেজাউল করিম জানান, এই মামলায় মোট ৩৪ জনকে সাক্ষী করা হয়। এর মধ্যে মাত্র ৯ জন সাক্ষী সাক্ষ্য দিয়েছেন। এই অবস্থায় সাক্ষ্য গ্রহণ সমাপ্ত ঘোষণা করেন ট্রাইব্যুনাল। মামলার রায়ের তারিখও ধার্য করা হয়।

পরে সাক্ষীদের সাক্ষ্য এবং মামলার বর্ণনা পর্যালোচনা করে দেখা যায়, আরও সাক্ষ্য গ্রহণের প্রয়োজন। গত ফেব্রুয়ারিতে ট্রাইব্যুনাল মামলাটি রায়ের পর্যায় থেকে উত্তোলন করে পুনরায় সাক্ষ্য গ্রহণের পর্যায়ে নিয়ে আসেন। এরপর আর সাক্ষী ট্রাইব্যুনালে হাজির হননি।

পিপি রেজাউল করিম বলেন, ‘এই মামলায় বেশির ভাগ সাক্ষী পুলিশ সদস্য। তাদের বারবার অজামিনযোগ্য গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হলেও, সাক্ষ্য দিতে আসছেন না। এ কারণেই মামলার বিচার বিলম্বিত হচ্ছে।’

তবে সরকারি এই আইনজীবী বলেন, ‘আমরা সাক্ষীদের হাজির করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। খুব দ্রুত এই মামলার বিচার নিষ্পত্তি করা হবে। বিজ্ঞ বিচারক এই মামলাটিকে গুরুত্বের সঙ্গে দেখছেন।’

২০১৫ সালের ওই ঘটনায় সেদিন সন্ধ্যায় শাহবাগ থানার উপপরিদর্শক আবুল কালাম আজাদ বাদী হয়ে একটি মামলা করেন।

মামলার পর ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও ভিডিও ফুটেজ বিশ্লেষণ করে আটজন লাঞ্ছনাকারীকে শনাক্ত করা হয়। তাদের ধরিয়ে দিতে এক লাখ টাকা করে পুরস্কারের ঘোষণাও দেন তৎকালীন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক।

অন্যদিকে মামলার তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় ডিবি পুলিশকে। ২০১৫ সালের ৯ ডিসেম্বর এ মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন ডিবি পুলিশের উপপরিদর্শক দীপক কুমার দাস। প্রতিবেদনে আসামি খুঁজে না পাওয়ার কথা বলা হয়। তবে ওই প্রতিবেদন গ্রহণ না করে মামলাটি পুনরায় তদন্তের জন্য পিবিআইকে নির্দেশ দেন ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল।

২০১৬ সালের ১৫ ডিসেম্বর পিবিআইয়ের পুলিশ পরিদর্শক আব্দুর রাজ্জাক ব্যবসায়ী কামালকে একমাত্র আসামি করে চার্জশিট দাখিল করেন। ২০১৭ সালের ১৯ জুন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।

চার্জশিটে উল্লেখ করা হয়, তদন্তে আট লাঞ্ছনাকারীর মধ্যে একজনকে খুঁজে পাওয়া গেছে। অন্য সাতজনকে খুঁজে না পাওয়ায় চার্জশিটে তাদের নাম অন্তর্ভুক্ত করা সম্ভব হয়নি। তাদের খুঁজে পাওয়া গেলে সম্পূরক চার্জশিট দেওয়া হবে।

কিন্তু গত ৯ বছরেও এই ধরনের কোনো সম্পূরক অভিযোগপত্র বা চার্জশিট দাখিল করা হয়নি।

(ঢাকাটাইমস/১৩এপ্রিল/কেএ/এআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

জাতীয় এর সর্বশেষ

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব: সারাদেশে মোবাইল ফোনের ৩২৯০৬টি টাওয়ার নিষ্ক্রিয়

শিশুর সুন্দর ভবিষ্যৎ গড়তে সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে: প্রতিমন্ত্রী সিমিন

প্রাথমিকে ৪৬ হাজার শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়া হাইকোর্টে স্থগিত

ডয়েচে ভেলেকে ‘গাজায় গণহত্যা’ নিয়ে প্রামাণ্যচিত্র তৈরির আহ্বান তথ্য প্রতিমন্ত্রীর

বৃহস্পতিবার ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় যাবেন প্রধানমন্ত্রী 

রাজধানীতে ট্রাফিক এডুকেশন সেন্ট্রার চালু করছে ডিএমপি

রেমালের তাণ্ডব: তিন উপজেলায় নির্বাচন স্থগিত

রাষ্ট্রপতির কাছে তিন দেশের রাষ্ট্রদূতের পরিচয়পত্র পেশ

জাপানে বাংলাদেশের অর্থায়নে নির্মিত শান্তি স্মৃতিস্তম্ভের উদ্বোধন

ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু ২ জুন, শতভাগ অনলাইনে

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :