রাজধানীতে ট্রাফিক এডুকেশন সেন্ট্রার চালু করছে ডিএমপি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা টাইমস
| আপডেট : ২৮ মে ২০২৪, ১৯:০৬ | প্রকাশিত : ২৮ মে ২০২৪, ১৬:০৮

রাজধানীর যানজট নিরসনে ও জনসাধারণের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে রাজধানীতে ট্রাফিক এডুকেশন সেন্টার চালু করতে যাচ্ছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক বিভাগ। এছাড়া ট্রাফিক আইন সম্পর্কে শিশুদের সচেতন করতে রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে ট্রাফিক চিলড্রেন পার্ক তৈরি করা হবে।

মঙ্গলবার দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ডিএমপির যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক দক্ষিণ) এস এম মেহেদী হাসান।

তিনি বলেন, শহরের যানজট নিরসনে জনসচেতনতার ওপর জোর দিচ্ছি আমরা। এ পরিকল্পনার অংশ হিসেবে শিশুদেরকে ট্রাফিক আইন মানার বিষয়ে সচেতন করা হবে। এছাড়া চালক ও জনসাধারণের জন্য ট্রাফিক এডুকেশন সেন্ট্রার তৈরিও কাজ চলছে। যেসব পয়েন্টে অধিক যানজট সৃষ্টি সে জাগয়াগুলো চিহ্নিত করার কাজ করে যাচ্ছে ট্রাফিক বিভাগ।

তিনি আরও বলেন, রাজধানীর ট্রাফিক সমস্যা দূর করতে এক সঙ্গে কাজ করছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) ও জাপানের উন্নয়ন সংস্থা জাইকা। যানজট সমস্যা দূর করতে ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদের উন্নত প্রশিক্ষণেরও ব্যবস্থা করেছে জাইকা।

মেহেদী হাসান বলেন, ডিএমপি কমিশনারের নেতৃত্বে রাজধানীর ট্রাফিক ব্যবস্থাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। তারই অংশ হিসেবে আমরা বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ করেছি। যাতে করে রাজধানী ঢাকাবাসী ট্রাফিক সমস্যাটা কিছুটা হলেও দূর করতে পারি। সেটির অংশ হিসেবে আমাদের উন্নয়ন সহযোগী জাইকা ডিএমপির সঙ্গে একত্রিত হয়ে বিভিন্ন কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। তারমধ্যে রয়েছে জনসচেতনতা তৈরি, ট্রাফিক কর্মকর্তাদের বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ প্রশিক্ষণ প্রদান, তার পাশাপাশি ডেটা সংগ্রহ ও বিশ্লেষণ।

তিনি বলেন, এই ধরনের বেশ কিছু কাজ জাইকা ডিএমপির সঙ্গে মিলিত হয়ে করছে। গত দুবছর ধরে এই কাজ চলমান রয়েছে। এখন যে বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে সেটি হচ্ছে ঢাকাবাসীর মধ্যে সামগ্রিকভাবে ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়ে‌ সচেতনতা সৃষ্টি করা। রোড সেফটি রোড ব্যবহার ও ট্রাফিক আইন সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করার জন্য জাইকা মডেল হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, আমরা ইতিমধ্যে দেখেছি জাপান সরকার ১৯৬০ এর দশক থেকে এ কাজগুলো করে আসছে। আমাদের ট্রাফিকের যেসব কর্মকর্তারা প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন তাদের মতামতের ভিত্তিতে জানা গেছে জনসচেতনতা সৃষ্টির ক্ষেত্রে আমরা শিশু বয়সে আছি। বিভিন্ন স্কুল কলেজে গিয়ে আমরা শিশুদের মধ্যে জনসচেতনতা সৃষ্টি করার লক্ষ্যে গত ১-২ বছর ধরে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। শিশুরা যেন ছোটবেলা থেকে ট্রাফিক আইন সম্পর্কে সচেতন থাকে এবং এ বিষয়ে তাদের সচেতনতা থাকে সেই লক্ষ্যে আমরা অদূর ভবিষ্যতে শিশু ট্রাফিক পার্ক করতে যাচ্ছি। এ পার্ক ঢাকা শহরের বিভিন্ন জায়গায় তৈরি করা হবে।

(ঢাকাটাইমস/২৮মে/এলএম/এমআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

জাতীয় এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :