প্রতিবাদ জানাতে এসে বিবাদে সুইডেন বিএনপি

কমরেড খোন্দকার, স্টোকহোম থেকে
| আপডেট : ১৬ জুন ২০১৭, ১৯:১১ | প্রকাশিত : ১৬ জুন ২০১৭, ১৬:৩৮

সুইডেনে অবস্থানরত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাতে এসে বিবাদে জড়িয়ে পড়েন ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে আসা বিএনপির নেতাকর্মীরা। দুই দিনের সরকারি সফরে স্টকহোমে শেখ হাসিনা যেখানে অবস্থান করছেন, সেই গ্র্যান্ড হোটেল থেকে চার কিলোমিটার দূরে কালচারাল সেন্টারের সামনে বৃহস্পতিবার দুই ঘণ্টার জন্য বিএনপিকে সমাবেশ করার অনুমতি দিয়েছিল স্থানীয় প্রশাসন।

কেন্দ্রীয় বিএনপির আন্তর্জাতিক  সম্পাদকের সামনে নিজেদের উপদলীয় কোন্দলে শেষমেশ বিশৃঙ্খলার মধ্যদিয়ে শেষ হয় সেই বিক্ষোভ সমাবেশ।

এই প্রতিবাদ সমাবেশে সুইডেন ছাড়াও যুক্তরাজ্য, ফিনল্যান্ড, বেলজিয়াম, সুইজারল্যান্ড, জার্মানি, ফ্রান্স ও ডেনমার্কের প্রায় দুই শতাধিক নেতাকর্মী অংশ নেন।

সকাল ১০টায় শুরু হওয়া বিক্ষোভে শেখ হাসিনা ও তার সরকারের বিরুদ্ধে নানা ধরনের স্লোগান দিতে দেখা গেছে বিএনপি নেতা-কর্মীদের। নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিও এসেছে তাদের মুখ থেকে।

গত কয়েক বছর ধরেই প্রধানমন্ত্রীর বিদেশ সফরে নিয়মিত নজরদারির মধ্যে বিক্ষোভ দেখা গেছে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে। সর্বশেষ শেখ হাসিনার অস্ট্রিয়া সফরেও বিক্ষোভ করেন তারা। প্রায় প্রতিটি বিক্ষোভেই নিজেদের মধ্যে বিএনপির উপদলীয় কোন্দল চোখে পড়েছে বিগত দিনগুলোতে।

ইউরোপের বিভিন্ন দেশে থেকে আসা বিএনপির কয়েকজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঢাকাটাইমসকে জানান, প্রবাসে বিএনপির সক্রিয় অংশগুলোকে উপেক্ষা করে কমিটি গঠনের ফলেই এ ধরনের বিশৃঙ্খলা চলছে। তারা এ বিষয়ে দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও জেষ্ঠ্য ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমানের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

স্টকহোমে উপস্থিত বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহীদুর রহমান বলেন, নিজেদের বিবাদ মিটিয়ে ফেলতে তারা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ‘ভুল বোঝাবুঝির’ কারণেই এরকম ঘটনা ঘটছে বলে তার দাবি।

সক্রিয় নেতাকর্মীরা যেন কোনোভাবে বঞ্চিত না হন- সেদিকে তারা খেয়াল রাখছেন বলেও জানান তিনি।

বিক্ষোভে অল্পসংখ্যক নেতাকর্মীর অংশ নিয়ে হতাশা প্রকাশ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আমাদের প্রোগ্রামগুলোতে এমনিতে বেশ নেতাকর্মী জড়ো হয়। তবে ইদানিং প্রধানমন্ত্রী এত ঘনঘন বিদেশ সফরে আসছেন, যে আমরা পেরে উঠতে পারছি না।’

স্টকহোমের সমাবেশে বিশৃঙ্খলার সূত্রপাত করেন ফিনল্যান্ড বিএনপির একটি অংশের নেতা কামরুল হাসান জনির অনুসারীরা। আন্তর্জাতিক সম্পাদক মাহীদুর রহমানের সামনেই অন্য অংশের নেতাকর্মীদের দিকে তেড়ে যেতে দেখা যায় তাদের। এক পর্যায়ে উভয়পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ছুটে আসেন। তখন সুইডেন বিএনপির নেতাদের মধ্যস্থতায় পরিস্থিতি শান্ত হয়।

সুইডেন বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আকতারুজ্জামান সিকদার বলেন, আমরা শান্তির পক্ষে। এ ধরনের ঘটনা কোনোভাবেই কাম্য নয়। এটা শুধু দলের জন্য নয়, দেশের জন্যও মানহানিকর।

বিক্ষোভ সমাবেশে মাহীদুর রহমান ছাড়াও বক্তব্য রাখেন- যুক্তরাজ্যের নেতা এম এ মালিক, সুইডেনের নেতা এমদাদ হোসাইন কচি, নাজমুল আবেদিন মোহন, জাকির হোসেন, ফিনল্যান্ডের নেতা জামান সরকার, মবিন মোহাম্মদ, সামসুল গাজী, জুলফিকার আলী সাগর, বেলজিয়াম শাখার নেতা ইকবাল হোসেন বাবু, সুইজারল্যান্ডের নেতা কবীর মোল্লা, ফ্রান্সের নেতা এম এ তাহের, ডেনমার্কের নেতা গাজী মনির আহমেদ, ওমর ফারুক এবং জার্মানির নেতা মোশতাক খান প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/১৬জুন/ইউরোপ ব্যুরো প্রধান/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

প্রবাসের খবর বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত