জেএসসি পরীক্ষায় সাফল্যের কৌশল

মো.মশিয়ার রহমান
 | প্রকাশিত : ১১ অক্টোবর ২০১৬, ১৭:৩৯

আগামী ১ নভেম্বর বাংলা প্রথম পত্র পরীক্ষার মাধ্যমে জেএসসি পরীক্ষা শুরু হবে। শেষ প্রস্তুতিতে ব্যস্ত এখন পরীক্ষার্থীরা। তাদের প্রস্তুতি আরও শাণিত করার জন্য বাংলা প্রথম পত্রের জন্যে কিছু পরামর্শ দেওয়া হলো। আজ প্রকাশিত হচ্ছে প্রথম পর্ব।

সৃজনশীল অংশ

গদ্য, কবিতা ও আনন্দপাঠ থেকে ৩টি বিভাগের মোট ৯টি প্রশ্ন থাকবে। প্রত্যেক বিভাগ থেকে কমপক্ষে ১টি করে মোট ৬টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। প্রতিটিতে (ক-১, খ-২, গ-৩, ঘ-৪) = ১০ নম্বর করে মোট নম্বর: ৬০।

ক. জ্ঞানমূলক অংশ:

প্রদত্ত নম্বর-১ [পাঠ্যবই থেকে একবাক্যে সঠিক উত্তর দেবে; এখানে কোনো বিষয়ভিত্তিক বিশ্লেষণের দরকার নেই]

খ. অনুধাবনমূলক:

প্রদত্ত নম্বর-২, এখানে ২টি প্যারা করা যেতে পারে। [প্রথম প্যারাটি হবে এক বাক্যের। প্রশ্নে যাচাইয়ে এক কথায় উত্তরের আসল বস্তু জ্ঞান আকারে লিখবে একবাক্যে আর দ্বিতীয় প্যারায়/ অংশে থাকবে সংক্ষিপ্ত বিশ্লেষণ, যা সর্বোচ্চ ৩-৪ বাক্যে শেষ করতে হবে। মনে রাখা প্রয়োজন, অনুধাবনমূলক প্রশ্নের উত্তরের ক্ষেত্রে সব মিলে সর্বোচ্চ ৫ বাক্যে শেষ করতে হবে।

গ. প্রয়োগমূলক অংশ:

প্রদত্ত নম্বর-৩। এখানে উত্তরের তিনটি প্যারা বা অংশ করা যেতে পারে। এখানে তিনটি অংশ বা প্যারা করে লিখতে পার। অংশগুলো হলো- *উত্তরের শুরুতেই মূল উত্তরটুকু অর্থাৎ জ্ঞানমূলক আকারে এক বাক্যে উত্তর লেখার চেষ্টা করবে। এরপর প্রশ্নে চাওয়া বিষয়ের সঙ্গে মূলপাঠ্যের সম্পর্ক নিরূপণ থাকবে, যা ব্যাখ্যায় অংশ বলা যেতে পারে।প্রয়োগের ৩য় অংশ অবশ্যই সম্পর্ক নিরূপণের ক্ষেত্রে প্রকৃত সমস্যা সমাধান করতে হবে। ১ম প্যারা ১ বাক্য: ২য় প্যারা ৩/৪বাক্য আর ৩য় প্যারা ৭/৮ বাক্য হতে পারে। এখানে সর্বোচ্চ ১১ বাক্য লিখতে পারবে।

ঘ. উচ্চতর দক্ষতামূলক:

প্রদত্ত নম্বর-৪: এখানে তিনটি থেকে চারটি অংশ বা প্যারা করে লিখতে হবে। অংশগুলো হলো: উত্তরের শুরুতেই প্রশ্ন অনুযায়ী জ্ঞানমূলক অংশে একবাক্যে উত্তর লেখার চেষ্টা করবে।*দ্বিতীয় প্যারায় প্রশ্ন অনুযায়ী উদ্দীপক ধরে চিন্তন শক্তি ব্যাখ্যা করবে।*তৃতীয় প্যারায় উদ্দীপকও মূলপাঠ্যের সম্পর্কগত আলোচনা করবে, সার্বিক বিশ্লেষণ করবে-সেক্ষেত্রে উদ্দীপক,মূলপাঠ্য বিষয়ও পারিপার্শ্বিক ব্যবস্থার সঙ্গে মিল রেখে তোমার অনুভূতি/মতামত প্রকাশ করে একটি সিদ্ধান্তে পৌঁছাবে। এখানে সর্বোচ্চ ১৫ বাক্য লিখতে পারবে।

** সৃজনশীলের ক্ষেত্রে প্যারা আকারে লেখা বাধ্যতামূলক নয়, তবে উত্তরের প্রাসঙ্গিকতা ঠিক রাখার জন্য প্যারা করা দোষের হবে না।

বহু নির্বাচনী প্রশ্ন:

নৈর্ব্যক্তিক অভীক্ষায় মোট ৪০টি প্রশ্নের উত্তর করতে হবে। মূল বই বারবার পড়ে গুরুত্বপূর্ণ লাইনের নিচে দাগ দিয়ে রাখবে। গল্প, কবিতা, শব্দার্থ ও টীকা বারবার পড়বে। কবিতা, প্রবন্ধ বা লেখকের জন্মস্থান, জন্ম-মৃত্যু সাল, তার রচিত গুরুত্বপূর্ণ প্রকাশনার বা গ্রন্থের নাম মনে রাখবে। একটি গল্প বা কবিতার উৎস, প্রকাশ সাল, প্রকাশের পত্রিকা, কোন গল্প বা কবিতার মাঝে অন্য লেখক কবির উদ্ধৃতি, কোন মনীষীর নাম থাকলে তা গুরুত্বের সাথে মনে রাখতে হবে। বর্তমান ক্যাটগিরিতে যে তিনটি স্তর তোমাদের পার করতে হবে তা হলো:

ক) সাধারণ বহু নির্বাচনী অংশ:

এ অংশ জ্ঞানভিত্তিক স্মৃতিনির্ভর। এ ক্ষেত্রে প্রশ্নগুলো কখনও প্রশ্ন আকারে আবার কখনও অসম্পূর্ণ বাক্য হিসেবে দেওয়া থাকে যা উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে। বিকল্প উত্তর চারটি, যার মাত্র একটি সঠিক। এ বিভাগে জ্ঞান, অনুধাবন, প্রয়োগ ও উচ্চতর দক্ষতা এ চারটি উপবিভাগ বিদ্যমান থাকে।মূল বই বারবার পড়লে এখান থেকে ১০০% নম্বর পাওয়া সম্ভব।

খ)বহুপদী সমাপ্তিসূচক প্রশ্ন:

এ ধরণের প্রশ্নের শুরুতে ৩টি তথ্যভিত্তিক উপস্থাপন থাকে। এই তথ্যের উপর ভিত্তি করে পরে ৪টি প্রশ্ন তৈরি করা হয়, যার মান বর্ণে মুর্দ্রিত থাকে। এ প্রশ্নে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে একাধিক উত্তর থাকে,যার উত্তর প্রদত্ত চারটি প্রশ্নে বিদ্যমান। অতি নিখুঁতভাবে এখানে উত্তর করতে হবে তোমাদের। এই স্তরে অনুধাবন, প্রয়োগ ও উচ্চতর দক্ষতা যাচাই করা হয়।

গ)অভিন্ন তথ্যভিত্তিক প্রশ্ন:

এখানে একটি উদ্দীপক পাবে, যার মাধ্যমে তোমাকে তথ্য সরবরাহ করা হবে। প্রশ্নগুলোর সঙ্গে এক অপরের মিল পাওয়া যাবে।ভয় পাবে না- ভাবলেই দেখবে এখানে সাধারণ বহু নির্বাচনী বা সমাপ্তিসূচক প্রশ্নই হয়ে থাকবে। এখান থেকে মূলত প্রয়োগ ও উচ্চতর দক্ষতা যাচাই করা হয়। উদ্দীপকটি ভালোভাবে পড়বে এবং মূল বইকে অনুসরণ করবে এ পর্বে নিশ্চিত ভালো পারবে।

নৈর্ব্যত্তিক প্রশ্নের ধরন :

গদ্যাংশ: ১৫

পদ্যাংশ: ১৫

সহপাঠ: ১০

# সর্বমোট ৪০টি নৈর্ব্যত্তিক প্রশ্ন থাকবে।

গদ্য

ক) বাঙালির বাংলা

খ) তৈলচিত্রের ভূত

গ) এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম

ঘ) পড়ে পাওয়া

ঙ) বাংলা নববর্ষ

কবিতা

ক) দুই বিঘা জমি

খ) আবার আসিব ফিরে

গ) দেশ

ঘ) পাছে লোকে কিছু বলে

ঙ) জাগো তবে অরণ্য কন্যারা

আনন্দপাঠ

ক) রিপভ্যানউইংকল

খ) রবিনসন ক্রুশো

গ) সোহরাব রোস্তম

ঘ) মারচেন্ট অব ভেনিস

মো.মশিয়ার রহমান : সহকারী শিক্ষক (বাংলা), বাংলাদেশ ব্যাংক আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়, ঢাকা।

ঢাকাটাইমস/১১অক্টোবর/এমআর/এমএইচ

সংবাদটি শেয়ার করুন

শিক্ষা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত