ইবিতে শিক্ষককে লাঞ্ছিতের অভিযোগে কর্মকর্তা বরখাস্ত

কুষ্টিয়া প্রতিবেদক, ঢাকা টাইমস
 | প্রকাশিত : ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৩:০৮

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের নামে গঠিত জিয়া পরিষদ কুষ্টিয়ার জেলা কমিটি অনুমোদন না দেওয়ায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শিক্ষককে লাঞ্ছিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক কর্মকর্তা। 
বুধবার রাত ৭টার দিকে জিয়া পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির মহাসচিব ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ড. এমতাজ হোসেনকে তার নিজ কক্ষে বিশ্রামরত অবস্থায় সংস্থাপন শাখার উপ- রেজিস্ট্রার মানজারে আলম মিরু শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন করেন বলে জানা গেছে। 

শিক্ষককে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাৎক্ষণিক অভিযুক্ত মানজারে আলম মিরুকে সাময়িক বরখাস্ত করে। বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এস এম আব্দুল লতিফ  এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাত ৭টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডরমিটরিতে নিজ কক্ষে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক এবং জিয়া পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির মহাসচিব ড. এমতাজ হোসেন। 
এসময় মানজারে আলম মিরুসহ দুই সহযোগী জিয়া পরিষদের কুষ্টিয়া জেলা কমিটির আনুমোদনের জন্য তার কক্ষের সামনে গিয়ে ডাকাডাকি করেন। দরজা খুলে দিলে অভিযুক্তরা কমিটি আনুমোদনের জন্য চাপ দেন। 

শিক্ষক অধ্যাপক ড. এমতাজ হোসেন তাতে অস্বীকৃতি জানালে তাদের মধ্যে বাকবিত-া বাধে। একপর্যায়ে কর্মকর্তা মিরু অধ্যাপক এমজাতকে কিলঘুষি মারতে শুরু করেন।
খবর পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের অপর শিক্ষকরা জড়ো হয়ে মিরুকে আটক করেন। পরে বিষয়টি পুলিশকে জানালে ইবি থানার ওসি রতন সেখ ঘটনাস্থল থেকে অভিযুক্ত কর্মকর্তা মিরুকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। 

বুধবার রাতে উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন উর রশিদ আসকারী আহত শিক্ষককে দেখতে গিয়ে  এ ঘটনার নিন্দা জানান। তিনি বলেন, শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। 
এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন বিশ^বিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান। তিনি বলেন অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ করা হয়েছে। 

ঢাকা টাইমস/১৩ডিসেম্বর/প্রতিবেদক/ওআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

শিক্ষা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :