যশোর জেনারেল হাসপাতালে দালালদের দৌরাত্ম্য

আবদার রহমান, যশোর
 | প্রকাশিত : ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ১৯:০৫

যশোর ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালে দালালদের অত্যাচারে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন রোগী ও তাদের স্বজনরা।

রোগীর স্বজনরা বলছেন, যশোর জেনারেল হাসপাতালের কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন পোস্টার, মাইকিং থেকে সর্বদা দালালদের খপ্পরে না পড়ার জন্য আহ্বান জানান। তারপরও ৩০ জন দালাল গ্রামাঞ্চল থেকে আসা সাধারণ মানুষদের অতি কৌশলে তাদের ক্লিনিক বা ডায়গনোস্টিক সেন্টারে নিয়ে চিকিৎসার নামে সর্বস্ব লুট করছেন।

মাগুরার শতখালীর কলেজশিক্ষক ভুক্তভোগী নার্গিস আক্তার জানান, যশোর জেনারেল হাসপাতালে সর্বত্রই সিসি ক্যামেরা বসানো আছে। সিসি ক্যামেরার এসব ভিডিও দেখে একদিনেই পুলিশ চেষ্টা করলে হাসপাতাল থেকে দালাল নির্মূল করতে পারে।  এখানে দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা এবং হাসপাতালের কর্তৃপক্ষের সদিচ্ছার অভাব রয়েছে।

হাসপাতালে দালালি করতেন তুহিন নামে এক ব্যক্তি। ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে কারাদণ্ডাদেশ দেন। জেলখানা থেকে বের হয়ে তিনি আর হাসপাতালে যান না। অন্য পেশায় যোগ দিয়েছেন তুহিন। তুহিন জানান, যশোর জেনারেল হাসপাতালের যারা দালালি করে তাদের তালিকা হাসপাতাল এবং পুলিশের কাছে আছে। হাসপাতালে কোতয়ালি মডেল থানার যেসব পুলিশ সদস্য জরুরি বিভাগের পাশে দায়িত্ব পালন করেন, তাদের মাসোহারা দিতে হয় দালালদের। ফলে এক প্রকার অলিখিত চুক্তিতে দালালরা মাসোহারা দিয়ে হাসপাতাল এলাকায় দালালি করে। যশোর জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবুল কালাম আজাদ জানান, হাসপাতালের যোগদানের পর থেকে আপ্রাণ চেষ্টা করেছি দালালমুক্ত করতে। অনেকটা সফল হয়েছি। সম্প্রতি দালালদের আনাগোনা বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানতে পেরেছি। এর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে অচিরেই।

(ঢাকাটাইমস/১৭নভেম্বর/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :