রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় ঘুম

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৯ মার্চ ২০২০, ১০:০৮

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও (হু) বলছে, করোনার সংক্রমণ মানেই গুরুতর অসুস্থতা নয়। ৫-১০% মানুষের মামুলি হাঁচি-কাশির বেশি কিছু হয়ই না। বস্তুত, ৮৫% রোগী সাধারণ সর্দি-কাশিতে কিছু দিন ভুগে এমনিই সেরে যান। সমস্যায় পড়েন বাকি ১৫% আক্রান্ত যাঁদের অসুখটা কাবু করে। এঁদের মধ্যে আবার ৫% রোগীর অবস্থা আশঙ্কাজনক পর্যায়ে পৌঁছে যায়। তাঁদেরই হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়।

সম্প্রতি একটি ভিডিওতে টুইট করে হু’র প্রধান তেদ্রস আধানম ঘেব্রেইয়েসুসও জানিয়েছেন, ফারাকটা আসলে গড়ে দেয় সাধারণ স্বাস্থ্যবিধি আর ইমিউনিটি। লকডাউনের সময়ে তারও পরামর্শ, ‘গতে বাঁধা জীবনকে শৃঙ্খলায় বাঁধুন, বিশ্রাম নিন, আর পর্যাপ্ত সুষম পুষ্টিকর খাবার ও পানি খান। আর পর্যাপ্ত ঘুমান। এতেই সংক্রমণটাকে অনেকাংশে ঠেকিয়ে দিতে পারবেন।’

কিন্তু কী ভাবে ইমিউনিটি গড়ে তোলা সম্ভব এত তাড়াতাড়ি? মেডিসিন ভারতে বিশেষজ্ঞ অরিন্দম বিশ্বাসের কথায়, ‘কাজটা খুব শক্ত নয়। তা ছাড়া ইমিনউনিটি ব্যাপারটাও অনেক সময়েই অস্থায়ী। ঠান্ডা-গরমেও অনেক সময়ে আমাদের ইমিউনিটি কমে যায়। শরীরে একটা পাকাপাকি ইমিউনিটি রক্ষা করতে গেলে ঠিকঠাক জীবনযাত্রা খুব জরুরি।

ভিটামিন সি এবং জিঙ্কযুক্ত মাল্টি-ভিটামিন খাওয়া যেতে পারে। যদিও ট্যাবলেট-ক্যাপসুলের চেয়েও জরুরি সুন্দর একটা ডায়েট।’ এর সঙ্গে পর্যাপ্ত ঘুম।

তিনি বলেন, ‘কখন কে করোনায় আক্রান্ত হব, সে কথা ভেবে লাভ কী! ভাইরাস, ব্যাকটিরিয়া, ছত্রাকের সংক্রমণ যে কারও হতে পারে যখন-তখন। কিন্তু মনে রাখা দরকার, ইমিউনিটি ভালো থাকলে এর ধাক্কাটা সহজেই সামলে নেওয়া সম্ভব।’

তাঁর পরামর্শ, লকডাউনের সময়ে বাড়ি বসে মন খারাপ না-করে বরং প্রচুর বিশ্রামের পাশাপাশি সাধারণ কিছু ফ্রি-হ্যান্ড ব্যায়াম, পর্যাপ্ত ঘুম, অঢেল পানি পান আর প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে।

(ঢাকাটাইমস/২৯মার্চ/এজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :