ছেড়েছেন সব প্রকার মিষ্টি, তবু বাড়ছে ডায়াবেটিস? জানুন আসল কারণ

ঢাকাটাইমস ডেস্ক
 | প্রকাশিত : ২২ জানুয়ারি ২০২৩, ১০:২৩

ডায়াবেটিস বা বহুমূত্র রোগ হলে চিকিৎসকদের প্রথম পরামর্শ থাকে, মিষ্টি খাওয়া ছেড়ে দিন। সেই পরামর্শ মেনে অনেকেই চা-কফির সঙ্গে চিনি না মেশানোসহ সব প্রকার মিষ্টি খাওয়াই ছেড়ে দেন। নিয়মিত শররিচর্চাও করেন। তবু বাগে আনতে পারেন না ডায়াবেটিস। এর কারণ কী?

বিশেষজ্ঞদের কথায়, মিষ্টি কম খাওয়া, চায়ে চিনি এড়িয়ে চলার মতো অভ্যাস করে নিলেই যে সুগার নিয়ন্ত্রণে থাকবে তা নয়। বরং এরপরও রক্তে শর্করা বেড়ে যাওয়ার ভালোরকম আশঙ্কা রয়েছে। কীভাবে? চিকিৎসকদের কথায়, আমাদের প্রতিদিনকার খাবারদাবারই এর জন্য দায়ী।

মিষ্টি জিনিস এড়িয়ে চললেও আমরা প্রায়ই রাস্তার তেলেভাজা বা কনফেকশনারির দোকানের ফাস্টফুড কিনে খেতে পছন্দ করি। মনে করি, এতে চিনি নেই বলে তেমন চাপ নেই। তবে এর মধ্যে থাকা বেশ কয়েকটি ক্ষতিকর পদার্থই আসলে বারোটা বাজাচ্ছে শরীরের। বাড়িয়ে দিচ্ছে ডায়াবিটিস।

চিকিৎসকদের কথায়, দোকানের পা-রুটি, সকালের নাস্তা, কেচাপ, ফ্লেভারড দই, দোকান থেকে কিনে আনা স্যালাডে প্রচুর পরিমাণে অ্যাডেড সুগার থাকে। এই অ্যাডেড সুগারই টাইপ ২ ডায়াবেটিসের আশঙ্কা বাড়িয়ে দেয়। পাশাপাশি হার্টের সমস্যা, লিভারের অসুখ ও দাঁত ক্ষয়ে যাওয়ার মতো সমস্যাও দেখা দেয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, প্রাপ্তবয়স্ক ও শিশুদের প্রতিদিনকার খাদ্যতালিকা থেকে ১০ শতাংশ অ্যাডেড সুগার বাদ রাখা উচিত।

মস্তিষ্কে কীভাবে প্রভাব ফেলছে এই অ্যাডেড সুগার

সুগার এমনিতে নেশা উৎপাদনকারী (অ্যাডিক্টিভ) দ্রব্য। ফলে রক্তে বেশি পরিমাণে সুগার থাকলে তা মস্তিষ্কে প্রভাব ফেলার আশঙ্কা বেড়ে যায়। এর থেকে মানসিক দুশ্চিন্তা, মাথা ব্যথা, ক্লান্তিভাব, বিরক্তি ও খিদে বেড়ে যায়।

চোখের উপর সুগারের প্রভাব

রক্তে শর্করার পরিমাণ বেশি থাকলে তা প্রতিটি রক্তনালিকেই বাজেভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করে। চোখের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র রক্তনালিকেও একইভাবে প্রভাবিত করে রক্তের অতিরিক্ত শর্করা। এর ফলে ঝাপসা দৃষ্টি, ক্যাটারাক্ট, গ্লুকোমা, রেটিনোপ্যাথির সমস্যা দেখা দিতে পারে।

হার্টের উপর প্রভাব

হৃদযন্ত্রের সঙ্গে যুক্ত থাকা ধমনী শক্ত করে দেয় রক্তে সুগারের উপস্থিতি। সুগার থেকে উচ্চ রক্তচাপ ও হৃদরোগের আশঙ্কাও বেড়ে যায়। প্রাপ্তবয়স্ক ডায়াবেটিস রোগীদের বেশিরভাগেরই মৃত্যু হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকে হয়। তাই সময় থাকতে সাবধানতার কোনো বিকল্প নেই।

(ঢাকাটাইমস/২২জানুয়ারি/এজে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

স্বাস্থ্য এর সর্বশেষ

এই বিভাগের সব খবর

শিরোনাম :